সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘তাঁতশিল্প অত্যন্ত সম্ভাবনাময় শিল্প। সবাই মিলে নজর দিলে এ শিল্পের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।

একই সঙ্গে এ শিল্পের মাধ্যমে দেশের সুনামও বয়ে আনা সম্ভব। রোববার দুপুরে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে তাঁতি লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তাঁতি লীগের আহ্বায়ক এনাজুর রহমান চৌধুরী প্রথম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সরকারে আসার আগে তাঁতশিল্পে অনেক সমস্যা ছিল। ১৯৯৬ সালে সরকারে আসার পর আমরাই প্রথম তাঁতশিল্পের উন্নয়নে ঋণ দেয়া শুরু করি। শুধু তাই নয়, তাঁতিদের প্রশিক্ষণ দেয়া শুরু করি। কারণ আমাদের পাশের দেশ ভারতের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হবে।

এ কারণে নরসিংদী, সিরাজগঞ্জ, সিলেট, রংপুরসহ তাঁত অধ্যুষিত এলাকায় প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট গড়ে তুলি। এছাড়া তাঁতশিল্পের উন্নয়নে একটি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। আওয়ামী লীগ সভাপতি এ সময় দেশের তাঁতি সমাজসহ দলের সকল সহযোগী, অঙ্গ ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের সফলতা জনগণের সামনে তুলে ধরার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘যারা নেতা নির্বাচিত হবেন তারা শুধু নেতা হয়ে বসে থাকবেন না, তাঁতি সম্প্রদয়ের উন্নয়নে কাজ করবেন। তাঁতশিল্পে কোথায় কী সমস্যা আছে তা খুঁজে বের করবেন। এ শিল্পকে সমৃদ্ধ করতে আমরা সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। তিনি বলেন, জামদানি এখন আমাদের নিজস্ব প্যাটেন্ট। এটা নিয়েও আমরা নানা পরিকল্পনা করছি।

এটি আরও উন্নত করা এবং বিশ্বব্যাপী এর প্রসার ঘটানোর জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের একসময় ভাত, কাপড়, চিকিৎসা ও আশ্রয়ের নিশ্চয়তা ছিল না। এখন ইনশাল্লাহ সব কিছুরই ব্যবস্থা হয়েছে। খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ।

এখন দেশে কাপড়েরও অভাব নেই। মানুষ আর জীর্ণশীর্ণ কাপড় পড়ে না। গ্রামেও আজকাল মানুষ ভালো কাপড় পড়ে। এটা আমাদের তাঁতশিল্পের অবদান। তিনি আরও বলেন, দেশের মানুষের চিকিৎসার ব্যবস্থাও আমরা করছি। যার ঘর নেই তাকে ঘর করে দিচ্ছি। সবমিলে দেশের মানুষ ভালো আছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

NO COMMENTS

Leave a Reply