ছাত্রলীগ ক্যাডার পীযুষের রাহু থেকে মুক্ত হলো ২ কোটি টাকার বাড়ি

0
61

সিলেটের সংবাদ ডট কম: অবশেষে ৭ মাস পর সিলেট নগরীর রামের দীঘির পাড় এলাকায় প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের একটি দখলমুক্ত হয়েছে। সোমবার সকালে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ছাত্রলীগ ক্যাডার পীযুষের লোকজনকে উচ্ছেদ করতে সক্ষম হন বাড়িটির বর্তমান মালিক মিহির দেব ও তার আত্বিয় স্বজনরা। এসময় ছাত্রলীগ ক্যাডার পীযুষকে বাড়িটির আশে পাশে কোথাও পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় সংঘর্ষের আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কোতোয়ালী থানার ওসি জানান, পীযুষের লোকজন যেন কোন সংঘর্ষে লিপ্ত না হয় সে জন্য পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। স্থানীয় সূত্র থেকে জানা যায়, নগরীর রামের দীঘিরপাড়ে ব্রিটানিয়া স্কুল এন্ড কলেজের বিপরীতে অবস্থিত ৯ দশমিক ৬০ শতক ভূমির মালিক মূল মালিক দক্ষিন সুরমার মোগলাবাজারের বাসিন্দা, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল কাদির সেলিম ও তার মা মোসাম্মৎ আম্বিয়া খাতুন। ১৯৯৫ সালে সেলিম ঐ ভূমি খরিদ করে সেখানে বাড়িঘর নির্মাণ করে ভোগ দখল করে আসছিলেন তারা। বছর খানেক আগে ঐ বাড়িটি বিক্রির জন্য বাসার সামনে একটি সাইনবোর্ড ঝুলান সেলিম। এটি জানতে পেরে জায়গাসহ বাসাটি কেনার জন্য প্রবাসী আব্দুল কাদিরের সাথে যোগাযোগ করে ছাত্রলীগ ক্যাডার পীযুষ কান্তি দে। পীযুষ নিজে ঐ বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করে বাড়িতে বসবাসরত লোকজনের সাথে পরিচিত হয়। গত অক্টোবরে আব্দুল কাদির সেলিম বিদেশে চলে যাবার পর আকস্মিকভাবে পীযুষ তার দলবল গত নভেম্বর মাসে নিয়ে ঐ বাসায় ঢুকে পড়ে। বাড়ির কয়েকটি কৰে সে তার নিজের ক্যাডারদের ঢুকিয়ে দেয়। আর বাড়ির সামনের একটি দোকানের ভাড়াটিয়াদের বের করে দিয়ে দোকানে নিজের অফিস খুলে বসে। ঘটনার আকস্মিকতায় হতবিহবল ঐ প্রবাসী কোতোয়ালী থানা পুলিশের সহযোগিতা চেয়ে ব্যর্থ হন। প্রবাসী আব্দুল কাদির থানায় জিডি করলেও রহস্যজনক কারণে পুলিশ পীযুষের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে, পুলিশ কমিশনারের কাছে অভিযোগ দেন ঐ প্রবাসী। পুলিশ কমিশনার কোতোয়ালী থানার সহকারী কমিশনার (এসি) কে নির্দেশ দেন ব্যবস্থা নেয়ার। কিন্তু, তৎকালীন এসি জ্যোতির্ময় গুহ কোন ব্যবস্থা নেয়া থেকে বিরত থাকেন। উল্টো পীযুষের সহযোগী, শাহপরাণ থানার এসআই বেনু চন্দ্র দেব (আজই ক্লোজ্‌ড করা হয়েছে তাকে) ঐ প্রবাসীকে দেশে আসলে দেখে নেয়ার হুমকী দেন। বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা সুরঞ্জিত সেন-গুপ্তের সাথে যোগাযোগ করা হলে সুরঞ্জিত সেন-গুপ্তও ঐ বাড়িটি পীযুষকে ‘দান’ করে দেয়ার জন্য প্রবাসী আব্দুল কাদির সেলিমকে অনুরোধ জানান। এসএমপির সাবেক কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝিও ঐ বাড়িতে না আসার জন্য প্রবাসী আব্দুল কাদির সেলিমকে হুমকী দেন। এ পরিস্থিতিতে প্রবাসী আব্দুল কাদির সেলিম বাসাটি অন্যত্র বিক্রি করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। সে অনুযায়ী গত ২৭ এপ্রিল রামের দীঘির পাড়ের বাসিন্দা মিহির দেব গং-এর কাছে বায়নামা সম্পাদন করেন সেলিম। এর আগের দিনই কোতোয়ালী থানায় আবারো জিডি করেন সেলিম। ঐ জিডির প্রেক্ষিতে কোতোয়ালী থানার ওসি সরেজমিনে বাড়িটি পরিদর্শন করেন। আজ সোমবার সকালে নতুন মালিক মিহির গং এলাকাবাসীর সহযোগিতায় বাড়িটির দখল নিতে সক্ষম হন। সুত্র:- আমাদের সিলেট

(Visited 3 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here