গোলাপগঞ্জে বৈদুতিক লাইন থেকে গাছের উপরে আগুন : এলাকায় আতঙ্ক

0
186

47 (1)সিলেটের সংবাদ ডটকম: গোলাপগঞ্জে গভীর রাতে পল্লী বিদ্যুতের বৈদ্যুতিক তার থেকে একটি গাছে আগুনের সুত্রপাত ঘটে গাছের উপরেই আগুন দাউদাউ করে জ্বলতে থাকে। সময় যতই বাড়তে থাকে আগুনের লেলিহান ততই তীব্র হয়ে ভয়ানক হয়ে উঠে ঘটনাস্থল। আগুনের লেলিহান গোটা এলাকা আতঙ্ক বিরাজ করছে।

চারদিকে মানুষ জন ঝড় হলেও বিদ্যুতের লাইন চালু থাকায় আগুন নেভাতে কেউ এগিয়ে আসতে পারছে না। একদিকে বিটিসিএল অফিসের মুল্যবান সরঞ্জাম বিকল হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে, অপর দিকে পাশ্ববর্তী লোকজন জানমালের নিরাপত্তাহীনতাসহ চরম আতঙ্কের মধ্যে ছিলেন। ভয়ে অনেক মানুষজন অন্যত্র চলে যান।

আবার অনেকেই পাশ্ববর্তী বাসা-বাড়িতে আশ্রয় নেয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাৎক্ষনিক বিদ্যুতের লাইন বন্ধ করতে ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে সাংবাদিক, পুলিশ ও স্থানীয়রা বার বার জিএম, ডিজিএম, এজিএম ও অভিযোগ কেন্দ্রে ফোন দিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। এমনকি ফোনও রিসিভ করা হয়নি।

এতে করে দুর্ঘটনা কবলিত স্থানের লোকজন ভয়ে অন্যত্র চলে যান। পরে রাত ১টার দিকে প্রকৌশলী আরেফিন মোবাইল ফোন রিসিভ করেন এবং বিদ্যুতের লাইন বন্ধ করে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত রোববার রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন রণকেলী এলাকার বিটিসিএল অফিস সামনে। এদিকে,ঘটনার সংবাদ পেয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন-সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ জিএম, ডিজিএমসহ অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদাসীনতায় এলাকার প্রায় ১০/১২টি পরিবারের প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষজন বড় ধরনের অগ্নি দুর্ঘটনার শিকার হন। তিনি যোগদানের পর থেকে সিলেটের গোলাপগঞ্জ জোনাল অফিস সহ অন্যান্য জোনাল অফিসের আওতায় বিভিন্ন স্থানে বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা হরহামেশাই ঘটছে।

এ ব্যাপারে জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী মাহবুবুল আলমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি প্রথমেই প্রতিবেদককে জানান, এত রাতে ফোন দেয়ার কি দরকার ছিল। অভিযোগ কেন্দ্রে ফোন দেয়ার পরামর্শ দেন পরে অবশ্য বলেছেন বিষয়টি তিনি জানেন না উক্ত বিষয় তিনি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

(Visited 11 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here