বানিয়াচংয়ে ফসলহানীর কারণে দূর্ভীক্ষের আশংকা : তীব্র গো খাদ্যের সংকট

0
183

শফিকুল হক চৌধুরী, (বানিয়াচং): হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার হাওরে বছরে একবারই বোরো ফসল হয়। অকাল বন্যায় ফসল হানীর কারণে কৃষকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে আতংক।

এ বোরো ফসলের উপরই নির্ভর হাওর তীরের মানুষের। এবার এক মুঠো ধান না পাওয়াই দূর্ভিক্ষের আশংকা দেখা দিয়েছে। ইতি মধ্যে মহাজনের দেনা  শোধ ও খাদ্য সংগ্রহের জন্য গবাদী পশু বিক্রির হিড়িক পড়ে গেছে।

হাওরাঞ্চলে গবাদি পশুর একমাত্র খাদ্য ধানের খড় (বন)। ধান অকাল বন্যায় তলিয়ে যাওয়ায় গো খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। উপজেলায় প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আবুল কাশেম জানান উপজেলায় ৬৮হাজার ৫শ৭টি গরু ও ৫শ৭টি মহিষ রয়েছে। তীব্র খাদ্য সংকটের কারণে কিছু দিনের মধ্যেই গবাদিপশুর মড়ক দেখা দিবে।

পূর্বগড়ের মাশুক মিয়া তার এক মাত্র গরুটি দেনার কারণে বিক্রি করে দিয়েছেন। কামালখানী গ্রামের মোহাদ্দিছ মিয়া ২৫বিঘা জমি বর্গা করেছিলেন। কিন্তু জমি তলিয়ে যাওয়া দেনার কারণে দিশেহারা হয়ে শখের গাভীটি বিক্রি করে দিয়েছেন। হাওরাঞ্চলের চতুর্দিকে হা হা কার।

এদিকে বানিয়াচংকে দুর্গত এলাকা ঘোষনার দাবী জানিয়েছেন উপজেলা চেয়াম্যান শেখ বশির আহমেদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন খানঁ, আওয়ামীলীগের সভাপতি আমির হোসেন, ১নং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন, ২নং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওয়ারিশ উদ্দিন খানঁ, ৩নং ইউ/পির চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, ৪নং ইউ/পির চেয়ারম্যান রেখাছ মিয়া, মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি মোশাহিদ মিয়া, হিন্দু বিবাহ রেজিষ্ট্রার জেলা কমিটির সেক্রেটারী দিপক কুমার ঘোষ ও  বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here