শ্রীমঙ্গলে অবাধে চলছে পতিতার আনাগোনা : ধ্বংসের মুখে যুব সমাজ

0
1539

22সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সবুজে ঘেরা সারি সারি চায়ের গাছে সুসজ্জিত পর্যটন নগরী শ্রীমঙ্গলে অবাধে চলছে পতিতার আনাগোনা। যার ফলে স্থানীয় যুব সমাজ ধ্বংস হচ্ছে। শহরের বিভিন্ন পল্লীতে পতিতার আনাগোনাটা পুরনো হলেও, শহরের রেস্ট হাউস, হোটেল গুলোতে বাইরে থেকে পতিতা নিয়ে এসে অবাধে পতিতালয় বানিয়ে রমরমা ব্যবসা চালিয়ে নেওয়াটা যেন এই ব্যবসার নতুন একটি মাত্রা যোগ হয়েছে।

শুধু যে রেস্ট হাউস, হোটেল গুলোতেই এর সীমাবদ্দতা রয়েছে তা কিন্তু নই। কালের আবর্তে একটি চক্র পতিতাদের নিয়েই একটি আধুনিক ব্যবসা করে দিয়েছে। ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে প্রভাবশালী সেই চক্র নির্দ্বিধায় চালিয়ে যাচ্ছে পতিতা ব্যবসা। আর সেই পতিতালয়ের ভোক্তারা হচ্ছে শহরের ভদ্র পরিবারের সন্তানেরা। যারা সম্পূর্ণ নিরাপদে, নির্ভয়ে মিটাচ্ছেন তাদের যৌন ক্ষুধা।

অনুসন্ধান করতে গেলে অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায় এসব পতিতালয় থেকে নাকি প্রশাসনকে মাসুয়ারা দেওয়া হয়ে থাকে। যার কারনে চোখ থাকতেও অন্ধের ভূমিকা পালন করছেন প্রশাসন। এটাতো গেল পতিতা চক্রের ব্যবসার কথা। অনুসন্ধানে বেড়িয়ে আসলো আর এক ভিন্ন চিত্র। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে শহরের আনাচে কানাচে ঘুরতে দেখা যায় ১৩-১৪ বছরের মেয়ে শিশুদের।

যাদেরকে এক শ্রেণী পেশার পুরুষদের যৌন ক্ষুধা নিবারনের এক প্রকার কর্মী হিসেবে আখ্যায়িত করলে ভুল হবেনা। শহরের এক শ্রেণীর দিন মজুর,ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভোগ্য পন্যে পরিনত হয়েছে সেই সব শিশুরা। বলা চলে এক প্রকার বাধ্য হয়েই সেই অনাথ শিশুরা জড়িয়ে পড়ছে যৌন কর্মে। যদিও এ বিষয়ে বোঝার মত বয়স তাদের হয়ে উঠেনি। তবুও অজান্তেই নিজেদের মুখের আহার যোগাতে নেমে পড়ছে অবৈধ আয়ের এই পথে। তবে বেশির ভাগ শিশুকে ঐ শ্রেণীর পুরুষরা এক প্রকার বাধ্যই করছে নিজেদের স্বার্থে।

কেউ কেউ ভয়ে আবার কেউ কেউ আবেগের বশে ঐ শ্রেণীর পুরুষদের ভোগ্য পন্য হয়ে অবিবাহিত করছে তাদের দিন। পর্যটন নগরী বলে প্রতিদিন দেখা যায় অনেক পর্যটকের আসা যাওয়া। এদের মধ্যে অদিকাংশই ক্যাপল। যারা ঘুরার ছলে নিরাপদে জামাই-বউ পরিচয় দিয়ে এক রুমে এক সাথে রাত্রি যাপন করছে। গোপন সংবাদের ভিক্তিতে জানা যায়, বাইরে থেকে যে সব ক্যাপল বেড়াতে আসে তাদের অধিকাংশই পতিতা ভাড়া করে নিয়ে আসে ২-৩ দিনের জন্য।

ঐ ২-৩ দিনের জন্য ঐসব ভদ্রভেষী পতিতারা হযে যান সেই সব ছেলেদের বউ কিংবা গার্লফ্রেন্ড। আবার দেখা গেছে স্থানীয় ছেলেরা পড়াশুনার সুবাদে বাইরে থাকার কারনে বাইরের বন্ধুদের সুবিধার্থে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে আমন্ত্রণ জানায় সৌন্দর্যমন্ডিত এই চায়ের রাজ্যে। আর স্থানীয় বন্ধুর আমন্ত্রনকে সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে বাইরের ছেলেরা সাথে নিয়ে আসে তার বান্ধবী কিংবা ভাড়া করা পতিতা। এভাবেই শ্রীমঙ্গলে অবাধে চলছে পতিতার আনাগোনা।

যা এই শহরের ভাবমূর্তি বাইরের সচেতন মানুষদের কাছে নষ্ট হচ্ছে। হারাতে বসেছে সুশীল সমাজের কাছে এই শহরের নিজস্ব খ্যাতি। অবাধে এসব অনৈতিক কার্য্যকলাপ বন্ধে প্রশাসন সহ স্থানীয় প্রভাবশালী নেতারা যেন এগিয়ে আসেন। তা না হলে অদূর ভবিষ্যতে শ্রীমঙ্গল হারাবে তার শ্রী কে আর এই শহরের মানুষ হারাবে দেশের এ ক্লাশ পৌরসভার খ্যাতিটাকে।

(Visited 147 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here