Daily Archives: Apr 17, 2017

0 18

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: ভোটার তালিকা হালনাগাদকালে বর্তমানে যাদের বয়স ১৪ বছর তাদের তথ্য সংগ্রহ করার পরিকল্পনা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ জানান, ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি যাদের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হবে এমন নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

এক্ষেত্রে যাদের জন্ম ১ জানুয়ারি ২০০৩ বা তার আগে এই ধরনের নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করবে নির্বাচন কমিশন। সচিব জানান, ‘২০১৮ সালে যারা ভোটার হবেন তাদের তথ্য ইতোমধ্যে নেয়া আছে।

বাড়ি বাড়ি গিয়ে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি যারা ভোটার হবে তাদের তথ্য নেয়ারও পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে। তথ্য আগে থেকে নিলেও ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার পরই তারা ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হবেন। অবশ্যই জুন বা জুলাই থেকে ভোটারদের তথ্য নেয়া শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, আগেভাগে তথ্য নিয়ে রাখলেও প্রতি বছর ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করার প্রয়োজন পড়বে এবং আইন অনুযায়ী ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে হবে।

সচিব বলেন, ‘হালনাগাদের সময় সবাইকে পাওয়া যায় না। যারা বাদ পড়ে যাবে তাদেরকেও তো সুযোগটা দিতে হবে। তিনি বলেন, ‘বছরের প্রতিটি দিনই ভোটার হওয়া যায়। যেকোনো দিন যেকোনো ভোটার যোগ্য নাগরিক সংশ্লিষ্ট উপজেলা বা থানা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ভোটার হতে পারেন। আমরা এ কাজ করতে ধারাবাহিকভাবে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।

২০০৮ সালে ছবিসহ ভোটার তালিকা কার্যক্রমের পর ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই থেকে প্রথমবারের মতো ১৮ বছরের কম বয়সীদের তথ্য নেয় কমিশন। তখন যাদের জন্ম ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে এই ধরনের ১৫ বছর বয়সী নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করেছিল ইসি।

দেশে বর্তমানে ১০ কোটি ১৭ লাখ ভোটার রয়েছে। নির্বাচন কমিশনের আইডেন্টিফিকেশন সিস্টেম ফর ইনহ্যান্সিং অ্যাক্সেস টু সার্ভিসেস বা আইডিয়া প্রকল্পের আওতায় ১০ কোটি ভোটারকে মেশিন রিডেবল স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে।

0 0

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভুটানে অটিজমের উপর একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিতে তিন দিনের সরকারি সফরে আগামীকাল ১৮ এপ্রিল মঙ্গলবার থিম্পুর উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

ভুটানের রাজধানীতে ‘অটিজম ও নিউরোডেভেলপমেন্টাল ডিসঅর্ডার’ শীর্ষক তিনদিনের এ সম্মেলন ১৯ এপ্রিল শুরু হবে। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী ভুটানের রাজা জিগমে খেসার ন্যামগেল ওয়াংচুক ও প্রধানমন্ত্রী তেসেরিং তোবগের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম আজ ১৭ এপ্রিল রোববার এ সব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা দ্রুক এয়ারের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে আগামীকাল সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে ভুটানের রাজধানীতে প্যারো ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে পৌঁছবেন সকাল ১১টা ৩৫ মিনিটে।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ও থিম্পুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জিষ্ণু রায় চৌধুরী বিমান বন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। সে সময় তাকে আনুষ্ঠানিক খাদার (স্কার্ফ) উপহার দেয়া হবে। পরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার দেয়া হবে এবং তিনি গার্ড পরিদর্শন করবেন।

বিকেলে প্রধানমন্ত্রীকে রাজকীয় প্রাসাদে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেয়া হবে। প্রাসাদের মূল ফটকে একজন ক্যাবিনেট মন্ত্রী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন। পরে তাকে গার্ড অব অনার দেয়া হবে। প্রাসাদে ভুটানের রাজা ওয়াংচুক ও রানী জেটসান পেমার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত হবে।

এরপর দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে বৈঠকের পর বাংলাদেশ ও ভুটানের বিভিন্ন বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। প্রধানমন্ত্রী তার সম্মানে দেয়া রাজকীয় আপ্যায়ন হলে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর নৈশভোজে যোগ দেবেন। বুধবার সকালে শেখ হাসিনা রাজকীয় আপ্যায়ন হলে গেস্ট অব অনার হিসেবে ‘অটিজম ও নিউরোডেভেলপমেন্টাল ডিসঅর্ডার’ শীর্ষক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।

প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীদের সৌজন্যে দেয়া ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর ওয়েলকাম লাঞ্চে অংশগ্রহণ করবেন। বিকেলে শেখ হাসিনা টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রার অংশ হিসেবে অটিজম ও অন্যান্য নিউরোডেভেলপমেন্ট সমস্যার যথাযথ সমাধানে সক্ষমতা অর্জন শীর্ষক উচ্চ পর্যায়ের এক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করবেন। শেখ হাসিনা হেজো’তে বাংলাদেশ দূতাবাসের ভিত্তিপ্রস্তর ফলক উন্মোচন করবেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী ভুটানের রাজা ও রানীর দেয়া এক ব্যক্তিগত ভোজে যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী তার ৩ দিনের সফর শেষে বৃহস্পতিবার সকালে দেশে ফিরবেন। বাংলাদেশ ও ভুটানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যৌথভাবে এ সম্মেলনের আয়োজন করছে। এতে কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে সূচনা ফাউন্ডেশন (সাবেক গ্লোবাল অটিজম), এ্যাবিলিটি ভুটান সোসাইটি (এবিএস) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া কার্যালয়।

সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘এএসডি ও অন্যান্য নিউরোডেভেলপমেন্টাল সমস্যায় ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজের জন্য কার্যকর ও টেকসই বহুমুখী কর্মসূচি’। সম্মেলনে উদ্বোধনী ও সমাপনী অনুষ্ঠান ছাড়াও কয়েকটি কারিগরি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। সরকারি নেতৃবৃন্দ, নীতিনির্ধারক, বিশেষজ্ঞরা সম্মেলনে অটিজম সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে কৌশলগত দিক নিয়ে আলোচনা করবেন।

0 7

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: ভারতের উপর দিয়ে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে ১০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে সম্মতি জানিয়েছে বাংলাদেশ। নেপালে অনুষ্ঠিতব্য চতুর্থ বিমসটেক সম্মেলনে এ বিষয়ে সমঝোতা স্বাক্ষরিত হতে পারে।

১৭ এপ্রিল সোমবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সব কথা জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভুটান সফর উপলক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগের আমন্ত্রণে দেশটিতে আগামী ১৮ থেকে ২০ এপ্রিল সফর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দুই দেশের দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় শীর্ষ বৈঠক হবে ১৮ এপ্রিল। এই সফরে ছয়টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সেগুলো হলো বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যকার দ্বৈত কর পরিহার, কৃষি ও কৃষিজাত পণ্যমান, সাংস্কৃতিক সহযোগিতা, ভুটান কর্তৃক বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌ-রুট ব্যবহার, পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত সমঝোতা স্মারক এবং ভুটান কর্তৃক বাংলাদেশ দূতাবাস স্থায়ীভাবে নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দের চুক্তি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও জানান, থিম্পুতে ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুকের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন শেখ হাসিনা। এ ছাড়া থিম্পুতে অনুষ্ঠিতব্য ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অব অটিজম’ শীর্ষক আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন তিনি।

0 1

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর রেপ্লিকা (অবিকল প্রতিরূপ) হস্তান্তর করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। ১৭ এপ্রিল সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর হাতে রেপ্লিকা তুলে দেওয়া হয়।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে আরও জানানো হয়েছে, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছে।

উৎক্ষেপণের পর ২০১৮ সালের এপ্রিল নাগাদ এ স্যাটেলাইট বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করতে পারবে বলে আশা করছে বাংলাদেশ সরকার। ফ্রান্সের থালিস এলিনিয়া স্পেস ফ্যাসিলিটিতে এ স্যাটেলাইট নির্মাণের অধিকাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু-১’ উৎক্ষেপণ প্রকল্পের অংশ হিসেবে রাশিয়ার উপগ্রহ কোম্পানি ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে কক্ষপথ (অরবিটাল স্লট) কেনার আনুষ্ঠানিক চুক্তি ইতোমধ্যেই সম্পন্ন করেছে বাংলাদেশ সরকার। মহাকাশের ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমায় ২ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ প্রায় ২১৯ কোটি টাকায় কেনা হয়েছে এ স্লট।

এখানেই মহাকাশে ঘুরে ঘুরে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ বাংলাদেশকে সেবা দিয়ে যাবে। চুক্তি অনুসারে প্রাথমিকভাবে ১৫ বছরের জন্য অরবিটাল স্লট কেনা হয়েছে। তবে ১৫ বছর করে আরও দুবার চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। স্যাটেলাইটের মূল অংশ তৈরি, উৎক্ষেপণ, গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশন নির্মাণ ও বিমার কাজ চলছে।

এ স্যাটেলাইটে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থাকবে, যার ২০টি বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে এবং বাকিগুলো ভাড়া দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে। এ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের পর বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে ১৪ মিলিয়ন ডলার সাশ্রয় হবে বলে সরকার আশা করছে।

অনিমেষ দাস, জামালগঞ্জ, (সুনামগঞ্জ): সুনামগঞ্জের সাবেক সিভিল সার্জন ও এসআই সহ ৯ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে সুনামগঞ্জের সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে মামলাটি (স্পেশাল মামলা নং-০৬/১৭) দায়ের করেন আইনজীবী সহকারি আব্বাছ আলী।

তিনি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার পার্বতীপুর গ্রামের বাসিন্দা। আব্বাছ আলী সুনামগঞ্জ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী ও সংরক্ষিত আসনের (সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার) এমপি শামছুন নাহার বেগম শাহানা রব্বানীর আইনজীবী সহকারি (অ্যাডভোকেট ক্লার্ক) পদে রয়েছেন।

মামলায় সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের সাবেক মেডিকেল অফিসার ডা. আখি কৈরী, সাবেক সিভিল সার্জন ডা. নিশীত নন্দী মজুমদার, সদর মডেল থানা পুলিশের সাবেক উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. জালাল উদ্দিনসহ ৯ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার বাদি আব্বাছ আলী জানান, এলাকার প্রতিপক্ষীয় লোকজনদের সঙ্গে বিরোধ হলে ২০১৪ সালের ৮ অক্টোবর ১৯ জন আত্মীয় স্বজনসহ আমাকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন একই গ্রামের নাজিম উদ্দিন। ওই মামলায় চাহিদা পূরণে সন্তুষ্ট হয়ে বাদিকে খুশি করতে মিথ্যে ডাক্তারি সনদ (এমসি) ও মিথ্যে চার্জশীট প্রদান করেন অভিযুক্ত আসামিরা।

যার সম্পূর্ণ তথ্য-প্রমাণ আমার কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। তিনি আরও জানান, এই ভৌতিক তদন্তকে যারা সঠিক তদন্ত বলে তদারকি করেছেন তাদেরকেও আসামি আসামীভুক্ত করার দাবি জানানো হয়েছে আদালতে। বিজ্ঞ স্পেশাল জজ আদালত মামলাটি গ্রহণ করেছেন বলেও তিনি দাবি করেন। বাদীপক্ষে আদালতে মামলাটি পরিচালনা করেন এডভোকেট শহীদুজ্জামান চৌধুরী।

অনিমেষ দাস, জামালগঞ্জ, (সুনামগঞ্জ): সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জের দুই ইউনিয়ন জামালগঞ্জ সদর ও জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এ ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ইউপিতে সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। সুষ্টভাবে ইউপি নির্বাচন ২০১৭ স¤পন্ন করা হয়েছে। অন্যদিকে, জামালগঞ্জের দুই ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনে ২০টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হয়।

এই দুই ইউনিয়নে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরিচালনায় বিশেষ নিরাপত্তায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী র‌্যাব, বিজিবি, স্ট্রাইকিং ফোর্স, মোবাইল টিম দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও প্রত্যেক কেন্দ্রের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ১৪ জন করে আনসার-ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করে। ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্য মোতায়েন করা হয়।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, ভোটার তালিকা অনুযায়ী ২নং জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৮৭১৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৯৩০৫ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ৯৪১৪ জন।

জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১২ জন প্রতিদ্বন্ধিতা করেন এর মধ্যে জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নে আনারস প্রতীক সাজ্জাদ মাহমুদ তালুকদার (সাজিব) ভোট পেয়েছে ৩৩৭৭ টি, প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চশমা প্রতীকে মতিউর রহমান (মতি) ভোট পেয়েছেন ৩১৮১ টি, মোট ১৯৬ টি ভোট বেশী পেয়ে আনারস প্রতিক সাজ্জাদ মাহমুদ তালুকদার (সাজিব) নির্বাচিত হয়েছেন।

  অপর দিকে নবগঠিত ৬ নং জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৪৭৮৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ সংখ্যা ৭৪৯১ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ৭২৯৫ জন। জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর মধ্যে নবগঠিত ৬ নং জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়নে মোটর সাইকেল প্রতিকে মো. রজব আলী ভোট পেয়েছেন ২৮৩৮ টি, প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নৌকা প্রতীকে এম নবী হোসেন ভোট পেয়েছে ২৬৪০ টি, মোট ১৯৮টি ভোট বেশী পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: ধ্বংসের মুখে পড়েছে কোম্পানীগঞ্জের ধলাই ব্রিজ। ধলাই নদির তীর আর ব্রিজের চারিপাশ ঘিরে যন্ত্র দানব বোমা মেশিনের অবাধ ব্যবহারের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জের ভোলাগঞ্জ কোয়ারীতে পাথর উত্তোলনের ক্ষেত্রের কোন বিধি নিষেধ মানা হচ্ছেনা।

অতিতের কিছু সংখ্যক ব্যবসায়িরা আইন-কানুন উপেক্ষা করে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করে গেছেও বর্তমানে তার ব্যাতীক্রম অবস্থা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক ব্যক্তি জানান, এতদিন বোমা মেশিনের নেতৃত্ব দিতো পাথর ব্যবসায়ীরা আর এখন নেতৃত্ব দিচ্ছে কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলতাফ হোসেন।

তার নেতৃত্বে বন্ধ থাকা বোমা মেশিন আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে পাথর সাম্রাজ্যখ্যাত ভোলাগঞ্জের ধলাই নদী। আজ হুমকির মুখে ধলাই ব্রীজ। নষ্ট করে দেয়া হচ্ছে আশপাশের পরিবেশ। অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে জনজীবন। ওসি আলতাফ মানছেন না উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা, খনিজ মন্ত্রনালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ইমরান আহমদের নির্দেশনা।

এমনকি তোয়াক্কা করছেন না পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিষেধ। সহায়তা করছেন না বোমা মেশিনের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযানেও। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় উত্তোলনে দেশের প্রচলিত আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুঁলী প্রদর্শন করে তিনি একদল পাথর খেকো চক্রের সাথে হাত মিলিয়ে প্রতি রাতে লক্ষ টাকার রফাদফার মাধ্যমে বোমা মেশিন দিয়ে লুটপাট করাছেন কোটি টাকার পাথর।

ওসি তার নিজস্ব ও থানার বিশ্বস্ত অফিসার দিয়ে উত্তোলন করাছেন তার অংশের বিপুল অংকের টাকা। যারা টাকা দিতে অপারগতা স্বীকার করে তাদের হাতকড়া পড়িয়ে থানায় নিয়ে আসা হয়। অতঃপর তাদের আত্বীয়-স্বজনের কাছ থেকে টাকাকরি আদায় করে ছেড়ে দেওয়া হয় তাদের। জানা যায়, প্রায় মাস খানেক আগে ভোলাগঞ্জের ধলাই নদীতে আবারো রাতের অন্ধকারে ওসির নেতৃত্বে শুরু হয় নতুন রূপে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর লুটপাট।

প্রায় ১৫০/১৬০টি বোমা মেশিন প্রতিদিন সন্ধার পর হতে সকাল সাতটা পর্যন্ত নদী গর্ভের ২০০/২৫০ ফুট নীচ হতে পাথর উত্তোলন করে থাকে। যা সম্পূর্ণ বেআইনী। প্রতিটি বোমা মেশিন হতে পাঁচ হাজার টাকা করে দিতে হয় ওসি আলতাফকে। প্রতিদিন রাতের অন্ধকারে থানার সাব-ইন্সপেক্টর আরিফ উল্লাহ ও থানার নৌকার মাঝি শফিক ইঞ্জিন নৌকা নিয়ে প্রতিটি বোমা হতে ওসির নামে পাঁচ হাজার টাকা করে উত্তোলন করে থাকে।

এ প্রতিবেদককে সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর থানার ভাতের টেক গ্রামের মৃত শহিদ মিয়ার ছেলে পাথর শ্রমিক তাজুল ইসলাম জানান, প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল সোমবার গভীর রাতে ওসির নামের চাঁদা উত্তোলন করতে যায় এস আই আরিফ উল্লাহ ও মাঝি শফিক।

ওই রাতে ওসিকে পর্যাপ্ত পরিমান টাকা না দেয়ায় ওসি আলতাফের নির্দেশে উপজেলার পাড়ুয়া লামাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আনসার উদ্দিন জিলানী, আব্দুল মুমিন, ফয়েজ, অজ্ঞাতনামা আরো একজনসহ আমাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসার পথে জিলানীকে পনেরো হাজার টাকার বিনিময়ে মধ্যপথে ছেড়ে দেয় এস আই আরিফ উল্লাহ।

পরে তাদের থানায় নিয়ে আসার পর আমার কাছ থেকে বিশ হাজার, আব্দুল মুমিন ও ফয়েজের কাছ থেকে বিশ হাজার এবং অজ্ঞাতনামা একজন ব্যক্তি হতে পনেরো হাজার টাকা নিয়ে ওসি আলতাফ হোসেন নিজেই আমাদের ছেড়ে দেয়। শুধু তাই নয় ওই রাতে কয়েক ড্রাম ডিজেল, ব্যাটারীসহ মূল্যবান জিনিসপত্রও নিয়ে আসে এস আই আরিফ।

উৎকোচের মাধ্যমে আমাদেরকে ছেড়ে দেয়া হলেও সাথে আনা কয়েক ড্রাম ডিজেল, ব্যাটারীসহ অন্যান্য জিনিসপত্র রেখে দেয়া হয় থানায়। কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলতাফ হোসেনের এহেন কার্যকলাপে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন উপজেলাবাসী। তারই পাশাপাশি সুশীল সমাজ হয়ে পড়েছেন নির্বাক।

অফিসার ইনচার্জ আলতাফ হোসেনের কাছে বোমা মেশিনের মাধ্যমে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথেও অসৌজন্যমূলক আচরন করে থাকেন তিনি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ বলেন, বোমা মেশিনে পাথর উওোলনে উচ্চ আদালত, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, খনিজ মন্ত্রনালয়সহ স্থানীয় সংসদ সদস্য হিসেবে আমারও নির্দেশনা ছিলো বোমা মেশিন না চালানোর জন্য।

এত কিছুর পরও কিভাবে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন হয় তা আমার বোধগম্য নয়। আপনারা সাংবাদিকরা সেখানকার সঠিক চিত্র তুলে ধরেন তা আমি চাই। আপনারা আপনাদের দায়িত্ব পালন করেন। আর আমার কাজ আমি করছি। সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি কামরুল আহসান এ বিষয়ে বলেন, আমরা জানি বোমা মেশিন পরিবেশ নষ্টের জন্য ভয়ংকর।

তারপরও কিভাবে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন হচ্ছে তা অবশ্যই আমি খতিয়ে দেখবো। বোমা মেশিন সংক্রান্ত বিষয়ে মুঠোফোনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, আমার অফিসে আসেন এ বিষয়ে কথা বলবো। আপনি বিষয়টি জেলা প্রশাসক মহোদয়কে অবগত করুন। আর যদি বোমা মেশিন চলে দয়া করে আমাকে জানাবেন।

সিলেট জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন সম্পুর্ণরূপে অবৈধ। বোমা মেশিনের তান্ডব-লীলায় আশপাশের কয়েকটি গ্রামের পরিবেশ হুমকির মুখে থুবড়ে পড়েছে। যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে সেখানে কি করে বোমা মেশিন চালানো হচ্ছে।

দূষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে আমি মনে করছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আবুল লাইছ বলেন, আমি যোগদান করার পর থেকে অবৈধ বোমা মেশিনের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি।

কিন্তু অভিযানকালে থানা পুলিশের পক্ষ হতে কোন ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছিনা। তবে বোমা মেশিনের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে ও থাকবে। এ বিষয়ে অফিসার ইনচার্জ আলতাফ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাকে মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি।

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: আমেরিকান বধূ রোহিনা এখন জেল-হাজতে। একসঙ্গে দুই স্বামীর সংসার করা রোহিনার ছলনার কথা সিলেট জুড়ে। রোহিনার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করেছেন তার এক স্বামী রাসেল আহমদ।

এর আগে রোহিনার আরেক স্বামী কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা করেছিলেন রোহিনার পিতা নইম উদ্দিন। আমেরিকান প্রবাসী রোহিনা বেগম। বাড়ি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার বগাইয়া গ্রামে।

বাসা সিলেট নগরীর উপশহরে। রোহিনার আপন  চাচাত ভাই রাসেল আহমদ। তিনি বসবাস করেন নিজ বাড়ি গোয়াইনঘাটের বগাইয়া গ্রামে। আর রোহিনার তালতো ভাই কামরুল ইসলামের বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জের খাটখাই গ্রামে।

কামরুল রোহিনার বড় ভাই শিবলু আহমদের সম্পর্কে শ্যালক। ঘটনার সূত্রপাত চার মাস আগে। আমেরিকা থেকে রোহিনাকে সঙ্গে নিয়ে দেশে আসেন পিতা নইম উদ্দিন। এ সময় রোহিনার মা ও ভাবি দেশে আসেন। তারা নগরীর উপশহরের বাসায় উঠেন। দেশে আসার পর রোহিনার বড় ভাই পাত্রী পছন্দ করে বিয়ে করেন।

এরপর আসে রোহিনার পালা। নইম উদ্দিন নিজের স্বজনদের সঙ্গে রোহিনার বিয়ে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেন। কিন্তু সাড়ে ৩ মাস আগে রোহিনা বেগম তারই আপন তালতো ভাই গোলাপগঞ্জের কামরুল ইসলামের সঙ্গে গোপনে ঘর ছাড়ে। কামরুলকে বিয়েও করে। এরপর তারা অজ্ঞাত স্থানে বসবাস করে ঘর সংসার করছিলেন।

কিন্তু রোহিনা পালিয়ে যাওয়ার পর ক্ষুব্ধ হন পিতা নইম উদ্দিন। তিনি রোহিনাকে অপহরণ করা হয়েছে দাবি করে সিলেটের কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেন। এ নিয়ে থানা-পুলিশ দৌড়ঝাঁপ শুরু করলে আত্মীয়-স্বজন এসে এতে হস্তক্ষেপ করে। ওই সময় আমেরিকা থেকে দেশে ফিরে আসেন রোহিনার বড় ভাই ও কামরুলের বোনের জামাই শিবলু আহমদ।

পরে অপহরণ মামলা প্রত্যাহার করা হবে মর্মে সমঝোতার মাধ্যমে রোহিনা ফিরে আসে পিতা নইম উদ্দিনের কাছে। ১৩ই মার্চ রোহিনা সিলেটে নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে কামরুলকে ডিভোর্স দেন। ওই ডিভোর্সে রোহিনা স্বীকার করেছেন- ‘কামরুল আমাকে ভুল বুঝিয়ে সাদা স্টাম্পে দস্তখত নেয়। সে আমার ক্ষতির জন্য গত ১২ই ডিসেম্বর জোরপূর্বক হলফনামায় স্বাক্ষর নেয়।

রোহিনার ডিভোর্সের পত্র কামরুলও গ্রহণ করেন। এখন নতুন করে তার বিয়ের কথাবার্তা শুরু হয়। নতুন বর তারই আপন চাচাতো ভাই রাসেল আহমদ। পারিবারিক সম্মতিতে তাদের বিয়ের কথা বার্তা চূড়ান্ত হয়। দুই পরিবারের সম্মতিতে নইম উদ্দিন গত ২২শে মার্চ রোহিনাকে তার আপন ভাতিজা রাসেলের সঙ্গে নগদ ১০ লাখ টাকা মোহরানা সাব্যস্ত করে বিয়ে দেন।

আর ওই বিয়ের পর পরই রোহিনার পিতা নইম উদ্দিন সিলেটের কোতোয়ালি থানায় কামরুল ও তার পরিবারের লোকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা অপহরণ মামলা প্রত্যাহার করে নেন। রাসেলের স্বজনরা জানিয়েছেন- রাসেল ও রোহিনার বিয়েতে সব আত্মীয় স্বজন উপস্থিত ছিলেন। দুটি গরু জবাই করে গ্রামের লোকজনকেও দাওয়াত দিয়ে খাওয়ানো হয়।

এছাড়া বিয়েতে রোহিনাকে ৮ ভরি স্বর্ণালংকার দেয়া হয়। রাসেলের সঙ্গে রোহিনার বিয়ের পর নইম উদ্দিন স্ত্রী, সন্তানসহ সবাইকে নিয়ে আমেরিকা চলে যান। ওদিকে রাসেল ও রোহিনার সাংসারিকপর্ব শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুন ফন্দি আটেন কামরুল ইসলাম। তিনি রোহিনাকে তার নিজের স্ত্রী দাবি করে আদালতের শরণাপন্ন হন।

কামরুল আদালত থেকে সার্চ ওয়ারেন্ট নিয়ে ৪ঠা এপ্রিল ছুটে যান গোয়াইনঘাট থানায়। সেখান থেকে পুলিশ নিয়ে তিনি হানা দেন রাসেলের বগাইয়া গ্রামের বাড়িতে। ওই দিনই বিকালে রোহিনাকে পুলিশ রাসেলের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। ৫ই এপ্রিল পুলিশ রোহিনাকে জুডিশিয়াল আদালতে হাজির করে।

আদালতে কামরুলের আইনজীবী রোহিনাকে দাবি করেন কামরুলের স্ত্রী আর রাসেলের আইনজীবী রোহিনাকে দাবি করেন রাসেলের স্ত্রী হিসেবে। এ সময় আদালতে উভয়পক্ষই তাদের স্বপক্ষের কাগজপত্র উপস্থাপন করেন। ফলে রোহিনাকে নিয়ে টানাটানি শুরু হওয়ায় আদালত রোহিনাকে পাঠিয়ে দেন সিলেটের বাগবাড়িস্থ নিরাপত্তা হেফাজতে।

জুডিশিয়াল আদালতের পর কামরুল রোহিনাকে আদালত থেকে ছাড়িয়ে নিতে জজ আদালতে আপিল করেন। বৃহস্পতিবার সিলেটের জজ আদালতেও রোহিনাকে নিয়ে শুনানি হয়। ওই আদালতও রোহিনাকে নিরাপত্তা হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন। আইনজীবীরা জানিয়েছেন আদালতে উভয়পক্ষের আইনজীবীরা রোহিনার তিনটি পাসপোর্টের ফটোকপি দাখিল করেছেন। এরমধ্যে দুটি পাসপোর্ট আমেরিকার এবং একটি বাংলাদেশের। রোহিনা এবার দেশে এসে এই পাসপোর্ট তৈরি করে।

এ কারণে রোহিনাকে নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হওয়ায় আদালত তাকে নিরাপত্তা হেফাজতে রেখে দিয়েছেন বলে জানান আইনজীবীরা। রোহিনার স্বামী রাসেল আহমদ ১২ই এপ্রিল সিলেটের গোয়াইনঘাট থানায় রোহিনাসহ চারজনের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় আসামি করা হয়েছে গোলাপগঞ্জের খাটখাই গ্রামের মোশাহিদ আলীর ছেলে কামরুল ইসলামকে।

এছাড়া, মামলায় রোহিনার বড় ভাই শিবলু আহমদ, তার স্ত্রী লাকী বেগমকেও আসামি করা হয়েছে। রাসেল আহমদ গতকাল মানবজমিনকে জানিয়েছেন- ‘রোহিনা ও আমার বিয়েতে কামরুল ইসলাম নিজেও উপস্থিত ছিলো। সে তখন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। কিন্তু রোহিনার পিতা আমেরিকা চলে যাওয়ার পর সে কূটকৌশল শুরু করে।’ তিনি বলেন- ‘রোহিনা কামরুলকে ডিভোর্স দিয়ে তাকে বিয়ে করেছে। সুতরাং রোহিনার বৈধ স্বামী এখন তিনিই।’-মানবজমিন

0 4

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: নিখোঁজ হওয়া বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক জননেতা এম. ইলিয়াস আলীর সন্ধান চেয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে সিলেট জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মারকলিপি প্রদান করেছে সিলেট জেলা বিএনপি।

সোমবার দুপুর ১২টায় সিলেটের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি গ্রহন করেন সিলেট এর জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার।

জননেতা এম ইলিয়াস আলী গুমের ৫ বছর পূর্ণ হওয়ায় ইলিয়াস আলী সহ গুমকৃত সকল নেতাকর্মীদের অক্ষত অবস্থায় পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবীতে ধারাবাহিক কর্মসুচী ঘোষনা করে সিলেট জেলা বিএনপি।

কর্মসুচীর অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী এই স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া জেলা বিএনপির উদ্যোগে কাল মঙ্গলবার বাদ আসর দরগাহে হযরত শাহজালাল (র.) মসজিদ প্রাঙ্গনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান কালে উপস্থিত ছিলেন- সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক এডভোকেট নুরুল হক, মহানগর সাধারন সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, জেলা সাধারন সম্পাদক আলী আহমদ, জেলা যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট হাসান আহমদ পাটোয়ারী রিপন, বিএনপি নেতা একেএম তারেক কালাম, হাজী শাহাব উদ্দিন, জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান,  যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান, বিএনপি নেতা লিলু মিয়ার চেয়ারম্যান, এডভোকেট ফয়জুর রহমান জাহেদ, মুফতী নেহাল উদ্দিন, এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, এডভোকেট আনোয়ার হোসেন, আবুল কাশেম, শামীম আহমদ, জেলা ছাত্রদল সভাপতি সাঈদ আহমদ, বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী মেম্বার, এডভোকেট কামাল হোসেন, ময়নুল হক, এডভোকেট আল আসলাম মুমিন, আল মামুন খান, লায়েছ আহমদ, এডভোকেট মামুন আহমদ রিপন, মকবুল আলী, বদরুল ইসলাম আজাদ, আজির উদ্দিন আহমদ, শাহেদুল ইসলাম বাচ্চু, আব্দুল মান্নান, আব্দুল ওয়াহিদ, চৌ মো; সুহেল, ফখরুল ইসলাম, বুরহান উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা লোকামান আহমদ, নেছার আলম শামীম, বেলাল আহমদ, এডভোকেট ফখরুল হক, হাবিবুর রহমান হাবিব, এনামুল হক বাচ্চু, সাঈদুর রহমান সাঈদ, হাজী গোলজার আহমদ, রফিকুল ইসলাম, জঈন উদ্দিন মেম্বার, মনিরুল ইসলাম তুরন, মুহিবুর রহমান, হানুর ইসলাম ইমন, মিজানুর রহমান নেছার, সৈয়দ সারোয়ার রেজা, আলতাফ হোসেন সুমন, সাইফুল ইসলাম, ফখরুল ইসলাম রুমেল,  এম. এ মালেক, মকসুদুল করিম নোহেল, আব্দুল মালেক মেম্বার, ফখর উদ্দিন, জমির উদ্দিন, আজাদ মিয়া, দেলোয়ার হোসেন, এডভোকেট তাজ উদ্দিন মাখন, এডভোকেট তাজরিয়ান জামান, এডভোকেট ইসরাফিল আলী, এডভোকেট তানভীর আক্তার খান, এডভোকেট ওবায়দুর রহমান ফাহমী, দিদার ইবনে তাহের লস্কর, আলী আকবর, তৈয়বুর রহমান, খবির উদ্দিন নুনু, সাহাব উদ্দিন সাবু, জামাল আহমদ, কয়েস আহমদ সাগর, সালেক আহমদ, জুয়েল আহমদ, মো: আতিক, আলম আহমদ, ইউনুছ আলী, দুলাল মিয়া, সাহেল আহমদ, রায়হান আহমদ, জাহাঙ্গীর আলম বাবুল, মোবারক হোসেন তুহিন, সোহেল ইবনে রাজা, রাসেল আহমদ, কামরান আহমদ, মাসুম পারভেজ, জহিরুল ইসলাম রাসেল, সুহেদুল ইসলাম সুহেদ, আলী আকবর রাজন, মজনুর রহমান, এডভোকেট মোবারক হোসেন রনি, সাদিকুর রহমান সাদিক, আব্দুল করিম জোনাক, আব্দুল মুহিম, সাবুল আহমদ, সাকিব আল আব্দুল্লাহ, অঞ্জন দাস অঞ্জন, শামসুদ্দিন শুভ, আজহারুল ইসলাম খান সামি, সাদিকুর রহমান সাদিক, পাবেল আহমদ, ফয়জুর রহমান সাজু ও হেলাল আহমদ প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি

সিলেটের সংবাদ ডটকম: ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের দুই সাংবাদিক নেতার ওপর হামলাকারীদের বিশ্ববিদ্যালয় ও  ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কারসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান সাংবাদিকদের সংগঠন ‘শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা।

সোমবার সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ইমাম হাসান মুক্তির সভাপতিত্বে এবং চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের ফারুক মেহেদী ও এসএ টিভির মুস্তফা মনওয়ার সুজনের যৌথ পরিচালনায় মানববন্ধনের পর বিক্ষোভ সমাবেশ হয়।

সমাবেশে বক্তারা সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় শাবি ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি সঞ্জিবন চক্রবর্তী পার্থসহ জড়িত নেতাকর্মীদের সর্বোচ্চ শাস্তির পাশাপশি বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানান।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক শাহানা শিউলি, ঢাকাস্থ নোয়াখালী সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান রুবেল, আরটিভির ফারুক খান, শাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলী আশরাফ কবীর, সমকালের রমাপ্রসাদ বাবু, যুগান্তরের নাঈমুল করীম নাঈম ও আবু তাহের টোটন।

কর্মসূচিতে সংহতি জানান, জাতীয় প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী, ডিআরইউর সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, এনজেএফ’র সহ সভাপতি ফিরোজ আলম মিলন ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মওদুদ আহেম্মেদ সুজন।

উপস্থিত ছিলেন, শাবি প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সাঈদ আবদুল্লাহ যীশু, আলোকিত বাংলাদেশের মো. জাহিদুল ইসলাম, বাংলা নিউজের তাহজীব হাসান, যুগান্তরের গাজী সাদেক, শাবি প্রেসক্লাবের বর্তমান সভাপতি জাবেদ ইকবাল ও সাবেক সদস্য সচিব কাজী রাকিন, সাংবাদিক এমইউ শিমুল, শেয়ার বিজের হাসান আদিল প্রমুখ।

0 448
গত ১০ এপ্রিল ২০১৭ইং তারিখে সিলেটের সংবাদ ডটকমে ‘সিলেট নগরীতে সেনা কর্মকর্তা লাঞ্ছিত : গ্রেফতার চার ছাত্রলীগ নেতাকে রিমান্ডের আবেদন’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত...

0 1469
সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন সিলেট মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তির। তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না...