খালেদ হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার দুই

0
96

সিলেটের সংবাদ ডট কম: সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ছাত্র খালেদ আহমদ হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে দুই যুবককে আটক করেছে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ। তারা হচ্ছে জকিগঞ্জের মুমিত আল মাহমুদ ও বিয়ানীবাজার ঢাকা উত্তর গ্রামের গৌছ উদ্দিন। বিয়ানীবাজার থানার ওসি আবুল কালাম আজাদকে তাদেরকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, এ ঘটনায় তাদেরকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। তবে, এখনো ঘটনার কোন ক্লু উদ্ধার করা যায়নি বলে জানান ওসি। ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর জানান, ওসমানী হাসপাতালে ময়নাতদন্তশেষে খালেদের লাশ শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিহত খালেদ গোলাপগঞ্জ উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের নিমাদল গ্রামের মো. ছল্লুছ মিয়ার ছেলে। সে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং(সিএসই) বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র ছিল বলে ইউনিভার্সিটির পিআরও আব্বাস উদ্দিন জানিয়েছেন। ওসি নন্দন জানান, ২১ জুলাই সকালে সিলেট নগরীর করিম উল্যাহ মার্কেটে একটি ল্যাপটপ বিক্রি করতে আসেন খালেদ ও তার খালাতো ভাই জহিরুল ইসলাম জহির। বিয়ানীবাজারের রামধা বাজার চন্দ্রগ্রামের রাশেদ নামের এক যুবক ল্যাপটপ ক্রয়ের কথা বলে তাদেরকে মোটর সাইকেলযোগে তার গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যায়। বাড়িতে তাদেরকে অবরুদ্ধ করে খালেদ ও জহিরের মুখে স্কচট্যাপ, চোখে কাপড় ও হাত-পা বেঁধে মারধর করে রাশেদ ও তার সহযোগীরা। খালেদের মুক্তির জন্য ১২ লাখ টাকা এনে দেয়ার শর্তে তারা জহিরকে ছেড়ে দেয়। আহত জহির স্বজনদের এসে বিষয়টি জানালে তারা বিষয়টি বিয়ানীবাজার থানার পুলিশ অবহিত করেন। পুলিশ জহিরকে সঙ্গে নিয়ে রাশেদের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করতে পারেনি। সেখান থেকে রাশেদের ফুফাতো ভাই মুমিত আল মাহমুদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তাকে আদালতে ১৫৪ ধারায় চালান দেয়া হয়। এ ঘটনায় বিয়ানীবাজারের ঢাকা উত্তর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে  শনিবার গৌছ উদ্দিন নামের আরেক যুবককে আটক করেছে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ।

(Visited 1 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here