সিলেটের সংবাদ ডটকম: আসন্ন বিয়ানীবাজার পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেতে ১৬ জন প্রার্থী আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন। নির্ধারিত সময়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খানের কাছে মনোনয়ন প্রত্যাশী ১৬ জন আওয়ামীলীগ ও অংগসংগঠনের নেতাকর্মী মনোনয়ন জমা দেন।

এখন নৌকার মাঝি কে হচ্ছেন তা দেখার অপেক্ষায় পৌরবাসী। পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপত্র জমাদানকারীরা হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাছিব মনিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক হারুনুর রশিদ দিপু, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ছালেহ আহমদ বাবুল, সহ-দপ্তর সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রীর এপিএস দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুস শুক্কুর, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি সামছুল হক, সহ-সভাপতি খছরুল হক খছরু, আজিজুস সামাদ শামীম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আব্দুল কুদ্দুছ টিটু, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবুল কাশেম পল্লব, পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লায়ন কয়ছর আহমদ, পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য গৌছ উদ্দিন খান খোকা, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল হোসেন খছরু, কামরুজ্জামান হেলাল ও ময়নুল ইসলাম।

দলীয় প্রার্থী বাছাই উপলক্ষ্যে শনিবার বিকেল ৪টায় পৌর শহরের একটি রেস্টুরেন্টে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাসিব মনিয়ার সভাপতিত্বে ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদের পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল আহাদ কলা, সামছুদ্দিন খান, যুগ্ম সম্পাদক সামছুদ্দিন মাখন, মোস্তাক আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বাবুল, জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক হারুণুর রশীদ দীপু, সহদপ্তর সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রীর এপিএস দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস শুক্কুর, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজি সামছুল হক।

বৈঠকে উপস্থিত সূত্রে জানা যায়, সভায় পৌর নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থীদের জয়ী করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার বিষয়ে আলোকপাত করা হয়। কিন্তু যে ইস্যুতে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় সে ইস্যুতে তেমন কোনো আলোচনা বা অগ্রগতি হয়নি। অর্থাৎ আবেদনকারী দলীয় প্রর্থীদের মধ্য থেকে আলোচনার মাধ্যমে তালিকা ছোট করে আনার বিষয়ে কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তাই এ বিষয়ে কোনো অগ্রগতিও হয়নি।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান বলেন, পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হতে দলীয় ১৬জন প্রার্থী আবেদন জমা দিয়েছেন। আমরা বলেছি, কেউ স্বেচ্ছায় প্রার্থীতা প্রত্যাহার করলে আমাদের জানানোর জন্য। অন্যথায় আমরা ১৬ জনের নামের তালিকা জেলা নেতৃবৃন্দের কাছে প্রেরণ করব। জেলা থেকে দলীয় নিদের্শনা অনুযায়ী কেন্দ্রে প্রেরণ করা হবে। কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড চূড়ান্তভাবে প্রার্থী মনোনয়ন দেবে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

NO COMMENTS

Leave a Reply