তুরস্কে টাকা আত্মসাৎ করে সিলেটে আলিশান বাড়ির মালিক তিনি (পর্ব-১)

0
1661

সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ:: সিলেট হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ থানার বর্তমানে সিলেট শাপলাবা ৩নং রোডের রিপন মঞ্জিলের বাসিন্দা রিপন আহমদের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। একটি সুত্র থেকে জানা যায়, পেটের দায়ে চোরাই পথে তুরস্কে গিয়ে মানব পাচার চক্রের সাথে জড়িয়ে পড়েন রিপন।

এবং রাতারাতি কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়ে যান। এবং ঐ টাকা দিয়ে সিলেট শাপলাবাগ এলাকার ৩ নং রোডে তার নামে একটি আলিশান বাসা বানিয়ে তাতে বসবাস করে আসছেন। যার নাই সিলেট শহরে একটিও পানের দোকান, সে কিভাবে এতো টাকার মালিক ও এতো বড় বাসা বানিয়ে তাতে রয়েছে তা নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে আলোচনা।

নবীগঞ্জ থানার হত্যা মামলার আসামী (বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন) কি করে সিলেট এসে এতো টাকার মালিক হলেন তা খতিয়ে দেখতে দুদকের এগিয়ে আসা উচিৎ বলে অনেকে মনে করছেন। তুরস্কে থাকাকালিন তার অপরাধের জন্য সে আটক হয়ে ৬ বছরের জেল খেটে বের হয়ে আসে।

যা কিনা তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ফাতিহ থানায় তার ফিংগার প্রিন্ট এখনও রয়েছে বলেও সুত্রটি নিশ্চিত করেছে। এরপর সে বেশ কিছদিন নিজেকে আড়াল রাখে। ২০১৪ সালের দিকে ফের রিপন তুরস্কে গিয়ে এসব কাজ শুরু করলে তার বিরুদ্ধে ফাতিহ থানায় অভিযোগ করা হলে সে দেশে চলে আসে।

এবং ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে তার ডিজিটাল পাসপোর্টের উপর সরকারি পাসপোর্টের কাভার লাগিয়ে অন্য নামে ভারত হয়ে ফের তুরস্কে যায়। এবার সে শুরু করে গ্রীস, ইতালী, লিবিয়াসহ বিভিন্ন দেশে মানবপাচার। আর সে জন্য তার কাছে অনেকে নির্যাতিত হয়েছেন। তুরস্কে অবস্হান করে সে যাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে তাদের মধ্যে গাজীপুরের সুমন চৌধুরী, ছাতকের মনির, গোলাম মোস্তফাসহ বেশ কয়েকজন রয়েছেন। আগামী পর্বে বিস্তারিত পড়ুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here