সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়াকে কেন্দ্র করে একঘরে প্রতিবন্ধী রাজু : বাঁচার আকুতি

1
481

সিলেটের সংবাদ ডটকম: ভিলেজ পলিট্রিক্স ও পৈতিৃক সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে একঘরে করে রাখা হয়েছে দক্ষিন সুরমা থানার চান্দাই চৌধুরী বাড়ির মো: জামিল আল হাসান রাজু নামের এক প্রতিবন্ধীকে। অস্বাস্হ্যকর পরিবেশে এভাবে বন্ধী করে রেখে তার মৃত্যুর অপেক্ষায় রয়েছে ভুমিখেকো চক্র।

ভাত না খেয়ে চিড়া-মুড়ি, বিস্কুট খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন তিনি। চলাফেরায় অক্ষম রাজু বেশির ভাগ সময় না খেয়েই থাকছেন। তারপরও রাজুর একটি দাবী তার বাবার লাশটি তাদের পারিবারিক গোরস্হানে দাফন করার।

আর সেজন্য তিনি গত ৬ এপ্রিল সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেছেন। রাজু জানান, ২০০৪ সালে ভুমি জরিপের সময় তাকে প্রানে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা করা হয়।

ঐ সময় তিনি প্রানে বেচে গেলেও দীর্ঘ ২বছর তিনি পঙ্গুঁ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। এরপর ২০০৯ সালে একই চক্র ফের তার উপর হামলা চালায়। হামলা চালিয়ে রাজুকে পুরোপুরি পঙ্গুঁ করে ফেলে। এরপর থেকে স্ক্যাচ ছাড়া চলাফেরা করতে পারেন না রাজু।

স্হানীয় সুত্রে জানা যায়, রাজুর চাচাতো ভাই মঞ্জুর, দক্ষিন সুরমা থনার বরইকান্দি ইউনিয়নের দুকুর পাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে রাজুর দুলাভাই মো: মানিক ও তার বোন রাজুর পৈত্রিক সম্মত্তি হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে তাকে প্রানে মেরে ফেলার জন্য বার বার চেষ্টা করে আসছে। তাকে প্রানে মারতে না পেরে পঙ্গু রাজুকে ২০১৭ সালের ২৯ মার্চ থেকে এঘরে করে রাখা হয়েছে।

উদ্দেশ্য তার মৃত্যুর অপেক্ষা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে পঙ্গু রাজু জানান, বাড়ির সম্পত্তি এবং বাবার পেনশনের টাকা হাতিয়ে নেয়ার আশায় বাবাকে তার চাচাতো ভাই মঞ্জুর পরামর্শে দুলাভাই ও বোন মিলে বাবাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যান। এবং বাবার কাছ থেকে সম্পত্তির আমমোক্তারনামা নেয়ার চেষ্টা করা হয়।

এদিকে ২০১৭ সালের পহেলা এপ্রিল রাজুর দুলাভাই ও বোন রাজুকে জানান তার বাবা তাদের বাড়িতে মারা গেছেন। এসময় রাজু জানতে চান কিভাবে মারা গেছেন, তার কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেননি মানিক ও রাজুর বোন। পরে রাজুকে না জানিয়ে তড়িঘড়ি করে রাজুর বাবার লাশ রাজুর দুলাভাই ও বোন মিলে তাদেরই বাড়িতে দাফন করেন।

রাজু তার বাবার মৃত্যুর খবর পেয়ে তিনি তার বাবার লাশ আনতে দুলাভাই এর বাড়িতে গেলে তাকে লাশ নাদিয়ে ফিরিয়ে দেন। এ ব্যাপারে রাজু দক্ষিন সুরমা থানার সহযোগীতা কামনা করলে থানা থেকেও তাকে কোন সহযোগীতা করা হয় নাই বলেও রাজু জানান। তাই তিনি তার বাবার লাশ দুলাভাইয়ের বাড়ি থেকে এনে তাদের পারিবারিক কবরস্হানে দাফন করার জন্য  পুরিশ কমিশনার বরাবরে গত ৬ এপ্রিল একটি আবেদস করেন যার স্বারক নং:- ৩৬২৮/১৭।

(Visited 8 times, 1 visits today)

1 COMMENT

  1. ২০১৭ইং নয় ২০১৪ইং ২৯মার্চ থেকে আমি তালাবদ্ধ একাঘরে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে অনাহারে অর্ধাহারে থাকতে বাধ্য হয়েছি।
    গত পহেলা এপ্রিল বাবার মৃত্যূ সংবাদ আমাকে জানানো হয়নি। ২রা এপ্রিল প্রতিবেশিদের কাছ থেকে জেনে উনাদেরকে নিয়ে বাবার লাশ বাড়ীতে আনতে চাইলে আমাকে দাফনের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়।
    রাজু আহমদ
    01711348001

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here