কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের কাছে আরেক জাকিরের কিছু প্রশ্ন?

1
2030

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সাধারণ সম্পাদক জনাব এস. এম জাকির হোসাইন এর কাছে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কর্মী জাকির আহমদ কিছু প্রশ্ন রেখে একটি বার্তা পাঠিয়েছেন সিলেটের সংবাদ ডটকম এর কাছে।

সোমবার তিনি এ বার্তাটি পাঠান। আমরা পাঠকদের জন্য জাকির আহমদের পাঠানো কার্তাটি হবুহু তুলে ধরলাম:-

গতকাল বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সিলেট জেলা শাখার সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সম্মেলন হয়নি।  এই নিয়ে তিনবার কেন্দ্র থেকে তারিখ ঘোষনা করা হলো কিন্তু সম্মেলন আর হলো না।

তাই সম্মেলন না হওয়া নিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কার্যনির্বাহী সংসদের সাধারণ সম্পাদক জনাব এস. এম জাকির হোসাইন এর কাছে আমার কয়েকটি প্রশ্ন। এস.এম জাকির হোসাইন, আপনার কি মনে আছে ৪ জুলাই ২০১৫ সালে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলনের সময় আপনি সিলেট এসেছিলেন,  তখন কেউ আপনার সাথে সেল্ফি তোলতে মরিয়া ছিল না, লাইন ধরে ভাই ভাই বলার জন্যে দাড়িয়ে ছিল না।

আপনি নিতান্তই একজন সাধারণ কর্মীর মতো সময় অতিবাহিত করেছিলেন। এখন এই গত দুই বছরের মধ্যে আপনি সব হয়েছেন।  প্রিয় ভাই, প্রিয় নেতা, সিলেট রত্ন, সারাবাংলার ছাত্রসমাজের অহংকার, মেধাদীপ্ত ছাত্ররাজনীতির অহংকার ইত্যাদি সুবচন আপনার নামের সাথে সংযুক্ত হচ্ছে। কারণ কি জানেন?

কারণ হলো জাতির জনকের নিজ হাতে গড়া দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে আপনি আসীন। ছাত্রলীগের সুশৃঙ্খল  বলিষ্ট নেতৃত্বের ইতিহাস আপনাকে সারাদেশের বিশেষ করে আপনি সিলেটী হওয়ায় সিলেটের ছাত্রলীগ কর্মীদের কাছে আপনি আজ এতটা গুরুত্বপূর্ণ। সংগঠনের সকল কর্মীর আস্তা, বিশ্বাস আপনার প্রধান শক্তি।

আপনার দিকনির্দেশনায় ছাত্রলীগ দেশের কল্যাণে অসংখ্য নেতা কর্মীদের  সাথে নিয়ে তার ঐতিহ্যের পথে হাঠবে। আপনার সিদ্বান্ত হবে বুদ্ধিদীপ্ত সময়োচিত সিদ্বান্ত। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আপনার গৃহীত সিদ্বান্ত  পালনের মাধ্যমে সকল ইউনিট সংগঠনের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করবে।  আপনার সিদ্বান্ত উপেক্ষা করার ইখতেয়ার নাই।

কিন্তু আপনি  এই নিয়ে তিনবার সিলেট জেলা ছাত্রলীগকে সম্মেলন আয়োজন করার  নির্দেশ দিলেও বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে সম্মেলন আয়োজিত হয়নি। ছাত্রলীগের যখন চরম দুঃসময় ছিল তখনও তিনবার সম্মেল পিছানোর কোন ইতিহাস আমার জানা নাই। তাহলে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকা কালীন এবং আপনি সাধারণ সম্পাদক থাকা সত্তেও কেন আপনার নিজ জেলার সম্মেলন বারবার ব্যর্থ হচ্ছে?

সিলেট জেলা ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের আহ্বানে কেন কোন ধরনের আগাম প্রস্তুতি নেয় না? কোন শক্তি তাদের এমন  দুঃসাহস দিচ্ছে? বাংলাদেশ ছাত্রলীগ একটি সতন্ত্র ছাত্র সংগঠন। বিদ্যানন্দিনী জননেত্রী শেখ হাসিনা ব্যতীত অন্য যেকারো ছাত্রলীগে হস্তক্ষেপের অধিকার নাই। সারা বাংলাদেশের ছাত্রলীগে নিয়ন্ত্রণ করবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদ।

সরকারের কোন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী,প্রতি-মন্ত্রী কিংবা কোন এম.পি ছাত্রলীগের কমিটি প্রদান করতে অথবা কমিটি গঠনে কোনরকম প্রভাব বিস্তার করতে পারবেননা, যা গত কয়েকদিন পূর্বে আপনার কেন্দ্রীয় সংসদের বিবৃতি থেকে স্পট হয়েছে। কোন প্রভাবশালী মন্ত্রী  সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন না হওয়াকে প্রভাবিত করচ্ছেন নাতো?

আপনি সবসময় বলেন ছাত্ররাই ছাত্রলীগ করবে কিন্তু সিলেট জেলা ছাত্রলীগের অনেক পদধারী নেতার বিরুদ্ধে এমনকি স্বয়ং সভাপতি বিবাহিত এমন তকমা  সহ চাঁদাবাজ, খুনি, অছাত্র এবং আরো প্রমাণিত নানান অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও  মেয়াদবিহীন কমিটির বিরুদ্ধে কেন কোন সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে না? সম্মেলন আয়োজনে ব্যর্থ হলেও কেন সভাপতি- সাধারণ সম্পাদককে তলব করা হচ্ছে না? সম্মেলন আয়োজন করতে না পারলেও সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সম্পাদককে হাস্যউজ্জল মুখে আপনার সাথে দেখা যায়।

এটা কি প্রমাণ করে আপনি কোন কারনে তাদের কাছে দায়বদ্ধ? সম্মেলন আয়োজন না করায় সিলেট জেলা ছাত্রলীগের যদি  কোন ব্যর্থতা না থাকে তাহলে কেন কেন্দ্রীয় সংসদ সময় পর্যালোচনা না করে বারবার তারিখ নির্ধারণ করেন? আর বারবার এই ব্যর্থতা কি কেন্দ্রীয় সংসদের দূর্বলতা প্রকাশ করচ্ছে না?

বি:দ্রঃ এই লেখার দায়ভার সম্পূর্ণ দায়ভার আমার। একজন ছাত্র হিসাবে বা একজন ছাত্রলীগ কর্মী হিসাবে উপরোল্লেখিত কথাগুলো বলার অধিকার আমার আছে বলে আমি করি। লেখক:- জাকির আহমদ। স্নাতক শেষবর্ষ। সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, এম.সি কলেজ। এবং সদস্য সিলেট জেলা ছাত্রলীগ।

(Visited 45 times, 1 visits today)

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here