Daily Archives: Apr 5, 2017

0 42

সিলেটের সংবাদ ডটকম: দক্ষিণ সুরমার গোটাটিকর এলাকার লন্ড্রি কর্মচারি সোহেল হত্যা মামলায় দু’জনের মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার আসামীদের উপস্থিতিতে সিলেটের বিশেষ দায়রা জজ (জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল) আদালতের বিচারক মো: মফিজুর রহমান ভূঞা এ রায় ঘোষণা করেন।

দন্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছে- সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের বানাগাঁও গ্রামের আব্দুল মন্নানের ছেলে কাজল (২৩) ও একই গ্রামের মনফর আলী ওরফে মনু মিয়ার ছেলে ইসলাম উদ্দিন (২২)। একই সাথে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ওই মামলায় আরো সাত আসামীকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়েছে। তারা হচ্ছেন সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার বাওনপুরের বদরুল (২৫), সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের বানাগাঁওয়ের কয়েছ (২২), একই গ্রামের ছমরু মিয়া ওরফে আবু তাহের (২২), ময়না মিয়া (২২), হোসাইন ওরফে হোছন (২১), ছাইম উদ্দিন (২২) ও মানিক ওরফে আব্দুল মালিক (২৩)।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০১১ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে লন্ড্রি কর্মচারি সোহেলকে বানাগাঁও এলাকার ঢালুয়াবন্দ হাওরে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন ইসলাম উদ্দিন ও তার বন্ধু কাজল। এ ঘটনার পর তাদেরসহ ৯ জনকে আসামি করে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন নিহত সুহেলের পিতা জয়নাল আবেদীন।

২০১১ সালের ২৬ জুন থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো: আবদুর রহিম মামলার চার্জশিট (অভিযোগপত্র) আদালতে দাখিল করেন। পরের বছর ১৩ জুন থেকে বিচারকার্য শুরু হয়। ৩০ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত বুধবার রায় ঘোষণা করেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে স্পেশাল পিপি এডভোকেট নওসাদ আহমদ চৌধুরী ও আসামীপক্ষে এডভোকেট নাহিদা চৌধুরী, এডভোকেট অশেষ কর ও এডভোকেট ফখরুল ইসলাম মামলা পরিচালনা করেন।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বুধবার সকাল থেকে অবিরাম বৃষ্টিতে জনজীবন বিপযস্ত হয়ে পড়েছে। বৃষ্টির ফলে স্কুল, কলেজ ও অফিসগামী রোকজন দূর্ভোগে পড়েন। শহরে রিকশাসহ যান চলাচল ছিল কম।

দুপুর ১টার দিকে বৃষ্টি ছেড়েছে। শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের সিনিয়র অবজারভার মো. হারুনুর রশীদ জানান, বুধবার  সকাল ৬টা থেকে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত অবিরাম বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির সাথে ছিল বজ্রপাত।

তারপর কিছুসময় বিরতি দিয়ে সকাল ৯টা থেকে আবার বৃষ্টি শুরু হয় চলে দুপুর ১টা পর্যন্ত। এরপর আবারও থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। হারুনুর রশীদ আরো জানান, বুধবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ১০৬.৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

এছাড়াও মঙ্গলবার সকাল থেকে বুধবার দুপুর ১টা পর্যন্ত বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে ১৫৫.২ মিলিমিটার। মৌলভীবাজারে টানা বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে তলিয়ে গেছে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বোরো ধান, রাস্তা ঘাট, বাড়ীঘর ও বিনোদন কেন্দ্রসহ নিন্মাঞ্চাল। আকর্ষিক বন্যায় নষ্ট হয়ে গেছে কয়েক হাজার হেক্টর বোরো ফসল।

এতে দূর্ভোগে পড়েছেন জেলার হাজার হাজার  মানুষ। মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত ছিল। মৌলভীবাজার জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: শাহজাহান জানান, এ বছর জেলার ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। গত কয়দিনের টানা বৃষ্টিতে বিভিন্ন হাওরের প্রায় ১০ হাজার ২শত হেক্টর ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে গেছে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সুনামগঞ্জ জেলার সব হাওয়রের ফসল যখন তলিয়ে যাচ্ছে, ঠিক তখনি কোন কারণ ছাড়া লাগামহীন ভাবে বাড়ছে চাল ও আটার দাম। কয়েক দিনের ব্যবধানে শহরতলি, উপজেলা শহর ও গ্রামীণ বাজারে চাল ও গমের মূল্য হুড় হুড় করে বেড়ে গেছে।

বস্তা প্রতি চালের দাম ৩ থেকে ৫শত টাকা ও গমের দাম ১৫০ থেকে ৩০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজারে চালের আমদানি কম ও লোকাল বাজারে চাল না থাকায় মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে মিলমালিক ও ক্রেতারা কারণ দেখালেও এ অজুহাত মানতে নারাজ সাধারণ ক্রেতারা।

বন্যার পানিতে হাওরের ফসল তলিয়ে যাওয়ায় অধিক লাভের আশায় কোন কারণ ছাড়াই ব্যবসায়িরা চাল ও আটার মূল্য বৃদ্ধি করছেন বলে দাবী তাদের। চাল ও আটার এমন আকস্মিক মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন বিভিন্ন মহলের মানুষ। চালের এমন উর্ধগতিতে বিপাকে পড়েছেন কৃষকসহ খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। এখনি চালের দামের মূল্য নিয়ন্ত্রণ না করলে দুর্ভোগ চরমে উঠতে পারে বলে আশংকা তাদের।

তবে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে বিক্রেতাদের মনিটরিংয়ে প্রশাসন সক্রিয় রয়েছে বলে দাবি করেছেন জেলা মার্কেটিং অফিসার  মো. আব্দুল খালেক। সরেজমিনে শহরতলি  ও শহরের একাধিক চালের বাজার ঘুরে দেখা যায় ,চালের মুল্যে ব্যাপক পার্থক্য। সুনামগঞ্জে একাধিক দোকান মালিকের দেয়া তথ্য মতে  পুরাতন ২৮ ও ২৯ জাতের চাল বস্তা প্রতি বর্তমান বাজার দর ২৫০০ থেকে ২৫৫০ টাকা।

তিন দিন আগে যার বাজারমূল্য ছিল ২০০০ থেকে ২১০০ টাকা। নতুন ২৮ ও ২৯ জাতের চাল বস্তা প্রতি বর্তমান বাজার দর ২১০০ থেকে ২১৫০ টাকা, তিন দিন আগে যার দর ছিল ১৯০০ থেকে ১৯৫০ টাকা। মোটা সিদ্ধ চালের বর্তমান বাজার দর বস্তা প্রতি ২০০০ থেকে ২১০০ টাকা, যার পূর্ব মুল্য ছিল ১৯০০ থেকে ২০০০ টাকা।

নতুন মালা জাতের চালের বর্তমান বাজার মূল্য ২১০০ থেকে ২২০০ টাকা , যার পূর্বমূল্য ছিল ১৮০০ টাকা। মোটা আতবের বর্তমান বাজার মূল্য ২০০০ টাকা, যার পূর্বমূল্য ছিল ১৮৫০ টাকা। বিরুই জাতের আতব চালের বর্তমান মূল্য ২১০০ টাকা, যার পূর্ব মূল্য ছিল  ২০০০ হাজার টাকা। পাইজাম জাতের সিদ্ধ চালের বর্তমান বাজার মূল্য ২২০০ থেকে ২২৫০ টাকা, যার পূর্ব মূল্য ছিল ১৯০০ টাকা।

এদিকে  বস্তা প্রতি আটার বর্তমান বাজার দর ১১০০ থেকে ১২০০ টাকা। তিনদিন আগে যা ছিল ৯৫০ থেকে ১০০০ টাকা। শহরের চালের এমন আকস্মিক মূল্য বৃদ্ধিতে চাল ক্রয় করতে আসা অসংখ্য ক্রেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আলী আমজদ, হোসেন মিয়া ও অনুপ নারায়ন নামে কয়েকজন ক্রেতা বলেন, রাতারাতি চালের দাম বেড়ে গেল। হাওরের ফসল নিল দুই দিন হয় নি।

এর মধ্যেই চালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে গেল কিভাবে। ব্যবসায়িরা কোন কারণ ছাড়াই অধিক লাভের আশায় চালের দাম বৃদ্ধি করছেন। প্রশাসন দিব্বি এই বিষয়গুলো দেখে যাচ্ছেন। বাজার তদারকী না করলে আমরা কই যাব।

উপজেলা শহর ও গ্রামের একাধিক বাজারেও বেশি দামে চাল ও আটা বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। চালের বাজার মূল্য নিয়ন্ত্রণে মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ব্যবসায়ী ও বিকালে ডিলারদের নিয়ে মতবিনিময় করেছে জেলা প্রশাসন। এসময় পৌর মেয়র আয়ূব বখ্ত জগলুল ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

চান মিয়া, ছাতক (সুনামগঞ্জ): ছাতকে অগ্নিকান্ড দু’টি দোকানের মালামাল পুড়ে প্রায় দু’লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। মঙ্গলবার (৪মার্চ) রাতে উপজেলার দোলারবাজার ইউপির মঈনপুরবাজারে এঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো রাত সাড়ে ৯টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাড়িতে চলে যান মঈনপুরবাজারের বাজারের সোয়েব ভেরাইটিজ ষ্টোরের মালিক সোয়েব আহমদ। রাত ১১টার দিকে দোকানে রাত যাপন করতে এসে নিজের দোকানে আগুন জ্বলতে দেখেন।

তাৎক্ষণিক মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিলে আগুনের বিষয়টি প্রচার করা হলে লোকজন এসে প্রায় ৩ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিযন্ত্রনে আনলেও এসময় পাশের বরিশাল ফার্মেসীতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে দুটি দোকানই মালামালসহ পুড়ে যায়।

এতে সোয়েব ভেরাইটিজ ষ্টোরও বরিশাল ফার্মেসীর প্রায় দু’লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। তবে ঘরে কিভাবে আগুনের সূত্রপাত ঘটেছে এব্যাপারে নিশ্চিত করে কেউ কিছু বলতে পারছেনা। তবে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটে আগুনের সূত্রপাত বলে ব্যবসায়িরা ধারণা করছেন।

শোয়েব উদ্দিন, (জৈন্তাপুর): আজ সিলেটের জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশের আয়োজনে ম্দক, জঙ্গী বিরোধী মতবিনিময় ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

৫ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টায় জৈন্তাপুর উপজেলা আসামপাড়া আশ্রায়ণ প্রকল্পের শিশুবান্ধব কেন্দ্রের হল রুমে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিতে জৈন্তাপুর মডেল থানার এএসআই সাহাব উদ্দিনের সঞ্চালনায় জঙ্গি ও মাদক বিরোধী আলোচনা সভা এবং বিট পুলিশিং কার্যক্রম অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ(তদন্ত) মোঃ আনোয়ার জাহিদ বলেন- সিলেটের দক্ষিণ সুরমার আতিয়া মহল সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে জঙ্গি মুক্ত করতে গিয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মৃত্যু বরণ করেছে। তার পরও পুলিশ সহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মনোবল নষ্ঠ করতে পারছে না জঙ্গিরা।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শে বাংলাদেশ যখন বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগুচ্ছে তখনই একটি জঙ্গিবাদী গোষ্টি বাংলাদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসাবে বিশ্ববাসীর কাছে তুলো ধরতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঝড়েহয়ে তারা জঙ্গি কার্যক্রম চালানোর চেষ্টা করছে। আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর আন্তরিকতায় এবং নিরলস প্রচেষ্ঠার তারা অগ্রসর হতে পারছেনা।

সিলেটের সীমান্তবর্তী খনিজ সম্পদে ভরপুর জৈস্তাপুর উপজেলার সকল ইউনিয়ন ওয়ার্ডে আমরা জঙ্গি বিরোধী সচেতনতা মূলক প্রচার অভিযান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে অঙ্গীকার বাক্য পাঠ করান এবং পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার আহবান জানান। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জৈন্তাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সেলিম চৌধুরী, জৈন্তাপুর মডেল থানার এস.আই প্রভাকর রায়, এএসআই হুমায়ন, ইউপি সদস্য আব্দুল আলী প্রমুখ।

0 6

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বরইকান্দি ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে পিরোজপুর উন্নয়ন পরিষদের উদ্যোগে পিরোজপুর আবাসিক এলাকার প্রবেশ দ্বারে নির্মিত পরিচিতি গেইটের উদ্বোধন অনুষ্ঠান ৫ এপ্রিল বুধবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়।

পিরোজপুর উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক এনামুল হকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহসিন আহমদ রিজুর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বরইকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ হাবীব হোসেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছানুয়ারুল হক চুনু। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন উন্নয়ন পরিষদের উপদেষ্টা মোহাম্মদ আলী, তাহসিন আহমদ দিপু, জাবেদ আহমদ মেম্বার, আনোয়ার হোসেন, মুজিবুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত ম্যানেজার বাহার উদ্দিন, উন্নয়ন পরিষদের সহ সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল হক সাবুল, অর্থ সম্পাদক এমরানুজ্জামান, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মুছা মিয়া, সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক খছরু মিয়া, ক্রীড়া সম্পাদক মুজিবুল হক শিমুল, সহ ক্রীড়া সম্পাদক শেখ কামাল টিপু, সদস্য জাহাঙ্গীর খান, সাহেদুল কবির, কানন, রিমন, হুমায়ুন কবির, সাকের আহমদ, জুম্মান আহমদ, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ উন্নয়ন পরিষদের নেতৃবৃন্দ। সব শেষে দোয়া পরিচালনা করেন ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাফিজ তুহিন আহমদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চেয়ারম্যান আলহাজ¦ হাবীব হোসেন বলেন, যুব সমাজরাই জাতির ভবিষ্যত। যুব সমাজ ঐক্যবদ্ধ থাকলে পরিবেশ উন্নয়নের পাশাপাশি অপরাধমুক্ত সমাজ গড়ে তোলা সম্ভব। তিনি বলেন পিরোজপুর উন্নয়ন পরিষদের নেতৃবৃন্দ আবাসিক এলাকার পরিচিতি তুলে ধরতে যে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে এবং ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে এই এলাকার উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের ধারা অব্যাহত থাকবে। বিজ্ঞপ্তি

0 66

মোস্তাফিজ আহমাদ: (১)“এসো হে বৈশাখ” বলা নিষেধ৷ কারন এর দ্বারা মাখলুকের নিকট কল্যাণ কামনা করা হয়৷ অথচ কল্যানের মালিক একমাত্র মহান আল্লাহ্ তায়ালা। (২) বড় বড় র্যালি বের করা যাকে মঙ্গল শুভ যাত্রা বলা হয়, এটা নিরেট হিন্দুদের ধর্মীয় কাজ। যা কোন মুসলমান কখনো করতে পারেনা৷

(৩) পহেলা বৈশাখে পান্তা-ইলিশ খাওয়া এটা ও মূলত হিন্দুদের থেকে এসেছে কেননা তারা আশ্বিনের শেষ রাত্রে রান্না করে কার্তিকের প্রথম দিনে খায়৷ (৪) এই দিনে সাদা কাপড়/শাড়ী পরিধান করে এবং কপালে শাখা-সিঁদুর লাগায় ও উলুধ্বনি দেয়৷ যা মূলত হিন্দুদের কাজ৷

(৫) জীব জন্তূর কার্টুন ব্যবহার করা, যেমন বাঘ,শিয়াল, বানরের এটা ঠিক নয়৷ কারন হিন্দুরা হনুমান/ সাপের পূজা করে৷ এগুলো নিষেধের কারন হলো: রাসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি অন্য কোনো জাতির অনুসরন করবে, সে তাদের দল ভূক্ত হবে৷ তাই আমরা হিন্দুদের দল ভূক্ত হতে চাই না৷

(৬) গালে, কপালে, হাতে উল্কি আঁকা, শরীরের যে কোনো জায়গায় অঙ্কন করা। এটা তিন কারনে নিষেধ (ক): হাদীসে এসেছে, যে ব্যক্তি উল্কি আঁকে, এবং যে আঁকায় তাদের উপর আল্লাহর অভিশাপ৷(খ) শারিরীক লস, কেননা চিকিৎসকরা বলেন, কেমিক্যল ক্রিম/বস্তূ গুলো ত্বকের জন্য ব্যবহার করা মারাত্বক ক্ষতিকর৷ (গ) বেপর্দা (৭) গান বাজনা ছাড়া তা পালন হয় না৷

তার জন্য ঢোল/তবলার প্রয়োজন, আর হিন্দুরা পূজার সময় ঢোল,তবলা বাজায়৷ তা ছাড়া হাদিস শরীফে নিষেধ করা হয়েছে।(৮) নারী,পুরুষের অবাধ মেলামেশা৷ যার ফলে অনেক সময় অপ্রীতিকর ঘটনা সংঘটিত হয়, যেমন গত বৎসরের আগের বৎসর পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হয়েছে৷ আর গত বৎসর টি,এস,সি মোড়ে যা হয়েছে তা সবার জানা৷

এ ছাড়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, ও রমনা পার্ক এলাকার অবস্থা যে কত ভয়াবহ রূপ ধারন করে তা লিখে শেষ করার নয়৷(৯) আল্লাহ পাক উনার সৃষ্টির পরিবর্তন। যেমন উল্কি, ক্ষুদাই করা, মুখোশ ব্যবহারের দ্বারা করা হয়, অথচ তা সম্পূর্ন নিষেধ৷ ১০) পহেলা বৈশাখ উদযাপনকে দুই ঈদের বিকল্প হিসাবে দাঁড় করানো হয়।

যেমন গত কয়েক বৎসর পূর্বে প্রথম আলোর হেড লাইন ছিল, “বাংগালীদের সব চেয়ে বড় উৎসব” ব্যবধান হল শুধু মাত্র ঈদ শব্দের, ঈদ বলতে পারতেছেনা ভয়ে, কেননা ঈদ বলে/লিখে দিলে মানুষের মার খেতে হবে৷ তাই ঈদের মত নতুন খাবার,কাপড়, এবং মিডিয়ায় খুব বেশি প্রচারনা চলতে থাকে৷তা ছাড়া অপচয় টাকা ব্যয় করা হয়৷

যেমন ইলিশের হালি চল্লিশ হাজার টাকা (গত বৎসরের মানবজমিন)হায়রে বাংঙালী! পহেলা বৈশাখে ইলিশ- পান্তা না খেলে কি বাংঙালী থাকা যায়না? মনে রাখবেন এর দ্বারা হয়ত আপনি বিশাখ দেবতাকে খুশি করতেছেন, না হয় শয়তান কে!!! কেননা হিন্দুরা বিশাখ তারার পূজা করে এই দিনে৷ না হয় অপচয় খরচ করে শয়তানের বন্ধুতে পরিনত হলেন৷ অতচ আল্লাহপাক কুরআনে বলেন,” নিঃসন্দেহে অপচয়কারী হলো শয়তানের ভাই” আল্লাহ অপচয় কারী কে ভালবাসেন না”৷ আল্লাহপাক প্রত্যেক মুসলমান নর- নারী কে পহেলা বৈশাখ পালন করা থেকে হেফাযত করুন৷

0 1

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: অন্যান্য দেশের তুলনায় জঙ্গি দমনে বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৫ এপ্রিল বুধবার পুলিশ অফিসার্স হাউজিং সোসাইটির প্লটের বরাদ্দপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, বিশেষ করে জঙ্গি দমনে বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিশ্বে নজির স্থাপন করতে পেরেছে।

সেই সঙ্গে অন্যান্য দেশে ঘটনা ঘটার পর অপরাধীদের ধরে কিন্তু বাংলাদেশ ঘটনা ঘটার আগেই দমন করার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। ভাষণে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, দেশে কিছু লোক থাকে যারা সব সময়ই সব কিছুতে কিন্তু খুঁজে বের করে।

তাদের সমলোচনা কখনোই থামে না। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশ পুলিশ অফিসার্স বহুমুখী সমবায় সমিতির উদ্যোগে বাস্তবায়নাধীন পুলিশ অফিসার্স হাউজিং সোসাইটির প্লটের বরাদ্দপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন পদমর্যাদার ২৫ কর্মকর্তাকে বরাদ্দপত্র তুলে দেন।

পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে দেখা করে আইপিইউ সম্মেলেন যোগ দিতে আসা চেক রিপাবলিকের প্রতিনিধি দল। প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশ সফলভাবে আইপিইউ সম্মেলন আয়োজনের জন্য দেশের জনগণ ও সরকারকে ধন্যবাদ জানায়।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: ঢাকা বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় চলমান আন্তনগর উপবন ট্রেনে দুবৃত্তের ছোড়া গুলিতে ট্রেন যাত্রী মৌলভীবাজের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের প্রতিবন্ধী যুবক সোয়েব এলাহী (৪৬) আহত হয়েছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টায় এ ঘটনাটি ঘটে।

গুলিবিদ্ধ আহত প্রতিবন্ধী যুবক মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত মুখ প্রতিবন্ধী যুবকের ছোট ভাই দৈনিক আমাদের সময়ের কমলগঞ্জ প্রতিনিধি সাংবাদিক শাব্বির এলাহী জানান, তার বড় ভাই মুখ প্রতিবন্ধী যুবক সোয়েব এলাহী ঢাকার একটি গার্মেন্টস কারখানায় চাকুরী করেন।

ছুটি নিয়ে মঙ্গলবার রাতে সিলেটগামী আন্তনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। আন্তনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন রাত সাড়ে ১০টায় ঢাকা বিমানবন্দ স্টেশনে প্রবেশ করে ছাড়ার মুহুর্তে স্টেশন প্লাট ফর্মে স্থানীয় সন্ত্রাসী দুটি দলের বিরোধ সৃস্টি হয়।

ট্রেনটি স্টেশন ত্যাগ করার সময় এক সন্ত্রাসী দৌড়ে একটি চেয়ারকোচ বগিতে উঠলে তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়লে এ গুলিটি বগির যাত্রী মুখ প্রতিবন্ধী যুবক সোয়েব এলাহীর গাল বেদ করে তাকে গুরুতরভাবে আহত করে। তাৎক্ষনিকভাবে ট্রেনের পরিচালক ও রেল কর্মচারীরা সোয়েবকে প্রাথমিক সেবা দেন।

উপবন এক্সপ্রেসটি রাত সাড়ে তিনটায় কমলগঞ্জের ভানুগাছ রেলওয়ে স্টেশনে আসার পর তাকে দ্রুত প্রথমে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

মঙ্গলবার রাতে সিলেটগামী আন্তনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান ও ভাইস চেয়ারম্যান সিদ্দেক আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আহত মুখ প্রতিবন্ধী যুবকের গালে তিনটি সেলাই দিতে হয়েছে। সে এখন আশঙ্কামুক্ত হলেও গুলিটি মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হতে পারতো।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় মাটিয়ান হাওরের আলমখালি বাঁধ বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের পানির চাপে বাঁধ ভেঙ্গে তীব্র গতিতে হাওরে প্রবেশ করছে পানি। নিমিষের মধ্যেই বিশাল হাওর পানিতে থৈ থৈ করছে।

অথচ সোমবার পর্যন্ত সবুজের সমারোহে পরিনত ছিল এই হাওরটি। এ দিন সকালে এই বাঁধের অবস্থা খারাপের খবর পেয়ে ছুঠে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান,তাহিরপুর থানার ওসি,উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও হাওর পাড়ের কৃষকগন।

বাঁধ রক্ষার জন্য সবাই সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে বাঁধ কে ঝুকিঁ মুক্ত করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা আর হল না সোমবার মধ্য রাতেই প্রচুর পরিমানে বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের পানির চাপে বাঁধ ভেঙ্গে যায়। জানা যায়,মাটিয়ান হাওরটি উপজেলা প্রধান বোরো উৎপাদন সমৃদ্ধ হাওর।

এ হাওরে সাড়ে ৩হাজার হেক্টরে অধিক বোরো ধানের চাষাবাদ করেছে ১০টি গ্রামের হাজার হাজার কৃষকগন। পানিতে হাওরটি ডুবে যাওয়ায় এ হাওরের কৃষকরা এখন দিশেহারা হয়ে পরেছে। আর একমাত্র জীবন বাঁচার সম্পদ,কষ্টে ফলানো সোনার ফসল পানিতে ডুবে যাওয়া দৃশ্য দেখে তাদের চোখের পানি একারকার হচ্ছে পাহাড়ী ঢলের পানির সাথে।

আর তাদের আর্তনাধ,আহাজারিতে এক হ্নদয় বিদায়ক পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে হাওর পাড়ে। এছাড়াও উপজেলার এ পর্যন্ত মহালীয়া,লোবার হাওর,বলদার হাওর,কলমার হাওর সহ ১২টি হাওরের কাচাঁ,আধা পাকা বোরো ধান একবারেই পানিতে তলিয়ে গেছে। সব মিলিয়ে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান ১০হাজারের হেক্টরের অধিক হবে বলে জানায় হাওর পাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকগন।

স্থানীয় কৃষকগন জানান,উপজেলার প্রতিটি বাঁধের যখন খারাপ অবস্থা খবর পেয়েছেন তখনেই বাঁধ রক্ষায় ফাঠল ও দেবে যাওয়া অংশে সংস্কারের কাজ করেছে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল সহ হাওর পাড়ে কৃষকগন দিন-রাত সেচ্চা শ্রমে। আর কাউকে আমাদের পাশে পাই নি। উপজেলা চেয়ারম্যানের মত সবাই যদি দূর্যোগ মুর্হুতে হাওরের বাঁধ রক্ষা আমাদের পাশে এসে দাড়াঁত তাহলে কিছুটা হলেও আরো রক্ষা করা যেত।

তারা আরো জানায়,এই ফসল ফলাতে আমরা এনজিও,ব্যাংক ও মহাজনের কাছ থেকে ছড়া সুদে নেওয়া ঋন নেওয়ায় পরিশোধ ও ছেলে মেয়েদের পড়া শুনা ও জীবন কিভাবে বাঁচাব এ নিয়ে হতাশায় মধ্যে আছি। গত ২৮শে ফেব্রুয়ারীর মধ্যে হাওরের বেরী বাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ করার সরকারি নির্দেশ থাকলেও ৪০ভাগ কাজও শেষ করেনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঠিকাদার ও পিআইসিরা।

নিজেদের খেয়াল খুশিমতো বাঁধের উপর থাকা গাছ-পালা কেটে পরিস্কার না করে,বাঁধের দুই পাশ থেকে মাটি উত্তোলন করে কোন রকম দায়সারা ভাবে বাঁধ নির্মান করে। নিদির্ষ্ট দূরত্ব থেকে মাটি এনে,বস্তায় মাটি ভরে,বাঁশ দিয়ে প্রতিরক্ষা বাঁধ দেওয়ার নিয়ম থাকলেও এখানে তা কেউ শুনেনি। অনেক হাওর পাড়ে বাঁধ নির্মান না করে পানি বাড়ার সাথে সাথে তড়িগড়ি করে নামমাত্র মাটি দেয় কর্মকর্তা কর্মচারী,ঠিকাদার ও পিআইসির প্রতিনিধিরা।

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস ছালাম জানান-হাওরের বাঁধ গুলো খুবেই ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় ছিল এবং এখনও আছে। হাওরের আলমখালি বাঁধ ভেঙ্গে মাটিয়ান হাওরের সর্ম্পূন বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে করে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান আরো বেড়ে যাবে। উপজেলার অন্যতম বৃহত্তর অন্য শনির হাওরটিও খুবেই ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন-সঠিক ভাবে বাঁধ নির্মাণ না করার কারণে একের পর এক হাওর ডুবছে। মাটিয়ান হাওরের আলমখালী বাঁধটি রক্ষায় আমি সহ সবাই সোমবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বাঁধে সেচ্ছ শ্রমে কাজ করেছি সবাইকে সাথে নিয়ে। এর পরও হাজার হাজার কৃষকের একমাত্র বোরো ফসল রক্ষায় বাঁধে এ পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাউকে দেখা যায় নি।

কিন্তু শেষ রক্ষা আর হল না মধ্য রাতেই এই বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় মাটিয়ান হাওরের সব বোরো ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে বাঁধ নির্মান অনিয়মকারীদের কোন ভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। সুনামগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন জানান,জেলার আমাদের রক্ষানাবেক্ষনকৃত ছোট বড় ৪৬টি হাওরের মধ্যে ১৯টি হাওর ডুবে গেছে।

এতে প্রায় ২০হাজার হেক্টরের অধিক জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ২৪ঘন্টায় ৫০মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। পাহাড়ী ঢলে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৬সেন্টিমিটারের উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

0 448
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 1469
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তির। তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না...