Daily Archives: Apr 4, 2017

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ইদলিব প্রদেশে সম্ভাব্য রাসায়নিক হামলায় ১১ শিশুসহ কমপক্ষে ৫৮ জন নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার ইদলিবের খান শেখন শহরে বিষাক্ত গ্যাস হামলায় এ হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলছে, রাসায়নিক হামলায় আরো কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালের দিকে ইদলিবের কেন্দ্রের খান শেখন শহরে ওই বিষাক্ত গ্যাস হামলা হয়েছে।

ইদলিবের স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, গ্যাস হামলায় নিহতের সংখ্যা শতাধিক হতে পারে। এছাড়া আহত হতে পারে আরো ৪০০ মানুষ। সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলছে, গ্যাসের প্রভাব ও দম বন্ধ হয়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া গ্যাস হামলার ভিডিও ছবিতে দেখা যাচ্ছে, শিশু ও প্রাপ্তবয়স্করা নিস্তেজ হয়ে পড়ে আছে।

এদের অনেকেই শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। অনেকের মুখ দিয়ে ফেনা বেরিয়ে আসছে। নিহতদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক; এদের মধ্যে ১১ শিশু রয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক ওই পর্যবেক্ষক সংস্থাটি বলছে, মঙ্গলবার সকালে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত খান শেখনে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী অথবা রুশ বিমান থেকে হামলা চালানো হয়ে থাকতে পারে।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে সিরীয় সেনাবাহিনীর মন্তব্য পাওয়া যায়নি। সিরিয়ার একটি সেনা সূত্র ডেইলি মেইলকে জানিয়েছে, গত সপ্তাহে সিরীয় সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে রাসায়নিক হামলার যে অভিযোগ আনা হয়েছিল তা মিথ্যা বলে দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। সিরীয় সেনাবাহিনী বলছে, তারা অতীতে কখনো রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেনি এবং ভবিষ্যতেও করা হবে না।

তবে ব্রিটিশ এই পর্যবেক্ষক সংস্থা বলছে, তারা হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত শেখনে রাসায়নিক উপাদান পাওয়ার বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হতে পারেননি। এদিকে স্থানীয় কিছু গণমাধ্যম চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলছে, রাসায়নিক হামলায় সারিন গ্যাসের ব্যবহার হয়ে থাকতে পারে। সিরিয়ার বিরুদ্ধে এর আগেও রাসায়নিক হামলার অভিযোগ উঠলেও দামেস্ক বরাবরই তা প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: নিজের স্ত্রীকে তার পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে শরীয়তপুরে। ফেসবুকের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে বিয়ে দিয়ে ইতি টেনেছেন স্বামী রুস্তম চৌকিদার।

গত শনিবার গভীরাতে সদর উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের মধ্যসোনামূখী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, গত বছরের ২৮ জুলাই মধ্য সোনামূখী গ্রামের হানিফ চৌকিদারের ছেলে রুস্তম চৌকিদাদের সঙ্গে তার চাচাতো বোন জাকিয়া আক্তারের বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে স্ত্রী জাকিয়া পাশের গ্রামের আসিফ চৌকিদারের সঙ্গে ফেসবুকে বন্ধুত্ব করেন।  ফেসবুকের বন্ধুত্ব থেকে তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত শনিবার রাতে জাকিয়া তার ফেসবুক বন্ধু আসিফকে তার বাড়িতে আসতে বলে। বাড়িতে এলে স্বামী রুস্তম টের পেয়ে ফেসবুক বন্ধুকেসহ নিজের স্ত্রীকে গভীর রাতে একই কক্ষে তালাবদ্ধ করে লোকজন ডেকে জড়ো করে।

পরে রুদ্রকর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যসহ স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে রুস্তম জাকিয়াকে খোলা তালাক দেয় এবং তার সঙ্গে প্রেমিক আসিফের বিয়ের ব্যবস্থা করেন। প্রতিবেশী রেহানা, তাসলিমাসহ অন্যরা বলেন, ২০১৬ সালে দুর্ঘটনা ঘটলে চাচাতো ভাই রুস্তমের সঙ্গে জাকিয়ার কোর্টে গিয়ে বিয়ে হয়।

কিছুদিন পর শুনি জাকিয়ার সঙ্গে আসিফ নামে একটি ছেলের ফেসবুকে সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। গত শনিবার আবার দুর্ঘটনা। জাকিয়ার মা খোরশেদা বেগম বলেন, গত বছরের জুলাই মাসে রুস্তম চৌকিদারের সঙ্গে আমার মেয়ে জাকিয়ার বিয়ে হয়। এ সময়ের মধ্যে রুস্তম আমার মেয়েকে কোনো ভরণ পোষণ করে না। এ বিষয়ে কোর্টে একটি মামলাও করেছি।

সেই মামলা শেষ হলে আমার মেয়েকে রুস্তমের বাড়িতে নিয়ে যায়। রুদ্রকর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হাবিবুর রহামন ঢালী বলেন, আমি শুনেছি লোকজন ওদের ধরে বিয়ে পড়িয়েছে। পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খলিলুর রহমান বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছু জানিনা।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রায় ৩ হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান চৈত্র মাসের অতিবৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে। বৃষ্টিপাতের সাথে শিলাবৃষ্টির কারণে ঝরে পড়ছে মৌসুমী ফলের মুকুল। সিলেট আবহাওয়া অফিসের তথ্যমতে এ মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত অারোও প্রচুর বৃষ্টিপাত হবে।

বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে অবশিষ্ট জমির বোরো ধান তলিয়ে যাওয়ার আশংকা করছে বিয়ানীবাজার উপজেলা কৃষি অফিস। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার উন্নত জাত ও স্থানীয় জাত মিলিয়ে ৫ হাজার ৯শ’ ৭০ হেক্টর জমিতে এবার বোরো আবাদ করেন প্রান্তিক কৃষকরা।

কয়েক দিনের ভারি বৃষ্টি পাতের ফলে ৪ হাজার হেক্টরের বেশি জমির বোরো ধান তলিয়ে গেছে। উপজেলার আলীনগর ও চারখাই ইউনিয়নসহ বেশ কিছু উচু এলাকার জমিগুলোর বোরো ধান তলিয়ে যাওয়া সময়ের ব্যাপার। তবে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে অবশিষ্ট জমির বোরো ধানও রক্ষা পাবেনা বলে আশংকা করা হচ্ছে। গত বুধবার (২৯ মার্চ) থেকে বিয়ানীবাজারসহ পুরো সিলেট অঞ্চলে টানা বৃষ্টিপাত হচ্ছে।

অতিবৃষ্টির পাশাপাশি শিলা বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়া বোরো ধানের পাশাপাশি আম, কাঠাল, লিচুসহ মৌসুমী ফলের মুকুল ঝরে গেছে। অপ্রত্যাশিত চৈত্রবর্ষণে প্রান্তিক চাষিরা বেকায়দায় পড়েছেন। চারখাই, শেওলা, দুবাগ, তিলপাড়া, মাথিউরা, মুড়িয়াসহ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রবল বর্ষনের ফলে সৃষ্ট পানিতে বোরো ধানের জমি তলিয়ে গেছে।

শিলা বৃষ্টির কারণে আমের গুটি ঝরে পড়ে গাছগুলো প্রায় ফল শূণ্য। এ সময় কয়েকজন চাষীর সাথে কথা বললে তারা জানান, চলতি বছর তাদের আবাদ করা সকল জমির ফসল পানির নিচে চলে গেছে। ধানের “থোড়” তলিয়ে যাওয়ায় পানি নেমে গেলেও ফসল পাওয়া যাবেনা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পরেশ চন্দ্র দাস বলেন, বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে অবশিষ্ট বোরো ধান নিয়েও শংকা থাকবে।

এখনো বেশ কিছু উচু এলাকার জমির বোরো ধান রক্ষা পেলেও বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে সেগুলো তলিয়ে যাবে। তিনি আরও বলেন, বৃষ্টির সাথে শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের কারণে আম, কাঠাল, লিচুসহ মৌসুমী ফল মুকুল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

0 13

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, সিলেটের পবিত্র মাটিতে কোন জঙ্গি আসলে বা জঙ্গি সৃষ্টি হলে আর জীবিত থাকবে না, অতীতেও থাকেননি।

বিএনপি-জামায়াতের মদদে দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের সৃষ্টি হচ্ছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দেখে বিএনপি-জামায়াত চক্র জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি করে উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্থ করার পায়তারা করছে।

দেশ থেকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূল করার জন্য আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সর্বস্থরের জনসাধারণকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা আওযামী লীগ ও অঙ্গসংগঠন আয়োজিত ‘জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস’ বিরুধী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথাগুলো বলেন।

তিনি বলেন, এলাকায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি দেখলে তার ব্যাপারে জানার চেষ্ঠা করুন। প্রয়োজনে আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করবেন। কাউকে বাসা ভাড়া দেওয়ার পূর্বে তাদের সম্পকে সম্পূর্নরুপে জেনে শুনে ভাড়া দিন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সমভাবে দেশের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সহযোগীতা করে যেতে হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব পংকি খান’র সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মকদ্দছ আলী’র পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আখতার, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মোঃ আসাদুজ্জামান, সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক শফিক উদ্দিন স্বপন, বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সুফি শামছুল ইসলাম, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মুহিবুর রহমান সুইট।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শাহনেওয়াজ চৌধুরী সেলিম মেম্বার, সাধারণ সম্পাদক মহব্বত আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হোসেন, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা শায়েস্তা মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা শাখাওয়াত হোসেন, আবদুল মতিন, মিজানুর রহমান মিজান, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরান দে, যুবলীগ নেতা তাজুল ইসলাম, সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল মতিন, বিশ্বনাথ নতুন বাজার বণিক সমিতির কমিশনার এমদাদ হোসেন নাইম, ছাত্রলীগ নেতা রাজু আহমদ খান, মাছুদ আহমদ, সিরাজুল ইসলাম, জুবায়ের আহমদ জয়, শেখ দিপু আহমদ প্রমুখ।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: চৈত্রের মাঝে কাল বৈশাখী ঝড়ের তান্ডবে অসংখ্য স্থানে খুঁটি ভেঙ্গে, গাছ পড়ে তার ছিড়ে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে।

ঝড়ের সাথে সাথে ভারী বৃষ্টিপাতে কমলগঞ্জে জন জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সোমবার (৩ এপ্রিল) ঝড় বৃষ্টির শুরুর আগে বিকাল ৪টা থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হওয়ার পর মঙ্গলবার বেলা ২টা পর্যন্ত টানা ২২ ঘন্টা বিদ্যুৎ বিহিন রয়েছে কমলগঞ্জ উপজেলার ৩৬ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক।

গত কয়েকদিন ধরে হালা ঝড়া আর মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে কমলগঞ্জ উপজেলায়। ধমকা বাতাস শুরু হলেই কমলগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এমনিভাবে সোমবার বিকাল চারটায় ঝড় আর বৃষ্টি শুরুর আগেই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এর পর থেকে মঙ্গলবার বেলা ২টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ উপজেলার ৩৬ হাজার গ্রাহক ছিলেন বিদ্যুৎ বিহিন অবস্থায়।

সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে  মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত টানা চার দফা ঝড় বয়ে যায় কমলগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটায় আবারও মাঝাড়ি ঝড় ও ভারী বৃষ্টিপাত হয়। এ অবস্থায় কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙ্গে, তারের উপর গাছ পড়ে তার ছিড়ে, বৈদ্যূতিক যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে।

সোমবার বিকাল থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকায় চলমান উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে। পরীক্ষার্থীরা চার্জার বাতি ও হারিক্যান জালিয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল নয়টায় আবারও পরীক্ষার্থীরা ঝড় ও বৃষ্টির মাঝে ভিজে কমলগঞ্জ উপজেলা পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে হয়েছে। পরীক্ষার কেন্দ্রে আবার বিদ্যুৎ বিহিন অবস্থায় নিজেরাই সাথে নেওয়া মোমবাতি জ্বালিয়ে আলোর ব্যবস্থা করেছে।

কমলগঞ্জ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব কমলগঞ্জ গণ-মহাবিদ্যালয়ের (ডিগ্রী কলেজের) অধ্যক্ষ মো: কামরুজ্জামান মিঞা এ প্রতিনিধিকে বলেন, আসলেই বিদ্যুৎ বিহিন অবস্থায় পরীক্ষার্থীরা আলোর স্বল্পতায় ভোগেছে। তাই মোমবাতি জ্বালিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে আলোর ব্যবস্থা করা হয়। অন্যদিকে বিদ্যুৎ না থাকায় কমলগঞ্জে বাসা বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আলো ও পানির স্বল্পতায় দুর্ভোগে পড়েছেন মানুষজন।

বেশীর ভাগই মুঠোফোন বন্ধ ছিল। অনেক ক্ষেত্রে সোলার ও জেনারেটারের মাধ্যমে মুঠোফোন চার্জ দিতে দেখা গেছে। ভারী বৃস্টির কারণে মঙ্গলবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিও ছিল কম। দিন মজুররাও আবহাওয়ার কারণে ঘর থেকে বের হয়ে কাজে যেতে পারেনি। মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস) কমলগঞ্জ জোনালের নিম্মমান প্রকৌশলী বিদ্যুৎ রায় এ প্রতিনিধিকে জানান, গত এক সপ্তাহে কয়েক দফা মাঝারি ঝড়ে উপজেলার কয়েকটি স্থানে ১১ কেভি বিদ্যুৎ লাইনের খুঁটি ভেঙ্গেছে।

এসব স্থানে মেরামত কাজ করে মোটামোটি বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা হয়। তবে সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার সকাল নয়টা পর্যন্ত কয়েক দফা ঝড় আর বৃষ্টিতে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভিতর জানকি ছড়া এলাকায় দুটি বড় আকারের গাছ ভেঙ্গে পড়ে ৩৩ হাজার কেভি প্রধান বিদ্যুৎ লাইনের উপর।

গাছ পড়ে সেখানে তার ও বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে বেশ ক্ষতি সাধন হয়েছে। মঙ্গলবার সকালের ঝড়ে কুলাউড়া উপজেলার রবির বাজার এলাকায় ১১ হাজার কেভি বিদ্যুৎ লাইনের ৬টি খুঁটি ভেঙ্গে পড়ে।

মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোবারক হোসেন ঝড়ে বৈদ্যুতিক লাইনের ক্ষতি সাধনের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, চলমান প্রাকৃতিক দুর্যোগের মাঝে সঠিকভাবে মেরামত কাজ করা যাচ্ছিল না বলে সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার বেলা ২টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ বিদ্যুৎ বিহিন ছিল।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের জানকি ছড়ায় তারের উপর পড়ে থাকা গাছ উপসারণ করে বৈদ্যুতিক লাইন মেরামত করে মঙ্গলবার বেলা ২টায় আবার বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বভাবিক করতে হেয়েছে। তিনি আরও বলেন, অনেক গ্রামাঞ্চলে এখনও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করা যায়নি।

0 19

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সিলেট মহানগর ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি বাতিল করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। সোমবার রাতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, কেন্দ্রীয় সংসদের দফতর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রেরিত একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমনটি জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সাংগঠনিক স্থবিরতার কারণে সিলেট মহানগর ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান এবং সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান। অচিরেই নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

0 16

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধ করা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। মঙ্গলবার (০৪ এপ্রিল) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ফেসবুক বন্ধের কোনো প্রশ্নই আসে না। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগতে মতামত জানানো হচ্ছে।

রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত ফেসবুক বন্ধ থাকবে এমন আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, কোনো ঘণ্টার জন্য ফেসবুক বন্ধ থাকবে না।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সিলেট নগরীসহ এ বিভাগের বিভিন্ন অঞ্চলে গত কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এরই মধ্যে এ বিভাগের বোরো ফসলের অনেক কাঁচা ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। কৃষকদের আর্তনাদে ভারী হয়ে উঠছে গ্রামীন এলাকা।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আগামী ৬ এপ্রিল পর্যন্ত বিরুপ আবহাওয়া বিরাজ করতে পারে। হতে পারে বৃষ্টিপাতও। এদিকে, টানা বর্ষণে দুর্ভোগে পড়েছেন সিলেট নগরীর মানুষও। দিনভর বৃষ্টিপাতে রাস্তায় পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।

নগরীর অনেক রাস্তা কর্দমাক্ত হয়ে পড়েছে। এর ফলে নগরীর ব্যবসায়ী, চাকুরীজীবী, শিক্ষার্থীসহ অন্যান্য পেশার লোকজন পড়েছেন বিপাকে। অযাচিত এ দুর্ভোগে অনেকেই কর্মস্থলে স্বস্তিতে যেতে পারছেন না। নগরীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভারী বর্ষণের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না।

বিঘ্ন ঘটছে তাদের পড়ালেখায়। বৃষ্টিপাতের কারণে ব্যবসা-বাণিজেও মন্দাভাব পড়েছে। মেট্টোপলিটন ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মো. শাহরিয়ার জানান, গত কয়েক দিন ধরে ভারী বৃষ্টিপাতের জন্য ক্যাম্পাসে যেতে পারি না। এতে শ্রেণীপাঠদানে নিয়মিত হতে পারছি না। টানা বৃষ্টিপাতে লেখাপড়ায় ব্যাঘাত ঘটছে বলেও তার মন্তব্য।

চাকুরীজীবী মো. সেলিম আহমদ বলেন, টানা বৃষ্টিপাতের মধ্যে কর্মস্থলে যাওয়া একটি কঠিন কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাস্তায় বৃষ্টির পানি নতুবা কর্দমাক্ত হালকা পানি যেকোন সময় পোষাক নষ্ট করে দেয়। এছাড়া, রয়েছে গণপরিবহনেরও সংকট। এই সুবাদে পরিবহন শ্রমিকরা আদায় করছে অতিরিক্ত ভাড়া। ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম জানান, বৃষ্টিপাত ব্যবসায়ীদের জন্য একটি নেতিবাচক বিষয়।

বৃষ্টিপাত ব্যবসার গতিতে থামিয়ে দেয়। বৃষ্টিপাতের কারণে ক্রেতারা না আসায় তুলনামুলক অনেক কম ব্যবসা হচ্ছে বলে তার মন্তব্য। সিলেট আবহাওয়া অফিসের প্রধান আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী জানান, সোমবার সকাল ৬টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত সিলেটে ৩১.৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আর সোমবার সকাল ৬টা থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৭১.৪ মিলিমিটার।

এছাড়া, রোববার সকাল ৬টা পূর্ববর্তী ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় ১২৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। তিনি জানান, আগামী ৫/৬ এপ্রিল পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকতে পারে। সুরমা ও কুশিয়ারার উজানে এরই মধ্যে ১৪০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এ থেকে বোঝা যাচ্ছে, পরিস্থিতি আরো খারাপ আকার ধারণ করতে পারে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর ও ধর্মপাশা উপজেলার সীমানাঘেরা টাংগুয়ার হাওড়ে ঝড়ে নৌকা ডুবে তিনজন নিখোঁজ হয়েছেন। এছাড়া এতে এক শিশুর লাশ উদ্ধার হয়েছে।

সোমবার রাতে টাংগুয়ার হাওড়ের হাতির গাতা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটলেও এখন পর্যন্ত নিখোঁজ চারজনের মধ্যে মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় সুনামগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস এক শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে।

বাকিদের সন্ধান এখনো করতে পারেনি। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র জানায়, মহিলাসহ পাঁচজন মুদি দোকানদার ছোট নৌকাযোগে টাংঙ্গুয়ার হাওড় দিয়ে লামাগাও শিববাড়ী মেলায় যাওয়ার পথে ঝড়ে নৌকাটি পানিতে ডুবে গিয়ে তারা নিখোঁজ হন।

এদের মধ্যে নৌকার মাঝি ও মোছা. আনোয়ারা বেগম (৪০)নামে এক মহিলা সাঁতার কেটে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও বাকিরা নিখোঁজ হন। এ ব্যাপারে তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কুমার ধর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে টানা বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ী ঢলে একের পর এক ডুবছে হাওর পাড়ের কৃষকদের বেচেঁ থাকার শেষ অবলম্বন বোরো ধানের জমি। বাধঁ ভেঙ্গে চোখের সামনে কাঁচা, আধা পাকা বোরো ধান পানিতে তলিয়ে যাবার দৃশ্য দেখে চোখের পানি ধরে রাখতে পারছেন না হাওর পাড়ের অসহায় কৃষকরা।

উপজেলার টানা বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ী ঢলে কয়েক দিনের ব্যবধানে বাঁধ ভেঙ্গে মহালিয়, ধরনারদর হাওর, বলদার হাওর, টাঙ্গুয়ার হাওর, শনির হাওরের নিন্মাঅঞ্চল সহ ছোট ছোট ১২টি হাওর ডুবে ৮হাজার হেক্টরের বেশি বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গেছে।

কষ্টের ফলানো সোনার ফসল পানিতে তলিয়ে যাওয়ার দৃশ্য দেখে এখন ঝড়ছে কৃষকের চোখের পানি। ডুবে যাওয়া বোরো ধানের জমি এবারও কৃষকরা এনজিও,ব্যাংক ও মহাজনের কাছ থেকে ছড়া সুদে ঋন নিয়ে চাষ করেছে। এই ফসল হানীর কারনে ছড়া সুদে নেওয়া ঋন পরিশোধ কি ভাবে করবে এ নিয়ে হতাশায় দিন পার করছে হাওর পাড়ের কৃষকরা।

উপজেলার বোয়ালমারা,শনির হাওর,মাতিয়ান হাওর,লোভার হাওর,বলদার হাওর,লালুয়া গোয়ালা বাঁধ,মেশিন বাড়ির বাঁধ,সহ বিভিন্ন হাওরের বাঁধ দেবে গেছে ও ফাঠল দেখা দিয়েছে। বাধঁ ভেঙ্গে কাঁচা,আধা পাকা বোরো জমির ধান পানিতে তলিয়ে যাবার আশংকায় উৎবেগ আর উৎকণ্ঠায় হাওর পাড়ের বাঁধ রক্ষায় ফাঠল ও দেবে যাওয়া অংশে সংস্কারের কাজ করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান,সদর ইউপি চেয়ারম্যান সহ হাওর পাড়ে স্থানীয় কৃষকগন দিন-রাত।

এর পরও হাজার হাজার কৃষকের একমাত্র বোরো ফসল রক্ষায় বাঁেধ এ পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাউকে দেখা যায় নি। উপজেলার কৃষি অফিস সূত্র জানায়,পানি উন্নয়ন বোর্ড এডিপি প্রকল্পের অধীনে উপজেলার ২৩টি হাওরের মধ্যে ১৮টি হাওরের বাঁধ নিমার্ন ও মাটি ভড়াটের কাজ পায়। এ উপজেলায় আবাদী জমির পরিমান মোট ২৪হাজার ৯শত ৯৫হেক্টর।

তার মধ্যে ১৮হাজার ২শত হেক্টরের অধিক জমিতে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিভিন্ন প্রকার ধান চাষ করা হয়েছে। আর বাকি জমিতে অন্যান্য ফসল। উৎপাদিত ধানের মধ্যে রয়েছে হাইবিট ৮শ হেক্টর, স্থানীয় ২২শ হেক্টর ও বাকি জমিতে অকশি জাতীয় ধান চাষ করা হয়েছে। এসব জমিতে প্রতি বছর উৎপাদিত ধান থেকে ৬৪হাজার মেঃটনের অধিক চাল হয়।

যার মূল্য ২শত কোটির বেশি টাকা। মহালীয়া হাওরের রব্বানী,শনি হাওরের খেলু মিয়া,আতিক,সাদেক আলী,মাটিয়ান হাওরের উত্তম পুরকায়স্থ,অপু সহ উপজেলার হাওর পাড়ের কৃষকগন ক্ষুবের সাথে জানান,ছেলে মেয়ের লেখাপড়া আর কাওয়ন কেমনে হইব রক্ষক বক্ষক হইলে তখন আর কি করা যায়। আর বাঁধ নির্মান কারীদের বিরোদ্ধে সরকার,নেতা-নেত্রীরা সময় মত কোন কঠিন ব্যবস্থা না করায় বাঁধ নির্মাণ কাজ ৪০ভাগ শেষ করেনি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঠিকাদার ও পিআইসিগন নিজেদের খেয়াল খুশি মত বাঁন্ধের উপর থাকা গাছ-পালা কাইটা পরিস্কার না কইরা,বান্ধের দুই পাশ থেকে মাটি উত্তোলন করে কোন রকম দায় সারা বাঁন্ধ নির্মান করছে। তারা জানায়,নিদির্ষ্ট দূরত্ব থেকে মাটি আইনা,বস্তাত মাটি ভইড়া,বাঁশ দিয়া প্রতিরক্ষা বাঁন্ধ দেওয়া নিয়ম থাকলেও তা কেউ শুনে নাই।

এসব অনিয়মের কারনে গত কয়েক দিনের বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের পানিতে বাঁন্ধ ভাইঙ্গা কোটি কোটি টাকার কষ্টের সোনার ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। গত বছরের মত এবারও একেই অবস্থা অইছে। এই ফসল ফলাতে আমরা বিভিন্ন এনজিও,ব্যাংক ও মহাজনের কাছ থেকে ঋন নিছি কেমনে ঋন পরিশোধ করতাম ভাইবা পাইতাছিনা। সবাই সবার ধান্দা নিয়েই ব্যস্থ আছিন আর অহন আমরার কাম শেষ।

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস ছালাম জানান-এ বছর উপজেলায় ১৮৩০০ হেক্টর ধান চাষ করা হয়েছে। হাওরের বাঁধ গুলো খুবেই যুকিপূর্ন অবস্থায় ছিল এবং এখনও আছে। বিভিন্ন হাওর পরিদর্শন করে ও কৃষকদের সাথে কথা বলেছি। বাধঁ ভেঙ্গে ৮হাজার হেক্টর বোরো জমির কাচাঁ-আধা পাকা ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন-এবারও সঠিক ভাবে বাঁধ নির্মাণ না করার কারণে হাওরের বাঁধ গুলো ভেঙ্গেছে।

আর প্রতিটি বাঁধ এখনও খুবই ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। নিজেই প্রতিদিন প্রতিটি বাঁধের খবর নিয়ে মাঠি ফেলার কাজর করছি সবাইকে নিয়ে। সুনামগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন জানান,জেলার একাধিক হাওরে পানি প্রবেশ করেছে। এছাড়াও পাহাড়ী ঢলের পানি হাওরের বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবেশ করছে। হাওরের বাঁধ রক্ষায় আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত আছে।

0 448
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 1469
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তির। তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না...