Daily Archives: Mar 20, 2017

সিলেটের সংবাদ ডটকম: তাহিরপুর থানার বাদাঘাট পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা সোমবার বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে অভিযান চালিয়ে  ৩শ’ ১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো তাহিরপুর উপজেলার ৫নং বাদাঘাট ইউনিয়নের বাদাঘাট গ্রামের হাজী আব্দুল মোতালিবের ছেলে এলাকার চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী আব্দুল কাহার (২৫), কামড়াবন্দ গ্রামের মৃত বিল্লাল মিয়ার ছেলে বাদল মিয়া (৩২) এসময় তাদের সঙ্গে থাকা অপর এক সহযোগী পালিয়ে যায়।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, সোমবার বিকেলে তাহিরপুর থানার বাদাঘাট পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই অজয় চন্দ্র রায়ের নেতৃত্বে ও কনস্টেবল সাজু আহমদ, আরিফ আহমদের সহযোগীতায় সুনামগঞ্জ থেকে ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে আসার সময় উপজেলার পাঠানপাড়া খেয়াঘাট থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

এসময় তাদের দেহ তল্লাশী করে কোমরে রাখা দুইটি নীল রঙের পেকেট থেকে ৩শ’ ১০ পিস এমসিটামিন যুক্ত ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।  তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ নন্দন কান্তি ধর দুইশত পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুই যুবককে গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন- অজ্ঞাতনামা একজনকে পলাতক ও গ্রেপ্তারকৃত দুইজনকে আসামী করে এসআই অজয় চন্দ্র রায় বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

0 104

সিলেটের সংবাদ ডটকম: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্নয়ক মাহবুব উল আলম হানিফ সিলেট বিভাগীয় তৃণমূল প্রতিনিধি সমাবেশস্থল সিলেটের ঐতিহাসিক আলিয়া মাঠ পরিদর্শন করেছেন।

সোমবার দুপুরে তিনি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নেরও জবাব দেন। সমাবেশের উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন- তৃণমূল নেতাকর্মীদের সমস্যা জানা ও তা সমাধান করে কেন্দ্রের আরও কাছাকাছি নিয়ে আসাই হচ্ছে সমাবেশের মূল উদ্দেশ্য।

সরকারের নানা উন্নয়ন তৎপরতাও আমরা তৃণমূলের কাছে তুলে ধরব। কেন্দ্র ও তৃণমূলের মধ্যে যদি কোন দুর্বলতা পাওয়া যায়, তা কাটিয়ে উঠতেও সাহায্য করবে এ সমাবেশ। সাম্প্রতিক জঙ্গিবাদ প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, বেগম জিয়ার আমলেই দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান। ৭৫ পরবর্তী সরকারগুলোই জঙ্গিবাদীদেও লালন পালন করেছে। বেগম জিয়াও করেছেন।

মুফতি হান্নানের সঙ্গে তারেক জিয়ার  বারবার বৈঠকের প্রমাণ ও আছে। এখনও সরাকারকে বিব্রত করার জন্য জঙ্গি তৎপরতা চালানো হচ্ছে। তবে এ ব্যপারে সরকার অত্যান্ত কঠোর। আমরা কঠোরভাবেই দেশকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত করতে কাজ করছি। পদ্মা সেতু ‌‌দুর্নীতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন আসলে পরিকল্পিতভাবে একটি মহল সরকারকে বিব্রত করতে এ অভিযোগ উত্তোলন করেছিল।

আমরা আগেই বলেছি, যেখানে অর্থায়নই হয়নি সেখানে ‌‌দুর্নীতি হওয়ার কথা নয়। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ‌‌দুর্নীতি মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিনি দুর্নীতি করেছেন। আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। তার বিরুদ্ধে আদালত যে শাস্তি ঘোষণা করবে তা অবশ্যই মানতে হবে। তিনি ‌‌দুর্নীতি করেছেন বলেই মামলাটি নিয়ে টালবাহানায় কালক্ষেপন করছেন।

এসময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, সিলেটের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা আহমদ হোসেন, এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরীসহ সিলেটের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: কানাইঘাট থানা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৫ মাদকসেবীকে গ্রেফতার করা হয়।

জানা যায় গতকাল রবিবার গভীর রাতে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদের তত্বাবাধনে এসআই জিয়াউর রাহমানের নেতৃত্বে এসআই খোরশেদ আলম, এএসআই আব্দুল মান্নান, সোলেমান কবীর সহ একদল পুলিশ বীরদল ভাড়ারীফৌদ এলাকায় এক বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ৫ মাদকসেবীকে মাতাল অবস্থায় গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতার কৃতরা হল, উপজেলার বীরদল ভাড়ারীফৌদ গ্রামের আব্দুন নুরের পুত্র মোঃ আম্বিয়া, একই গ্রামের মৃত মইন উদ্দিনের পুত্র হেলাল আহমদ, আব্দুশ শুকুরের পুত্র আলঙ্গীর, বীরদল লক্ষীপুর গ্রামের নুরুল হকের পুত্র এনাম উদ্দিন, বীরদল কচুপাড়া গ্রামের মৃত শাহাব উদ্দিনের পুত্র আব্দুল আহাদ।

গ্রেফতার কৃতদের ডাক্তারী পরিক্ষা শেষে গতকাল সোমবার মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে নিয়মিত মামলা রুজু করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। থানার মামলা নং ১৭ তাং ২০-৩-১৭।

এব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদ বলেন, কানাইঘাটে মাদক ব্যবসায়ী,মাদকসেবী নির্মূলে পুলেশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ও মুন্সিবাজার ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে গলাফুলা, তড়কাসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে  ২০টি গবাদি পশু মারা গেছে। মারা যাওয়া গবাদী পশুর মাঝে ১২টি মহিষ,  ৫টি গরু ও ৩টি ছাগল রয়েছে।

গত এক সপ্তাহে শুধু পতনঊষার ইউনিয়নের মনসুরপুর, শ্রীসূর্য্য ও মিনারই গ্রামে ১২টি মহিষ রোগাক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলায় মাত্র তিনজন মাঠ সহকারী কর্মকর্তা দিয়ে এক পৌরসভা ও নয়টি ইউনিয়নে নয়টি হাঁস মুরগী ও গবাদি পশুর চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

হাঁস মুরগী ও গবাদি পশুর সংক্রামক রোগ দেখা দিলে আগাম রোগ প্রতিরোধ মূলক প্রতিষেধক  প্রদানে বিঘœ ঘটছে। মারা যাওয়া প্রাণির মৃতদেহ শেয়াল কুকুরেও খাচ্ছে না। উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে গরু-মহিষ ও ছাগলের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ফলে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন গরু, মহিষ চাষীরা।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ বিভাগের জনবল সংকটের কারণে সঠিকভাবে প্রতিষেধক প্রয়োগ করা যাচ্ছে না। সোমবার (২০ মার্চ) উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে পতনঊষারে ক্যাম্পিং এর মাধ্যমে গবাদি পশুর প্রতিষেধ টিকা প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত দশ দিনে গলাফুলা, তড়কাসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীসূর্য্য গ্রামের আনোয়ার খান ও ময়ুব আলীর ২টি মহিষ, শ্রীমতপুর গ্রামের তৈয়ব উল্লার ২টি মহিষ, মেহের বক্সের ২টি মহিষ, মনসুরপুর গ্রামের মধু মিয়ার ১টি মহিষ, কুতুব আলীর ১টি মহিষ, মিনারাই গ্রামের মুক্তার খাঁ এর ১টি মহিষ, মুন্সীবাজার ইউনিয়নের রূপসপুর গ্রামের মাসুক মাস্টার ও আব্দুল আলীর ২টি মহিষ গলাফুলা রোগে মারা গেছে।

উল্লেখিত গ্রামের লিয়াকত আলী, জহির আলী, মিনার মিয়া, মাহমুদ আলী, আশিক মিয়ার একটি করে গরু মারা গেছে। মারা যাওয়া গবাদি পশু দূরে মাঠে পড়তে থাকতেও দেখা যায়। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানান, মারা যাওয়া গবাদি পশুকে শিয়াল কুকুরও খাচ্ছে না। পতনঊষার ইউনিয়নের ধোপাটিলা গ্রামের ছমরু মিয়ার আক্রান্ত ৯টি ছাগলের মধ্যে তিনটি ছাগল মারা গেছে।

ছাগলের পেট ফুলা, পেট ব্যাথা, সর্দি, জ্বরসহ নানা রোগের প্রাদুর্ভাব রয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় গবাদি পশুর মধ্যেও রোগব্যাধী দেখা দিয়েছে বলে কৃষকরা জানান। মড়কে গবাদি পশু মৃত্যুর খবর পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের পক্ষে সোমবার (২০ মার্চ) পতনঊষার ইউনিয়নে ক্যাম্পিং এর মাধ্যমে প্রায় তিন শতাধিক গবাদি পশুর মধ্যে প্রতিষেধক টিকা প্রদান করেছে।

মাহমুদ আলী, ফটিকুল ইসলাম সহ এলাকাবাসী জানান, পশু রোগব্যাধী দেখা দিলে প্রাণি সম্পদ বিভাগে যোগাযোগ করলেও লোকবল সংকট দেখিয়ে প্রথমে তারা কেউ গুরুত্ব দেয় না। পতনঊষার এলাকার সাংবাদিক ও সমাজসেবক ডা: আব্দুল হান্নান চিনু বলেন, এক সপ্তাহে পতনঊষারের তিনটি গ্রামে ১৭টি মহিষ রোগাক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার বিষয়টি উদ্বেগজনক।

পতনঊষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার তওফিক আহমদ বাবু বলেন, এতোসব গবাদি পশুর মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা ও মৌলভীবাজার জেলা প্রাণি সম্পদ বিভাগে যোগাযোগ করার পর এখন তারা সচেতনতামূলক ক্যাম্পিং শুরু করেছে। ততক্ষণে কৃষকরা বিরাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

আসলে একজন মাঠ সহকারী কর্মকর্তা একা তিনটি ইউনিয়নে সঠিকভাবে হাঁস মুরগী ও গবাদি পশুর চিকিৎসা সেবা দিতে পারছে না উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ। কমলগঞ্জ উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগরে ভ্যাটেনারী সার্জন মো: হাবিবুর রহমান গলাফুলা, তড়কাসহ বিভিন্ন রোগে দুটি ইউনিয়নে এসব গবাদি পশু মারা যাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আতঙ্কিত হওয়ার তেমন কিছু নয়।

এখন প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হচ্ছে।  উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: আব্দুল হাই বলেন, হাওরে মহিষ নিয়ে যাওয়ার পর গলাফুলা রোগে আক্রান্ত হয়ে এসব প্রাণি মারা গেছে। সোমবার পতনঊষারে জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে সচেতনতা মূলক ক্যাম্পিং শুরু করে প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন স্থানে গবাধি পশুর প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হবে।

 

সিলেটের সংবাদ ডটকম: দুর্নীতি মামলায় সিলেট বিআরটিএ’র তিন কর্মকর্তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

তারা হচ্ছেন- বিআরটিএ সিলেট অফিসের সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী এনায়েত হোসেন মন্টু, পরিদর্শক কেশব দাস ও উচ্চমান সহকারী আব্দুর রউফ।

দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা মামলায় সোমবার তারা আদালতে আত্মসমর্পন করলে সিলেটের চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুজ্জামান হিরো জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সরকার যখন জঙ্গিদের বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে ঠিক তখনই বিএনপি তাদের রক্ষায় বিএনপি মায়াকান্না করছে বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, জঙ্গিবাদের পক্ষে মায়াকান্নার মাধ্যমে প্রমাণ হয় বিএনপি-জামায়াত জোট জঙ্গিদের আশ্রয়দাতা।

তবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার তাদের কোন ভাবেই ছাড় দেবেনা। ঢাকার আশকোনায় ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণে এক যুবক নিহতের পর বিএনপি সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করে আসছিল ‘জঙ্গিবাদ ব্যবহার করে সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায়।

বিএনপির এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে হানিফ সোমবার সিলেট নগরীর রেজিস্ট্রারি মাঠে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিকলীগ সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার উদ্যোগে আয়োজিত শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আত্মনির্ভরশীল জাতিতে পরিণত হয়েছে।

দারিদ্রতা দূরিকরণের পাশাপাশি স্বাস্থ্য, শিক্ষা, যোগাযোগসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে। এরফলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশ উন্নিত হয়েছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। বিএনপি দেশের উন্নয়ন চায় না মন্তব্য করে মাহবুবুল আল হানিফ আরো বলেন, দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করতে বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি-জামায়াত।

তারা রাজনৈতিক আন্দোলনের নামে জ্বালাও পোড়াও করে দেশকে ধ্বংসাত্বক পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার তাদের সকল ষড়যন্ত্র নসাৎ করে দিয়েছে। তিনি দেশের স্বার্থে ও উন্নয়নের স্বার্থে এ চক্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি, সিলেট জেলার সভাপতি ও মহানগর শাখার আহবায়ক প্রকৌশলী এজাজুল হক এজাজের সভাপতিত্বে এবং জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম রশিদ চৌধুরী, মহানগর শ্রমিকলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. জাকারিয়া আহমদ টিপু ও নাজমুল আলম রোমেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, শ্রম ও জনশক্তি সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, সদস্য ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, কার্য্যকরি সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম। শ্রমিক সভায় সিলেট জেলা ও মহানগরের বিভিন্ন শাখার নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে উপস্থিত হন।

0 5

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: আগামীকাল ২১ মার্চ (মঙ্গলবার) মাগুরা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান জেলা স্টেডিয়াম উদ্বোধনসহ আরও কয়েকটি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করবেন।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. শ্রী বীরেন শিকদার সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামন জেলা স্টেডিয়াম নতুন করে নির্মাণ করা হয়েছে। ১০ হাজার দর্শনার্থী একসঙ্গে এই স্টেডিয়ামে বসে খেলা উপভোগ করতে পারবেন।

এ ছাড়া স্টেডিয়ামের পাশে বিউটিফিকেশন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে, যার ব্যয় হবে প্রায় ৮ কোটি টাকা। তিনি বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামানের নামে মাগুরায় একটি স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই স্টেডিয়াম উদ্বোধন করবেন। একই সঙ্গে সেখানে একটি জনসভা করবেন।

0 7

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিমানের রাডার ক্রয়সংক্রান্ত দর্নীতি মামলায় নতুন করে কয়েকজনের সাক্ষ্য গ্রহণে দুদকের করা রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

২০ মার্চ সোমবার এ আদেশ দেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ। বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও মির্জা হোসাইন হায়দার। আদালতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।

এরশাদের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম। খুরশিদ আলম খান জানান, রাডারক্রয় সংক্রান্ত মামলাটি বিচারিক আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আপিল বিভাগের এ আদেশের ফলে এ মামলায় নুতন করে সাক্ষী নেওয়ার আর কোনো সুযোগ থাকল না।

উল্লেখ্য, গত ৮ জানুয়ারি রাডার ক্রয় সংক্রান্ত মামলায় নতুন সাক্ষ্য গ্রহণে দুদকের আবেদন খারিজ করে আপিল বিভাগ। পরে এর রায়টি পুনর্বিবেচনার আবেদন করে দুদক। গত ২৪ নভেম্বর এরশাদের রাডার ক্রয় সক্রান্ত দুর্নীতির মামলায় বাকি সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণের অনুমতি ও ৩১ মার্চের মধ্যে বিচার প্রক্রিয়া শেষ করতে নির্দেশ দেন হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের বেঞ্চ।

পরে এই আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেন এ মামলার আসামি বিমান বাহিনীর প্রাক্তন প্রধান সুলতান মাহমুদ। আজ আবেদন খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ। মামলায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাড়াও অন্য আসামিরা হলেন- বিমানবাহিনীর সাবেক সহকারী প্রধান মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সুলতান মাহমুদ ও ইউনাইটেড ট্রেডার্সের পরিচালক এ কে এম মুসা।

মামলার শুরু থেকে মুসা পলাতক রয়েছেন। ১৯৯২ সালের ৪ মে তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরো মামলাটি দায়ের করে। ১৯৯৪ সালের ২৭ অক্টোবর আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়। ১৯৯৫ সালের ১২ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। অভিযোগে বলা হয়, বিমানবাহিনীর তৎকালীন সহকারী প্রধান মমতাজ উদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কাছে বাহিনীর জন্য যুগোপযোগী রাডার ক্রয়ের আবেদন করেন।

রাষ্ট্রপতির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় ফ্রান্সের থমসন সিএসএফ কোম্পানি নির্মিত অত্যাধুনিক একটি হাইপাওয়ার রাডার ও দুটি লো-লেভেল রাডার ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদিত হয়। তৎকালীন সেনাপ্রধান এরশাদসহ অপর আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে আর্থিক সুবিধাপ্রাপ্ত হয়ে থমসন সিএসএফ কোম্পানির রাডার না কিনে বেশি দামে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্টিং কোম্পানির রাডার কেনেন। এতে সরকারের ৬৪ কোটি ৪ লাখ ৪২ হাজার ৯১৮ টাকা ক্ষতি হয়।

0 11

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার কর্নেল হাট সিডিএল আবাসিক এলাকার দুইটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ।

২০ মার্চ সোমবার বিকেল চারটা থেকে সোয়াত, বোমা নিস্ক্রিয়করণ দলসহ পুলিশের দেড়শ’রও বেশি সংখ্যক সদস্য ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (পশ্চিম) নাজমুল হাসান। তিনি জানান, ‘জঙ্গি আস্তানা’ আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে কর্নেল হাট সিডিএল আবাসিক এলাকার এক নম্বর সড়কে অবিস্থিত একটি বাড়ি ও ইশান মহাজন সড়কে অবস্থিত আরও একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার কুশিয়ারা নদীর ভাঙ্গনে বসতবাড়ি, বনজসম্পদ, চাষাবাদযোগ্য ভূমি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বাজার উপাসনালয় ইত্যাদি বিলীন হয়ে গেছে। তারপরও কুশিয়ারা নদীর ধ্বংসলীলা রোধ কল্পে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি।

নদী ভাঙ্গনে সর্বস্ব হারিয়ে অনেকেই মানবেতর জীবন যাপন করছেন। নদী সভ্যতার প্রতীক হলেও কুশিয়ারা নদী তীরবর্তী এলাকাবাসীর জন্য ধ্বংস ও ভয়ানক অভিশাপের প্রতীকরূপে বিরাজমান।

তীরবর্তী এলাকাগুলোতে শুষ্ক মৌসুমে কুশিয়ারা নদীর নাব্যতা হ্রাস, ঘরবাড়ি, বনজসম্পদ, চাষাবাদযোগ্য ভূমি ও বসতবাড়ি ভাঙ্গন সমস্যা, বন্যার তান্ডবলীলায় ফসলহানি, নদীতে চর জাগা, নৌযান চলাচল বিপর্যস্ত, মৎস্য সম্পদের অভাব, কুশিয়ারার তীর সংরক্ষণে উদাসীনতা ও স্থানীয় জীবনযাত্রার নিুমান সেই ব্রিটিশ শাসন থেকে অব্যাহত আছে।

কুশিয়ারা নদীর হিংস্র থাবায় ক্ষতিগ্রস্থ ও গৃহহীন হয়েছেন বারবার উত্তর নবীগঞ্জের দীঘলবাক, আহমদপুর, কুমারকাদা, গালিমপুর, মাধবপুর, মথুরাপুর, জগন্নাথপুর উপজেলার অটঘর, নোয়াগাঁও, রানীগঞ্জ, বানিয়াচং উপজেলার এক বিরাট জনগোষ্ঠী ।

জানা যায়, দেশের বিভিন্ন এলাকায় নদী ভাঙ্গনের তীব্রতা রোধ কল্পে সামান্যতম হলেও সরকারী নানা পদক্ষেপ, ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসন ও সাহায্য সহযোগিতা করা হলেও হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউপি’র জনগনকে কোন সরকারী সাহায্য, পুনর্বাসন করা হয়নি, এমনকি যুগ যুগ ধরে চলে আসা এই ভাঙ্গনের তীব্রতা রোধ কল্পে বাস্তব সম্মত পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

যার ফলে বিভিন্ন পেশার লোকজন চাষাবাদযোগ্য জমি, বাসগৃহ, বনজসম্পদ বারবার হারানোর বেদনায় এলাকার বাতাসে দুঃখ ও হতাশার করুণ ধ্বনি শোনা যাচ্ছে। নদী ভাঙ্গনের ফলে মৌলিক অধিকারের নিশ্চয়তা চরমভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। ফলে দীঘলবাক ইউনিয়নে বেকারত্ব, অশিক্ষা, দারিদ্রতা আশংকাজনক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নবীগঞ্জের দীঘলবাক ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর ধ্বংসলীলা বন্ধ কল্পে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও দীঘলবাক উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ আশ্রব আলী পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে অব্যাহত এই ভাঙ্গন রোধের জন্য পদক্ষেপ নিতে আবেদন পত্র পেশ করলে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন শাখা-৫ এর স্মারক পত্র নং- উঃ৫/বিবিধ-০৭/২০০/২০৭ (তারিখ-১৮-০৬-২০০০) মোতাবেক জরুরী ভিত্তিতে চেয়ারম্যান বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (ঢাকা) বরাবরে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিলে তাহা আলোর মুখ দেখেনি।

এলাকাবাসীর আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান প্রকৌশলী পাউবো , তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশল (মৌলভীবাজার)কে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেন যা তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (মৌলভীবাজার) এই ডায়েরী  নং ২১০৫ তারিখ ২৮/০৬/২০০০ ইং এবং নবীগঞ্জের সাবেক ইউএনও বরাবরে দীঘলবাক এলাকার ভাঙ্গন রোধের জন্য আবেদন পত্র পেশ করলে তিনি ০৬/০৭/২০০০ ইং তারিখে কুশিয়ারা নদীর ধ্বংসলীলা ও প্রমত্ত্বতা সরেজমিনে পরিদর্শন শেষে স্মারক নং- উনিও/নদী/গো:/বিবিধ ৬৫/৯৮-২০০০ইং মোতাবেক জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ গ্রহন করতে ডিসি (হবিগঞ্জ) বরাবরে সুপারিশসহ প্রতিবেদন পেশ করেন।

মানবাধিকার কর্মী শাহ মনসুর আলী নোমান কর্তৃক বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড এর সদস্য (পওর) বরাবরে দীঘলবাক এলাকার ভাঙ্গন প্রতিরোধের বিষয়ে আবেদনের প্রেক্ষিতে যাহা সদস্য (পওর) ঢাকা এর ডায়রী নং ৯০২, তারিখ ১৭/০৪/২০০০ মোতাবেক তিনি প্রধান প্রকৌশলীকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেন।

হাজী মতিউর রহমান  বলেন, নবীগঞ্জের ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে কুশিয়ারা নদীর ভাঙ্গন রোধকল্পে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় ইউএনও থেকে শুরু করে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয় পর্যন্ত বিভিন্ন সরকারের সময় দীঘলবাকবাসী স্মারক লিপি, আবেদন পত্র পেশ ও মন্ত্রী, এমপিদের সাথে যোগাযোগ করেও এই এতিহ্যবাহী এলাকাকে রক্ষা করার জন্য বাস্তবমুখী কোন পদক্ষেপ গৃহীত না হওয়া দুঃখজনক।

তিনি এশিয়ার অন্যতম গ্যাসকূপ অধ্যুষিত ঐতিহ্যবাহী দীঘলবাক এলাকাকে প্রমত্তা কুশিয়ারা নদীর কাল থাবা ও ধ্বংসলীলা থেকে জরুরী ভিত্তিতে রক্ষা কল্পে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

তিনি আরো বলেন, দীঘলবাক এলাকায় কুশিয়ারা নদীর প্রমত্ততা রোধকল্পে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় কর্তৃক কোন পদক্ষেপ গ্রহন করলে স্থানীয় জীবন যাত্রার মান ও যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হবে, জনগন রক্ষা পাবে বসতবাড়ি ভাঙ্গনের কবল থেকে, বেকারত্বের অবসান ঘটবে ও সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধিপাবে। তিনি সরজমিনে তদন্ত পূর্বক দীঘলবাক এলাকায় নদী ভাঙ্গন সমস্যার সমাধান কল্পে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ও প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

0 149
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 419
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: সিলেট জেলার সদর উপজেলার ৫ নং টুলটিকর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের পুর্ব শাপলাবগ এলাকায় জাল দলিল বানিয়ে একজনের জায়গা অন্যজনের...