নববর্ষ উপলক্ষে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে ছয়জনকে সাধারণ ক্ষমা

0
598

সিলেটের সংবাদ ডটকম: পৃথক হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছয় আসামি দীর্ঘদিন ধরে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে সাজা ভোগ করছিলেন। তাদের কেউ জেলে রয়েছেন ২১ বছর, আবার কেউ ২০ বছর, অন্যজন জেল খেটেছেন ১৭ বছর ৫ মাস।

এই তিনজনকে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সাজা মওকুফ করে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করে সরকার। সরকারের দেয়া এই বিশেষ সুযোগে বুধবার সন্ধ্যায় তারা সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান। ফেরেন স্বাভাবিক জীবনে আর পরিবার-পরিজনের মাঝে।

মুক্তি পাওয়া এই ছয়জন পরে চলে যান তাদের স্বজনের সঙ্গে জন্মভিটায়। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বের হন গোপাল মুন্ডা (৭০), কাজল মিয়া (৫৪), আশিক আলী (৬৫), আব্দুল আলীম (৬৬), রাসু মাংকী মুন্ডা (৬১) ও বদরুল আলম খান (৪৫)।

খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন সুনামগঞ্জের ছাতকের ভূগলী গ্রামের তহুর আলীর ছেলে আশিক আলী (কয়েদি নং-৯১৫৩/এ), মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের ধুপারহাটের ছাওমনির ছেলে কাজল মিয়া (কয়েদি নং-৮৬৮২/এ), হবিগঞ্জের মাধবপুরের হালুয়াপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস ছাত্তারের ছেলে আব্দুল আলীম (কয়েদি নং-৭৩৯৪/এ)।

হবিগঞ্জের মাধবপুরের সুরমা চা-বাগানের রনিয়া মাংকী মুন্ডার ছেলে রাসু মাংকী মুন্ডা (কয়েদি নং- ৭০১২/এ), হবিগঞ্জের মাধবপুরের সুরমা চা-বাগানের আরজুন মাংকী মুন্ডার ছেলে গোপাল মাংকী মুন্ডা (কয়েদি নং-৭৭৫০/এ) এবং হবিগঞ্জের লাখাই থানার গণিপুর গ্রামের আব্দুল কাদের খানের ছেলে বদরুল আলম খান (কয়েদি নং-৯২১২/এ)।

এর মধ্যে গোপাল মুন্ডা ২০ বছর, কাজল মিয়া ২১ বছর এবং আশিক আলী ১৭ বছর ৫ মাস সাজা ভোগ করেন। সুরক্ষা সেবা বিভাগের প্রজ্ঞাপনে অন্য কোনো কারণে আটক রাখা আবশ্যকতা না থাকায় তাদের অবিলম্বে মুক্তি দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। গতকালই সিলেট কারাগারে চিঠির কপি পাঠানো হয়। সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ছগির মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here