Daily Archives: Apr 12, 2017

0 26

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নান ও তার সহযোগী জঙ্গি শরীফ শাহেদুল বিপুলের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১০টায় তাদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে সিনিয়র জেল সুপার মিজানুর রহমান।

এর আগে রাত ৭টা ৫৭ মি‌নি‌টে কারাগারে প্রবেশ করেন ই‌জি প্রিজন ব্রি‌গে‌ডিয়ার জেনা‌রেল সৈয়দ ইফ‌তেখার উ‌দ্দিন।

রাত ৭টা ৫৭ মি‌নি‌টে কারাগারে প্রবেশ করেন তিনি। এর আগে ৭টা ৪০ মি‌নি‌টে কারাগা‌রে প্র‌বেশ ক‌রে‌ন অ‌তি‌রিক্ত আই‌জি প্রিজন ক‌র্নেল ইকবাল হো‌সেন। অন্যদিকে, সন্ধ্যা ৬টা ৩৭ মিনিটে অ্যাম্বুলেন্স দুটি কারাগারে প্রবেশ করে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: হজরত শাহজালাল (রহ.) মাজারে তৎকালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার সিলেটের কৃতীসন্তান আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি দেলোয়ার হোসেন রিপনের ফাঁসি সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে কার্যকর করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১০টা এক মিনিটে ফাঁসির রশিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যু নিশ্চিত করা হয় বলে জানিয়েছেন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার ছগির মিয়া।

রিপনের গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের কোনাগ্রামে।

0 912

সিলেটের সংবাদ ডটকম: গোলাপগঞ্জে মাকে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে পাষণ্ড এক পুত্র। বুধবার ভোরে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দক্ষিণ বারকোট এলাকায় এ নির্মম ঘটনাটি ঘটে। নিহত মায়ের নাম তহুরুন্নেছা (৭৫)।

ঘটনার পর ঘাতক পুত্র পালিয়ে গেলেও পরে স্থানীয় জনতার সহযোগীতায় তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নিহতের লাশ উদ্ধার করার পর ময়না তদন্তের জন্য সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার দিন বাদ ফজর নামাজ পড়ে ঘরের বারান্দায় বসেছিলেন তখলিছ আলীর স্ত্রী বৃদ্ধা তহুরুন্নেছা (৭৫)। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই তার ঘাতক পুত্র রুবেল আহমদ (২৫) ধারালো বটি দিয়ে উপর্যুপুরী কয়েকটি কুপ দেয়।

এসময় তিনি রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। ঘরের লোকজন অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় তাৎক্ষণিক বিষয়টি বুঝতে পারেননি। এরপর রক্তাক্ত অবস্থায় লাশ পড়ে থাকতে দেখে পরিবারের লোকজনের আর্তচিৎকারে ছুটে আসেন এলাকাবাসী। কিন্তু এর আগেই মাকে হত্যা করেই পালিয়ে যায় ঘাতক পুত্র রুবেল।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সুরতাহাল রিপোর্ট তৈরী করে রক্তাক্ত দেহটি উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন। এরপর বেলা ২ টার দিকে নিহতের পরিবার ও স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় ঘাতক রুবেলকে উপজেলার হিলালপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ঘটনার পর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। এলাকার একটি সূত্র জানায়, দীর্ঘ দিন থেকে ঘাতক রুবেল বাড়িতে থাকতো না। মাঝে মধ্যে সে আসা যাওয়া করলেও কারো সাথে তেমন কথাও বলতনা। আবার কোন কোন সময় মায়ের কাছে টাকাও দাবি করতো। এলাকাবাসীর ধারণা সে সম্ভবত মাদকাসক্তে আসক্ত হয়ে পড়েছিল।

এ ব্যাপারে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ওসি একেএম ফজলুল হক শিবলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ রক্তাক্ত অবস্থায় লাশ থানায় নিয়ে আসে। মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।পুলিশের অপর একটি সূত্র জানায়, ঘাতক রুবেলকে গ্রেফতারের সময় তার পরনে থাকা লুঙ্গী ও সার্টে রক্তের দাগ লেগেছিল।

0 445

সিলেটের সংবাদ ডটকম: পৃথক হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছয় আসামি দীর্ঘদিন ধরে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে সাজা ভোগ করছিলেন। তাদের কেউ জেলে রয়েছেন ২১ বছর, আবার কেউ ২০ বছর, অন্যজন জেল খেটেছেন ১৭ বছর ৫ মাস।

এই তিনজনকে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সাজা মওকুফ করে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করে সরকার। সরকারের দেয়া এই বিশেষ সুযোগে বুধবার সন্ধ্যায় তারা সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান। ফেরেন স্বাভাবিক জীবনে আর পরিবার-পরিজনের মাঝে।

মুক্তি পাওয়া এই ছয়জন পরে চলে যান তাদের স্বজনের সঙ্গে জন্মভিটায়। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বের হন গোপাল মুন্ডা (৭০), কাজল মিয়া (৫৪), আশিক আলী (৬৫), আব্দুল আলীম (৬৬), রাসু মাংকী মুন্ডা (৬১) ও বদরুল আলম খান (৪৫)।

খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন সুনামগঞ্জের ছাতকের ভূগলী গ্রামের তহুর আলীর ছেলে আশিক আলী (কয়েদি নং-৯১৫৩/এ), মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের ধুপারহাটের ছাওমনির ছেলে কাজল মিয়া (কয়েদি নং-৮৬৮২/এ), হবিগঞ্জের মাধবপুরের হালুয়াপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস ছাত্তারের ছেলে আব্দুল আলীম (কয়েদি নং-৭৩৯৪/এ)।

হবিগঞ্জের মাধবপুরের সুরমা চা-বাগানের রনিয়া মাংকী মুন্ডার ছেলে রাসু মাংকী মুন্ডা (কয়েদি নং- ৭০১২/এ), হবিগঞ্জের মাধবপুরের সুরমা চা-বাগানের আরজুন মাংকী মুন্ডার ছেলে গোপাল মাংকী মুন্ডা (কয়েদি নং-৭৭৫০/এ) এবং হবিগঞ্জের লাখাই থানার গণিপুর গ্রামের আব্দুল কাদের খানের ছেলে বদরুল আলম খান (কয়েদি নং-৯২১২/এ)।

এর মধ্যে গোপাল মুন্ডা ২০ বছর, কাজল মিয়া ২১ বছর এবং আশিক আলী ১৭ বছর ৫ মাস সাজা ভোগ করেন। সুরক্ষা সেবা বিভাগের প্রজ্ঞাপনে অন্য কোনো কারণে আটক রাখা আবশ্যকতা না থাকায় তাদের অবিলম্বে মুক্তি দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। গতকালই সিলেট কারাগারে চিঠির কপি পাঠানো হয়। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ছগির মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

0 19

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: জুমার নামাজের বয়ানে জঙ্গিবাদ বিরোধী বক্তব্য বাধ্যতামূলক হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

১২ এপ্রিল বুধবার সচিবালয়ে জঙ্গি প্রতিরোধ সংক্রান্ত আইনশৃংখলা বাহিনীর সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা জানান। তিনি আরও বলেন, আমরা জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ করছি।

কিন্তু অভিযান চালিয়ে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যখন জঙ্গিদের ধরে জেলে পুরছে, তখন কিছু জিম্মাদারের আওতায় অনেকেই জামিনে মুক্তি পাচ্ছে। পরে তাদের কেউ কেউ বিদেশেও পাড়ি জমাচ্ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের জিম্মাদারদেরও ছাড় দেওয়া হবে না। তাদের  বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

0 1219

সিলেটের সংবাদ ডটকম: পাঁচ মামলায় ৮৫ বছর সাজাপ্রাপ্ত জল্লাদ মো. ফারুক। বাড়ি সিলেটের কানাইঘাট সদরে। দু’টি হত্যা, দু’টি অস্ত্র ও একটি ডাকাতি মামলায় আদালত থেকে ৮৫ বছর দণ্ডপ্রাপ্ত হন ফারুক।

এরমধ্যে দু’টি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত। তিনিই লিভার টানবেন জঙ্গি রিপনের ফাঁসিকাষ্ঠের। বুধবার (১২ এপ্রিল) রাতে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ছগির মিয়া এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জল্লাদ ফারুক ২৮ বছর ধরে কারাভোগ করছেন। রেয়াতিসহ তার সাজার মেয়াদ হয়েছে ৩২ বছর। একটি ফাঁসি কার্যকর করলে ৬০ দিন সাজা মওকুফ হয়। সিলেট কারাগারে এর আগে আরও ৪/৫টি ফাঁসি কার্যকর করেছেন তিনি।

জেল সুপার ছগির মিয়া বলেন, সিলেট কারাগারেই প্রায় ৫ বছর হলো জল্লাদের দায়িত্ব পালন করে আসছেন ফারুক। রাতে জঙ্গি রিপনকে ফাঁসিতে ঝুলানোর সময় তার সহযোগী হিসেবে থাকছেন চার জল্লাদ। সেই সঙ্গে নতুন আরও ৬ জনকে যুক্ত করা হয়েছে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সিলেটে সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর হামলার মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত হরকাতুল জিহাদ (হুজি) নেতা দেলোয়ার হোসেন রিপনের ফাঁসি আজ রাতেই।

ফাঁসি কার্যকরে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্রে জানা গেছে, ফাঁসি কার্যকরে জল্লাদ ফারুক ও জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে ১০ জনের একটি দল প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে কারাগার ও আশপাশ এলাকায়। বুধবার বিকেল পৌনে ৪টায় সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবু সায়েম জানান, সন্ধ্যার মধ্যে রিপনের পরিবারকে তার সঙ্গে শেষ দেখা করতে বলা হয়েছে।

এর আগে কারাগারে জ্যেষ্ঠ জেল সুপার জানিয়েছিলেন, উচ্চমহল থেকে বুধবার ফাঁসি কার্যকরে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে। সকাল থেকেই সে অনুযায়ী কার্যক্রম শুরু হয়েছে। জল্লাদদের নিয়ে ফাঁসির মহড়াও দেয়া হয়েছে। গত মঙ্গলবার সকালে রাষ্ট্রপতির কাছে করা রিপনের প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ সংক্রান্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছে।

এরপর তা রিপনকে পড়ে শোনানো হয়। পরে দুপুরে কারাগারে এসে রিপনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তার বাবা আ. ইউসুফ ও মা আজিজুন্নেছা, ভাই নাজমুল ইসলাম ও তার স্ত্রী। আজ তারা আবার শেষবারের মতো সাক্ষাৎ করতে আসবেন। উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ২১ মে সিলেটে হজরত শাহজালালের মাজার প্রাঙ্গণে ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়।

এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন পুলিশের এএসআই কামাল উদ্দিন। এছাড়া হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান রুবেল আহমেদ ও হাবিল মিয়া। এ ঘটনায় আহত হন আনোয়ার চৌধুরী ও সিলেটের জেলা প্রশাসক আবুল হোসেনসহ অন্তত ৪০ জন।

এ মামলার রায়ে ২০০৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের রায়ে হরকাতুল জিহাদের প্রধান মুফতি হান্নান, সাহেদুল আলম ওরফে বিপুল ও দেলোয়ার হোসেন রিপনের ফাঁসির দণ্ডাদেশ দেয়া হয়।

এ রায় আপিলেও বহাল থাকে। আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিন আসামি রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন করেন। তাদের আবেদন গত ১৯ মার্চ সর্বোচ্চ আদালতে খারিজ হয়ে যায়। এরপর এই তিন আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে নিজেদের জঙ্গি স্বীকার করে প্রাণভিক্ষার আবেদন করেন। কিন্তু রাষ্ট্রপতি তাদের আবেদন নাকচ করে দেন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত অপর দুই শীর্ষ জঙ্গি হরকাতুল জিহাদের প্রধান মুফতি হান্নান ও তার সহযোগী সাহেদুল আলম ওরফে বিপুল গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে বন্দি রয়েছেন। তাদেরও আজ ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।

সিলেটের সংবাদ ডটকম: পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানমালা সন্ধ্যা ৫টার মধ্যেই শেষ করার নির্দেশ দিয়েছে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ।

এছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের জন্য বেশকিছু নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। বুধবার মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসার পাঠানো এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বাংলা বর্ষবরণ শান্তিপূর্ণ ও উৎসাহ উদ্দীপনার মাধ্যমে উদ্যাপনের লক্ষ্যে নির্দেশনাসমূহ অনুসরণের জন্য সকলকে অনুরোধ করা যাচ্ছে। এছাড়া শান্তিশৃঙ্খলা, অপরাধ দমন এবং উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান উপভোগের স্বার্থে নগরবাসীর সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করে।

গণ বিজ্ঞপ্তিতে নির্দেশনা: ১.বর্ষবরণের অনুষ্ঠান সম্পর্কে এস এম পি এর সংশ্লিষ্ট থানা এবং উপ পুলিশ কমিশনার এর কার্যালয়কে অবহিত করতে হবে। ২.উন্মুক্ত স্থানে নববর্ষের অনুষ্ঠানসমূহ বিকাল ০৫.০০ ঘটিকার মধ্যে অবশ্যই শেষ করতে হবে। ৩. বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজক কর্তৃপক্ষকে নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক / নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ করে অনুষ্ঠানস্থলের সার্বিক শৃঙ্খলা ও অনাকাক্সিক্ষত ব্যক্তি / বস্তু সম্পর্কে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিতে হবে। ৪.সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকায় কোন ধরণের আতশবাজি, পটকা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা যাবে না। ৫.মোটর সাইকেলে চালক ব্যতিত অন্য কোন আরোহী বহন করা যাবে না। ৬. একযোগে বা দলগতভাবে মোটর সাইকেল চালিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি বা যান চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না।

৭.বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ব্যাগ, থলে, পোটলা, সুটকেস, টিফিন ক্যারিয়ার বা এ জাতীয় কোন বস্তু বহনকে নিরুৎসাহিত করা হলো। ৮. খোলা ট্রাকে বাদ্যযন্ত্র বা সাউন্ড বক্স নিয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকায় প্রবেশ করা যাবে না এবং কোন ধরণের রং ছিটানো যাবে না। ৯.অনুমোদিত অনুষ্ঠান আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে সিসিটিভি স্থাপন/ ভিডিও চিত্র ধারণ এর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

১০. বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষকে অনুষ্ঠানের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদানের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকার নগরবাসীর বর্ষবরণ উদ্যাপনের এবং সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের স্বার্থে সিলেট মহানগরী পুলিশ আইন-২০০৯ এর ধারা-১১১ এর প্রদত্ত ক্ষমতা বলে অত্র গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হলো। অত্র গণ বিজ্ঞপ্তিটি ১৪/০৪/২০১৭খ্রি. (১ বৈশাখ/১৪২৪ বঙ্গাব্দ) পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

0 190

সিলেটের সংবাদ ডটকম: শেষ দেখা সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেছেন জঙ্গি দেলোয়ার হোসেন রিপনের বাবা-মা ও স্ত্রীসহ স্বজনরা। বুধবার সন্ধ্যা ৬টা ৫০মিনিটে দুইটি মাইক্রোবাস ও এক সিএনজিচালিত অটোরিকশায় যোগে তারা কারাগারের ভেতরে প্রবেশ করেন।

শেষ দেখা করতে পরিবারের আনুমানিক ২৫ সদস্য কারাগারে প্রবেশ করেছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে বাবা আ. ইউসুফ, মা আজিজুন্নেছা, ভাই নাজমুল ইসলাম ও তার স্ত্রী রয়েছেন বলে কারা সূত্র জানিয়েছে।

সিলেটে সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রিপনের ফাঁসি রাতেই কার্যকর করা হবে। তার গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার ব্রহ্মণবাজার ইউনিয়নের কোনাগ্রামে। ফাঁসি কার্যকরে প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

জেলরোড থেকে বন্দরবাজার পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল সন্ধ্যার পর থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার ছগির মিয়া জানান, ফারুক আহমদ ও জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি জল্লাদ দল রিপনের ফাঁসি কার্যকর করবে। তিনি জানান, স্বজনরা বেরিয়ে আসার পর রিপনকে তওবা পড়াবেন সিলেট নগরের আবু তোরাব মসজিদের ইমাম মাওলানা মুফতি মো. বেলাল উদ্দিন।

0 4

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বাংলা নববর্ষ উদযাপনের সঙ্গে ধর্মের কোনো যোগসূত্র নেই। এটা আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। এটা যুগ যুগ ধরে হয়ে আসছে। সব ধর্মের মানুষ একসঙ্গে বাংলা বছরের প্রথম দিন উদযাপন করে।

নববর্ষ বরণের অনুষ্ঠান নিয়ে হেফাজতের মতো ইসলামী সংগঠনের বক্তব্যে আপত্তি জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি এ অনুষ্ঠান নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করতে সবার প্রতি সতর্ক থাকারও আহ্বান জানান।

যদিও প্রধানমন্ত্রী সুপ্রিম কোর্ট থেকে ভাস্কর্য অপসারণে হেফাজতে ইসলামের মতো সংগঠনগুলোর দাবির সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন। বুধবার নিজ কার্যালয়ে নরসিংদী জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের শপথ অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ নানা অনুষ্ঠান ‘অনৈসলামিক ও হিন্দুয়ানি’ আখ্যা দিয়ে তা বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে কয়েকটি ইসলামী সংগঠন।

হেফাজতে ইসলামসহ সংগঠনগুলো বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে স্থাপিত ভাস্কর্য অপসারণেও দাবি জানায়। মঙ্গলবার গণভবনে হেফাজত আমির শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে একদল ওলামার সঙ্গে বৈঠকে শেখ হাসিনা সুপ্রিম কোর্ট থেকে ভাস্কর্য অপসারণে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন। তবে একদিন বাদেই বর্ষবরণের অনুষ্ঠান নিয়ে হেফাজতের মতো সংগঠনগুলোর বক্তব্য ‘বিভ্রান্তিকর’ বলে সবাইকে সতর্ক থাকতে বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পহেলা বৈশাখ বাঙালির নববর্ষ হিসেবে মুঘল আমল থেকেই পালন করা হচ্ছে। মঙ্গল শোভাযাত্রা মুঘল আমল থেকেই শুরু হয়। মঙ্গল কোনো হিন্দুয়ানি শব্দ না। বাংলা বছরের শেষ দিন চৈত্র সংক্রান্তিতে হালখাতা করার প্রচলনের কথাও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে প্রেস সচিব বলেন, ‘বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করে অনেকে। দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে। নববর্ষের সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। বাংলা নববর্ষের এ অনুষ্ঠান সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে উদ্যোগের কথা জানান সংস্কৃতিমন্ত্রী। চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রা ইউনেস্কো কর্তৃক ‘বিশ্ব অধরা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে গত বছর।

প্রধানমন্ত্রী ইরানসহ বিভিন্ন দেশে নববর্ষ পালনের কথাও উল্লেখ করেন। প্রেস সচিব আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এখানে ধর্মকে টেনে আনার কোনো যৌক্তিকতা নেই। মাছ রক্ষায় নববর্ষ উদযাপনে ইলিশ না খাওয়ার আহ্বান আবারও জানান প্রধানমন্ত্রী। স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন (এলজিআরডি) বিভাগের সচিব আবদুল মালেক শপথবাক্য অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।

এ সময় এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আবদুল নাসের চৌধুরী ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব সুরাইয়া বেগম উপস্থিত ছিলেন। আবদুল মতিন ভূঁইয়া গত ১৬ মার্চ নরসিংদী জেলা পরিষদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। পহেলা ফেব্রুয়ারি সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামানের ইন্তেকালে পদটি শূন্য হয়।

0 449
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 1469
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তির। তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না...