Daily Archives: Mar 16, 2017

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: নগরীর উপশহরের বাসিন্দা রাজনীতিবিদ শামীম ইকবাল কখনো ব্যবসায়ীদের কাছে কোনোদিন চাঁদা দাবি তো দুরের কথা, দুর্ব্যবহারও করেননি। বরং ব্যবসায়ীদের সুখে-দু:খে এগিয়ে এসেছেন।

বৃহস্পতিবার সিলেট প্রেসক্লাবে পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই দাবি করলেন শাহজালাল উপশহর ব্যবসায়ী সমিতি ই ও এফ ব্লক শাখার নেতৃবৃন্দ। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সৈয়দ মুহিবুর রহমান মিছলু।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সুনামের সঙ্গে ও শান্তিপূর্ণভাবে তারা ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। সম্প্রতি রুমা বেগম নামের এক মহিলা অপপ্রচার চালিয়ে ব্যবসায়ীদের সমস্যার সৃষ্টি করেছেন। রুমা বেগম মিথ্যাচার করেই ক্ষান্ত হননি ব্যবসায়ীদের মোবাইল ফোনেও হুমকি দিচ্ছেন। তারা বলেন, উপশহরে ‘তানহা ফ্যাশন’ নামে একটি টেইলার্সের দোকান খুলেন রুমা বেগম।

একজন ব্যবসায়ী হিসেবে রুমা বেগমকে সবাই মিলে ব্যবসায়ীদের দলভুক্ত করেন। এমনকি তাকে সংগঠনের কার্যকরী কমিটির মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা করা হয়। এরপর রুমা বেগম একই এলাকায় ‘ওয়ান টু হান্ড্রেড’ নামে একটি ব্যবসা খুলেন। ২০১৬ সালের ১৩ এপ্রিল রুমার একটি ঘটনায় ব্যবসায়ীরা হতবাক হন। ওই দিন রুমার দোকানে গিয়েছিলেন স্থানীয় এক মহিলা।

ওই ক্রেতা মহিলাকে দোকানের ভেতরেই নাজেহাল করা হয়। চিৎকার শুনে ব্যবসায়ীরা গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেন এবং তাৎক্ষনিক বিষয়টি সমাধান করতে বিচারে বসেন। কিন্তু বিচারেই রুমার ছেলে তাহমিদ ওই মহিলার মাথায় কাঠের রোল দিয়ে আঘাত করে। এ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে ব্যবসায়ীরা উভয়পক্ষকে সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন।

এ ঘটনার পরের দিন ব্যবসায়ী সমিতির নেতাদের বিরুদ্ধে রুমা শাহপরান থানায় জিডি করেন। স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও শাহপরান থানার ওসি এসে তদন্ত করে রুমার অভিযোগের কোনো সত্যতা পাননি। সংবাদ সম্মেলনে সমিতির নেতৃবৃন্দ বলেন, ফেব্রুয়ারি মাসে ব্যবসায়ী সমিতির কাছে রুমার বেগমের বিরুদ্ধে উপশহরের বাসিন্দা শামীম ইকবাল, নাহিদুর রহমান সাব্বির, চঞ্চল ও সুমন অভিযোগ করেন।

অভিযোগ পেয়ে নেতৃবৃন্দ বৈঠকে বসে রুমাকে বেগমকে ডাকা হয়। কিন্তু রুমা ব্যবসায়ীদের ডাকে সাড়া না দিয়ে ব্যবসায়ীদের বৃদ্ধাঙ্গুল প্রর্দশন করে বলেন- ‘আমি দেখতে চাই কার দৌড় কতখান।’ ব্যবসায়ীরা রুমার এই আচরনে ক্ষুব্ধ হন এবং তার বিতর্কিত কর্মকান্ড থেকে সংগঠনকে রক্ষা করতে ২০ ফেব্রুয়ারি ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা বৈঠক করে তাকে বহিস্কার করেন। অথচ রুমা সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন- ব্যবসায়ীরা তাকে সহযোগিতা করতে এগিয়ে আসেননি।

রুমার এই অভিযোগ সত্য নয়। তারা আরো বলেন, রুমা অভিযোগ করেছেন উপশহরে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চাঁদার দাবিতে হামলা ও ভাংচুর করা হয়েছে। অথচ কোনো ব্যবসায়ীই জানতে পারলেন না তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়েছে। অভিযোগ করা হয়েছে উপশহরের বাসিন্দা শামীম ইকবালের বিরুদ্ধে। শামীম ইকবাল রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

একটি সাজানো ঘটনায় শামীমকে টেনে এনে রুমা বেগম কী স্বার্থ হাসিল করতে চাচ্ছেন সেটি বোধগম্য হচ্ছে না। তারা বলেন, শামীম ইকবাল কখনো ব্যবসায়ীদের কাছে কোনোদিন চাঁদা দাবি তো দুরের কথা, দুর্ব্যবহারও করেননি। বরং ব্যবসায়ীদের সুখে-দু:খে এগিয়ে এসেছেন। তারা বলেন, রুমা বেগমের কারনে উপশহরের গোটা ব্যবসায়ী সমাজের মনে অশান্তি দানা বেধেছে।

শান্তি ফিরিয়ে আনতে তারা প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শাহজালাল উপশহর ব্যবসায়ী সমিতি ই ও এফ ব্লক শাখার সভাপতি হাজী শামসুল হক, সি ও ডি ব্লক শাখার সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম, মো. মোস্তাক আহমদ, মো. কয়েছ চৌধুরী, মো. ইসলাহ উদ্দিন বাবলু, আলিম উদ্দিন মান্নান, মো. সোহরাব আলী, মো. মোস্তাফিজুর রহমান, মো. ইসলাম উদ্দিন। বিজ্ঞপ্তি

সিলেটের সংবাদ ডটকম: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তাজুল ইসলাম মাহমুদ ওরফে মামা হুজুর নামে (৪৫) নামে হরকাতুল জেহাদের আঞ্চলিক কমান্ডার নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) বেলাল হোসেনসহ পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন।

পু্লিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩৫ টি ককটেল, একটি পাইপগান, নয় রাউন্ড কার্তুজ ও পাঁচটি চাপাতি উদ্ধার করেছে। বুধবার দিনগত রাত (১৬ মার্চ) দেড়টার দিকে উপজেলার কুটি এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মামা হুজুর হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার কুরশি ইউনিয়নের সাদুল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা। সে কয়েক বছর পূর্বে জঙ্গি জঙ্গি সংশ্লিষ্টতায় র্যাবের হাতে গ্রেফতার হয়েছিল। এর পর দীর্ঘ দিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করে। ট্রাভেলস ব্যবসাও করেছে অনেক দিন।

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহিউদ্দিন আহাম্মেদের দাবি, নিহত মামা হুজুর জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাতে উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের কবিরাজ ফরিদ মিয়া হত্যা মামলার অন্যতম অাসামি সে। এই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া অারেক অাসামির ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে মামা হুজুরের নাম উঠে অাসে।

ওসি জানান, নাশকতার উদ্দেশ্যে মামা হুজুর ও তার দল কুটি এলাকায় জড়ো হয়েছে এমন খবরে অভিযানে যায় পুলিশ। ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর মামা হুজুরের লোকজন পুলিশকে লক্ষ্য করে ১৪ টি ককটেল ছুঁড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মামা হুজুর নিহত হয়। নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।

এদিকে সুত্রে জানা গেছে, নিহতের বাড়ি নবীগঞ্জে হলেও সে দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করে আসছিল, পরিবারের লোকজনের সাথে কোন যোগাযোগ ছিলনা। এমনি কয়েক বছর পূর্বে জঙ্গি তৎফরাতায় জড়িত থাকার অফিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল। নিহত তাজুলের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তারা লাশ আনতে কসবা থানায় গেছেন।

0 184

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সিলেটে বেড়েছে বানরের উপদ্রব। প্রতিদিনই বানরের আক্রমনের শিকার হচ্ছেন নারী-শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ। একসময় এই বানরের বিচরণ নগরীর গোয়াইটুলাস্থ হযরত চাষনী পীর (রহ.) এর মাজারের টিলায় সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন তা ছড়িয়ে পড়েছে পুরো নগরীতে।

নগরীর হযরত চাষনী পীর (রহ.) মাজার ও আশপাশের এলাকায় দীর্ঘ দিন থেকে রয়েছে বানরের বসবাস। এক সময় মানুষ বানরের খেলা দেখে, খাবার দিয়ে আনন্দ উপভোগ করতেন। কিন্তু দীর্ঘকাল যে বানর লোকালয়ে বাস করেও ছিলো শান্ত।

সেই বানর এখন চাষনীপীর মাজার এলাকা ছেড়ে ছড়িয়ে পড়েছে পুরো নগরীতে। ৬নং ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার শিশু, নারী পুরুষের আতঙ্কের কারণ। বানর হিংস্র হয়ে আক্রমন করছে বাসা-বাড়িতে। শিশু, নারীসহ কেউই রেহাই পাচ্ছেন না বানরের আক্রমন থেকে।

বাসায় ঢুকে রান্না করা খাবার নিয়ে যাচ্ছে, দোকান থেকে নেয়া বিস্কিট বা অন্যান্য পণ্য হাত থেকে কেড়ে নিয়ে যাচ্ছে। দিনে দুপুরে গাছ থেকে ফল বা সবজি নষ্ট করে ফেলে যাচ্ছে মাটিতে। অবস্থা এতোটা মারাত্মক হয়ে দাঁড়িয়েছে যে সকাল থেকেই শিশু ও অভিভাবকদের একা স্কুলে যেতে বা মক্তবে যেতে ভয়ের মধ্যে থাকতে হয়। গত ৬ মাসে শিশু, মহিলাসহ বিভিন্ন শ্রেনীর অন্তত ২০/২৫ জন আক্রমনের শিকার হয়েছেন।

চাষনী পীর (রহ.) মাজার এলাকা ও ৬নং ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে এমনটা জানা গেছে। গত ৫ থেকে ৬ মাসে বানরের এমন আক্রমনের কারন সম্পর্কে স্থানীয়রা বলছেন, মাজার এলাকা ও আশপাশের এলাকায় বানরের সংখ্যা বেড়েছে বেশ কয়েকগুন। মাজারের নির্দিষ্ট এলাকায় বানরের খাবারের ব্যবস্থা থাকায় অন্যান্য এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক বানর এই এলাকায় জড়ো হয়।

বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন কলা ও অন্যান্য খাবার নিয়ে এলেও সপ্তাহের অন্য চারদিন খাবার কমে যায়। খাবার সংকটের কারনে তখন বানর বাসা-বাড়িতে দল বেধে ছুটে যায়। বংশ বিস্তারের ফলে বানরের অবস্থান ও চলাচলের এলাকা সীমানাও বেড়েছে। যোগাযোগ করা হলে চাষনীপীর মাজার ওয়াকফ এস্টেটের মোতাওয়াল্লী আব্দুর রব রউজ বানরের এই আক্রমনের বিষয় সম্পর্কে বলেন, সংখ্যা বেড়েছে ঠিক।

খাবার সংকটও হয়ে থাকতে পারে। তিনি মাজারের পাশের এলাকায় মাজারের নিজস্ব জমিতে বন কেটে জায়গা দখল করে বাড়ি তৈরি করা হচ্ছে এমন অভিযোগ করে বলেন, শুধু মাজারের বানর নয় অন্যান্য এলাকার বানরও এই এলাকায় এসে যাওয়ায় সমস্যা হচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই সমস্যা সমাধানে কিছু বানরকে অন্যত্র স্থানান্তর করার বিষয়ে সুদৃষ্টি দেয়ার আহবান জানান।

সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, গত কয়েক বছরে বানরের চলাচলের সীমানা বেড়েছে কয়েকগুন। ৬নং ওয়ার্ডের গোয়াইটুলা, বাদামবাগিচা, হাউজিং এস্টেট, বড়বাজার, চৌকিদেখি, মজুমদারী, কোনাপাড়া, পীর মহল্লা, জালালাবাদ আবাসিক এলাকা, লন্ডনি রোড, শিবগঞ্জ সোনারপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বানরের উপদ্রব সবচেয়ে বেশি। সিটি কর্পোরেশনের ৬নং ওয়ার্ডের এসব এলাকার বিপুল সংখ্যক মানুষ বানর আতঙ্ক ও আক্রমনের শিকার হলেও সংশ্লিষ্ট বন বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের লোকজন এখানে নির্বিকার।

এলাকার সচেতন নাগরিকরা মনে করছেন এসব বানর অন্যত্র স্থানান্তর করলে কমে যেতে পারে বানরের উৎপাত। একই কথা বলছিলেন ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ। সূত্র জানায়, গত রোববার সকালে সিলেটের শাহী ঈদগাহ’র হাজারীবাগ এলাকায় বানরের আক্রমণের শিকার হয়েছে ইয়াসীন মিয়া নামে ৮ বৎসরের শিশু। গত রোববার চাষনীপীর (রহ) মাজারের পাশের গোয়াইটুলার হালিমা নামের ৬০ বছর বয়স্ক এক মহিলা আক্রমনের শিকার হন।

এর এক সপ্তাহ আগে ওই এলাকায় ছাত্র, মহিলাসহ তিনজন একদল বানরের আক্রমনে পড়েন। আক্রমনের শিকার হালিমা জানান, আমি বাসার গেইট বন্ধ করতে গেলে ৫/৭টি বানর আমার উপর হামলে পড়ে। তার শরীরে ৩/৪ টি স্থানে কামড় দিয়েছে বলে তিনি জানান। অন্যরা জানিয়েছেন বানরের কামড় ও নখের আঘাতে মারাত্মক অসুস্থ হয়েছেন। বানরের আক্রমনে জটিল রোগ থেকে রক্ষা পেতে ৫শ টাকা মূল্যের ৫টি টিকা দিতে হয়। আক্রমনের শিকার দরিদ্র পরিবারের অনেকেই এই টিকাও দিতে পারছেন না।

এমন অবস্থার বর্ননা দিয়ে কাউন্সিলর রেজওয়ান জানান, শিশু ইয়াসীন মিয়ার বাবা একজন রিকসা চালক। টিকা দেয়ার টাকা সংকুলান করতে না পেরে কাউন্সিলরের দ্বারস্থ হলে তিনি সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, স্বাভাবিক জীবন যাপনে বানর আতঙ্ক দিন দিন বাড়তে থাকায় গত একমাসে চাষনীপীর মসজিদ কমিটি ও অন্যান্য এলাকায় মিটিং করে বানরের অক্রমন থেকে রক্ষার পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।

মানববন্ধন করেছেন ওই এলাকার শত শত সাধারণ জনতা। ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. রেজওয়ান আহমদ জানিয়েছেন এই ব্যাপারে তিনি সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে বন বিভাগের সংশ্লিষ্টদের কাছে অভিযোগ করেছেন। ২/১ দিনের মধ্যে এলাকার লোকজনকে সাথে জেলা প্রশাসক ও বন বিভাগের কাছে স্মারকলিপি দেবেন।

স্থানীয় বাসিন্দা এডভোকেট সোহেল আহমদ জানান, বানর আতংক এই এলাকার মানুষের কাছে বড় আতঙ্কের বিষয়। বাসায় রাখা খাবার নিয়ে যাওয়াসহ শিশুদের উপর প্রায়ই আক্রমন করছে বানরের দল। এমনটা জানিয়ে তিনি প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কাছে এই ব্যাপারে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ করেন। সুত্র:- সুরমা নিউজ

সিলেটের সংবাদ ডটকম: হবিগঞ্জের মাধবপুরের শ্বশুর হত্যা মামলায় জামাতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) ভোর রাতে পুলিশ শ্রীমঙ্গল উপজেলার সীমান্তবর্তী একটি গ্রাম থেকে কামাল মিয়া হত্যা মামলার প্রধান আসামী জামাতা সাজু মিয়াকে গ্রেপ্তার করে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এসএম রাজু আহমেদ জানান, ওইদিন ভোর রাতে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম পলাশের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভারতীয় সীমান্তঘেষা দুর্গম এলাকা বেলতলী গ্রাম থেকে কামাল মিয়ার মেয়ের জামাতা শায়েস্তাগঞ্জ থানার সুরাবই গ্রামের মস্তু মিয়ার ছেলে সাজু মিয়াকে গ্রেপ্তার করে।

থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম পলাশ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বুধবার রাত থেকে সাজু মিয়াকে গ্রেপ্তার করতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হয়। সে দ্রুত স্থান পরিবর্তন করার ফলে গ্রেপ্তার করা সহজ ছিল না। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সাজু মিয়া তার শ্বশুর কামাল মিয়া হত্যা মামলার প্রধান আসামী। উপজেলার রতনপুর গ্রামের কামাল মিয়াকে হত্যার ঘটনায় তার ভাই দুলাল মিয়া বাদি হয়ে জামাতা সাজু মিয়াকে প্রধান আসামী করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৭-৮ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: প্রথম বাজেটেই চিকিৎসা ও পরিবেশের ওপর বরাদ্দ কমিয়ে প্রতিরক্ষায় বরাদ্দ বাড়াচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে সামরিক বাজেট বৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউজের কর্মকর্তারা বলছেন, ট্রাম্প মার্কিন সামরিক সংস্থা, পেন্টাগনের বাজেট ৫ হাজার চারশ কোটি ডলার বাড়াতে চাইছেন। যা পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় ১০ শতাংশ বেশি। অন্যান্য বেশ কিছু খাত থেকে অর্থ ছাটাই করে সামরিক খাতে এই অর্থ ব্যয় করা হবে।

যেসব খাত থেকে বাজেট ছাটাই করে সামরিক খাতে দেয়া হবে তার মধ্যে রয়েছে বৈদেশিক সাহায্য এবং পরিবেশ রক্ষা এবং চিকিৎসা খাত। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মার্কিন কংগ্রেসকে বিভিন্ন খাত থেকে বরাদ্দ কমিয়ে প্রতিরক্ষা খাত, মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণ এবং দেশ থেকে শরণার্থীদের তাড়াতে বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন। তবে মধ্যপন্থী রিপাবলিকানরা ট্রাম্পের এই প্রস্তাবের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

হোয়াইট হাউসের বাজেট পরিচালক জানিয়েছেন, বাজেটের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করতে চান ট্রাম্প। তিনি আরো বলেন, প্রেসিডেন্ট প্রতিরক্ষা, সীমান্তে প্রতিরক্ষা নিশ্চিত এবং আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে আরো বেশি অর্থ খরচ করতে চান। তিনি প্রতিরক্ষা খাতে আরো ৫ হাজার চারশ কোটি ডলার বরাদ্দ বাড়াতে চাইছেন। 

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কার্যালয়ে ‘চিঠি বোমা’ বিস্ফোরণে এক কর্মচারী আহত হয়েছেন। স্থানীয় পুলিশ বলছে, ওই কর্মচারী চিঠির খামটি খোলার সময় বিস্ফোরণ ঘটেছে।

আহত ওই কর্মচারীর হাত ও মুখে জখম হয়েছে। বিস্ফোরণের পর আইএমএফের ওই কার্যালয় থেকে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

এর আগে বুধবার পৃথক এক ঘটনায় জার্মানির অর্থ-মন্ত্রণালয় বার্লিনে একটি পার্সেল বোমা নিষ্ক্রিয় করে।

দেশটির অর্থমন্ত্রী ওলফগ্যাং চ্যাবলের কাছে ওই পার্সেল বোমা পাঠানো হয়েছিল। গ্রিসের বামপন্থী একটি গোষ্ঠী বলছে, তারা ওই পার্সেল জার্মানির অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছিল। সূত্র : বিবিসি।

0 2

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ এবং সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন। ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আজ ১৬ মার্চ তিনি এক বাণীতে এ আহবান জানান।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৭ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এ মহান নেতার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। দিবসটি উপলক্ষে তিনি বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল শিশু-কিশোরকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

আবদুল হামিদ বলেন, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের রূপকার বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ক্ষণজন্মা এই মহাপুরুষ শৈশব থেকেই ছিলেন অত্যন্ত হৃদয়বান ও মানবদরদি।

কিন্তু অধিকার আদায়ে ছিলেন আপোসহীন। স্কুল জীবন থেকেই তার মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলি পরিলক্ষিত হয়। চল্লিশের দশকে এই তরুণ ছাত্রনেতা হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী ও শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের সংস্পর্শে এসে সক্রিয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। তিনি ছিলেন বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা এবং বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রবক্তা।

’৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ’৫৪ এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ’৫৮ এর সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন, ’৬৬ এর ৬-দফা, ’৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, ’৭০ এর নির্বাচনসহ বাঙালির মুক্তি ও অধিকার আদায়ে পরিচালিত প্রতিটি গণতান্ত্রিক ও স্বাধিকার আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব দেন। এজন্য তাকে বহুবার কারাবরণ করতে হয়েছে; সহ্য করতে হয়েছে অমানুষিক নির্যাতন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাঙালির অধিকারের প্রশ্নে তিনি কখনো আপোস করেননি। নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। তার আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের আপামর জনগণ মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জন করে বহু কাক্সিক্ষত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। তার অসামান্য অবদানের জন্য আজ দেশের মানুষের কাছে বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু এক ও অভিন্ন সত্তায় পরিণত হয়েছে।

তিনি নিজগুণে ও কর্মে সমাজ, দেশ ও সমকালীন বিশ্বে চির ভাস্বর হয়ে আছেন। তিনি কেবল বাঙালির নন, বিশ্বে নিপীড়িত-শোষিত মানুষের স্বাধীনতার প্রতীক, মুক্তির দূত। তিনি বলেন, স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সবসময় সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখতেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশের নতুন প্রজন্মকে সোনার মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

শৈশব থেকেই তাদের মধ্যে চারিত্রিক গুণাবলীর উন্মেষ ঘটাতে হবে। জ্ঞান-গরিমা, শিক্ষা-দীক্ষা, সততা, দেশপ্রেম ও নিষ্ঠাবোধ জাগ্রত করার মাধ্যমে তাদের আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তারা যাতে নিজেদের গড়ার পাশাপাশি দেশ ও মানুষকে ভালোবাসতে শেখে এবং দেশের কল্যাণে কাজ করতে পারে সেভাবেই তাদেরকে গড়ে তুলতে হবে।

আবদুল হামিদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালনের উদ্যোগকে আমি সাধুবাদ জানাই। কারণ এ দিবসটি উদ্যাপনের মধ্যদিয়ে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ সম্পর্কে জানতে পারবে এবং দেশপ্রেমের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে আগামীতে জাতিগঠনে অবদান রাখতে সক্ষম হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালির চিরন্তন প্রেরণার উৎস। তার কর্ম ও আদর্শ জাতির মাঝে বেঁচে থাকবে চিরকাল। তিনি জাতির পিতার ৯৮তম জন্মদিবসে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

শফিকুল হক চৌধুরী, (বানিয়াচং): হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলায় নেশাগ্রস্থ হয়ে পরিবারের উপর নির্যাতন করায় দোয়াখানি গ্রামের হেকিম উল্ল্যার পুত্র আলী রহমান (৫২)কে ৪ মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত।

সহকারী ভূমি কমিশনার (ভূমি) নূর এ আলম তাকে ৪ মাসের সাজা প্রদান করেন। জানা যায়, আলী রহমান মদ, গাজাঁ খেয়ে প্রায়ই তার স্ত্রী পুত্রের উপর নির্যাতন করে।

বিষয়টি ওই দপ্তরে তার স্ত্রী পেয়ারা বেগম অবগত করলে গতকাল সকাল ১১টার সময় ঐ মাতাল কে পুলিশ ধরে ভূমি অফিস নিয়ে আসলে ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রিট নুর এ আলম তাকে ৪ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন।

গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি: গোলাপগঞ্জের ঝুমি রাণী নাথ বাংলা রচনা প্রতিযোগাতীয় জাতীয় পর্যায়ে স্বর্ণ লাভ করেছে।

শিক্ষামন্ত্রণালয় আয়োজিত জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৭ উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগীতায় ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী ঝুমি রাণী নাথ করে ১ম স্থান অধিকারের মাধ্যমে স্বর্ণ পদক লাভ করে।

তার এ কৃতিত্বপূর্ণ অর্জনের জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আমির উদ্দিন সাদেক ও প্রিন্সিপাল রেজাউল আমিন অভিনন্দন জানিয়েছেন।

জিয়াউল হক, কুলাউড়া,(মৌলভীবাজার): ভুমিকম্পে ভবন ধ্বস আতংকে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে পাঠ গ্রহণে আসার আগ্রহ দিনে দিনে হারিয়ে ফেলছে। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার উত্তর চুনঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অবিভাবকরাও তাদের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ভবন ধ্বসে হতাহতের আশংকায় ভুগছেন বছরের পর বছর ধরে।

ঝড়ে পড়ার সংখ্যা বৃদ্ধিও পাশাপাশি বিদ্যালয়ের ২ শতাধিক শিক্ষার্থীর নিয়মিত পাঠ গ্রহণে ব্যঘাত সৃষ্টি হলেও বিষয়টি নজরে আসেনি উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর ও শিক্ষা অফিসের দায়িত্বশীলদের।

সরজমিনে স্কুলে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার কাদিপুরে অবস্থিত ৩০ শতাংশ জায়গার উপর ১৯৮০ সালে উওর চুনঘর রেজিষ্ট্রার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্টিত হয়। পরবর্তীতে ২০১৩ সালে বিদ্যালয়টি সরকারি করণ হয়। ইতিপূর্বে ২০১৬ ও ২০১৭ সালের ভুমিকম্পে ওই বিদ্যালয়ের প্রতিটি কক্ষের দেয়াল ও ছাদে ফাটল ধরে অধিকাংশ স্থান ধ্বসে পড়েছে।

২০১৬ সালে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১৯৯ জন। ২০১৭ সালে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দেখা গেছে ১৫০ জন। বিদ্যালয়ে মঞ্জুরী কৃত শিক্ষকের সংখ্যা প্রধান শিক্ষক সহ ৪ জন। বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী শামছ ও তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী রাকিব মিয়া জানায়, আমাদের সহপাঠীদের অনেকেই স্কুলের ছাদ ভেঙ্গে মাথা ফাটনের ভয়ে নিয়মিত ক্লাসেই আসতে চাইনা।

চতৃর্থ শ্রেণীর তায়েফ ও পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী তানজিনাসহ অসংখ্য শিক্ষার্থী তাদের বিদ্যালয়ে গেলে  জানায়, আমরা ভয়ে ভয়ে পাঠ গ্রহণ করি। তারা আরো বলে অন্য স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রতি বছর বেড়ে থাকে আর আমরার স্কুলে বিল্ডিং ভাঙ্গার ভয়ে ছাত্র- ছাত্রীর সংখ্যা কমতেই থাকে। অভিভাবকরা বলেন, স্কুল ভবনের ফাটল আর শ্রেণী কক্ষ সংকটের কারনে আমরা অবিভাবকরা প্রতিদিন দু:শ্চিন্তা মাথায় নিয়ে শিশুদের স্কুলে পাঠাই।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জমি দাতা  বীরেন্দ্র দাস বলেন, এখন বর্তমানে কক্ষ ও গাছতলায় ক্লাস হচ্ছে। ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্লাস করতে চায় না। বৃষ্টি ঝড় আসলেই আমরা স্কুল ছুটি দিয়ে দেই। গত ২ বছর ধরেই বিদ্যালয়ের এ দুরবস্থার কথা লিখিত ভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও চেয়ারম্যান ৬নং কাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদকে জানানো হয়েছে কিন্তু তারা নতুন ভবন নির্মাণ কিংবা এ ভবনটি সংস্কারে জন্য কোন রকম উদ্যোগ নিতে আগ্রহী না।

এলাকাবাসীর গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বলেন, শিক্ষক শিক্ষার্থী, অভিভাবক সবাই ভবন ধ্বসে হতাহতের আতংকে ভুগছেন, বিষয়টি লিখিত ভাবে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে অবহিত করেছেন, কিন্তু কোন ব্যবস্থাই নেয়ার লক্ষণ দেখছি না। উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার মাসুদুর রহমান বলেন, আমি নতুন আসছি কুলাউড়া উপজেলায়। বিদ্যালয়ে এখনও যাইনি। সরেজমিনে আমি স্কুলটি পরিদর্শন করে পদক্ষেপ নিব।

0 448
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 1469
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তির। তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না...