বাহুবলিকে মারার কারণ নিজের মেয়েকেও বলেননি ‘কাটাপ্পা’!

0
240

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: বাহুবলি সিনেমার প্রথম পর্ব থেকেই একটা গোপনীয়তার ব্যাপার দর্শকরা লক্ষ্য করছেন। আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তার পর তারা এ সিনেমার সিক্যুয়াল তৈরি করেন। ‘বাহুবলি-২’ রিলিজের আগে থেকেই এই সিনেমা সম্পর্কে বিরাট প্রত্যাশা তৈরি হয়েছিল দর্শকদের মনে।

আসলে সিনেমার প্রথম ভাগে কাটাপ্পার হাতে মরতে হয়েছিল বাহুবলীকে। কিন্তু কেন কাটাপ্পা বাহুবলীকে মারল? সেই প্রশ্নের উত্তর প্রথম ভাগে মেলেনি। প্রোডাকশন হাউজের তরফে প্রচার করা হয়েছিল যে, সিনেমার দ্বিতীয় ভাগে মিলবে সেই প্রশ্নের উত্তর।

এই সাসপেন্সই প্রকৃত অর্থে ‘বাহুবলি ২’ সিনেমার জনপ্রিয়তার চাবিকাঠি। ‘বাহুবলী’র প্রথম ভাগ দেখার পর থেকেই সারা বিশ্বের অজস্র দর্শক ব্যাকুলভাবে জানতে চাইছিলেন, কেন বাহুবলীকে মারল কাটাপ্পা? সে ক্ষেত্রে এ কথা মনে হওয়া স্বাভাবিক যে, এই ফিল্মের কাস্ট অ্যান্ড ক্রিউ অর্থাৎ সিনেমার যারা অভিনেতা এবং কলাকুশলী তাদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে পরিচয় থাকলে নিশ্চয়ই সিনেমা রিলিজ হওয়ার আগেই এই কৌতূহল নিরসন হতো।

কারণ যারা সিনেমাটি নির্মাণের সঙ্গে জড়িত, তারা নিশ্চয়ই সিনেমার পুরো কাহিনিটি আগে থেকেই জানতেন, ফলে তাদের মুখ থেকে কটাপ্পার হাতে বাহুবলীর মৃত্যুর কারণ জেনে নিতে পারতেন তাদের আত্মীয়-বন্ধুরাও। কিন্তু বিষয়টা যে আদপে তেমনটা নয় তা খোদ ‘কাটাপ্পা’র মেয়ের মুখ থেকেই জানা গিয়েছে। ‘বাহুবলী’ সিনেমায় কাটাপ্পার চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেতা সত্যরাজ।

তার মেয়ে দিব্যা সত্যরাজ সম্প্রতি একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দেয়া একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, রুপোলি পর্দার ‘কাটাপ্পা’ তার মেয়ে কিংবা পরিবারের অন্য সদস্যদেরও জানাননি যে, কেন কাটাপ্পা মারল বাহুবলীকে। দিব্যা জানান, ‘‘আমরাও অন্যান্য দর্শকের মতোই বাহুবলির প্রথম ভাগ দেখার পর থেকেই জানতে চাইছিলাম, কেন হঠাৎ বাহুবলিকে মারল কাটাপ্পা? আমার বাবাই কাটাপ্পার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন।

ফলে বাবা নিশ্চয়ই জানতেন ফিল্মের স্টোরিটা। সেই মনে করে বাবার কাছে বার বার জানতে চাইতাম, কেন বাহুবলীকে মারল কাটাপ্পা? কিন্তু বাবা সেই প্রশ্নের উত্তর কেবলই এড়িয়ে যেতেন। আমাদের পরিবারে বাবা বাদে অন্যরা অনেক সময় আঁচ করার চেষ্টা করতাম যে, কেন কাটাপ্পা বাহুবলীকে মারল? আমাদের অনুমানের কথা শুনে বাবা খালি মুচকি হাসতেন।

সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, একা সত্যরাজ নয়, ফিল্মের সমস্ত কলাকুশলীই এইভাবে সিনেমার কাহিনি সম্পর্কে গোপনীয়তা রক্ষা করে চলেছিলেন। গোপনীয়তার বিষয়টি নিশ্চিত করতে ১৫০ জন ক্রিউ মেম্বারের কাছ থেকে রীতিমতো বন্ড স্বাক্ষর করিয়ে নিয়েছিল ফিল্মের প্রোডাকশন হাউজ। প্রোডাকশন হাউজ নিশ্চিত করতে চেয়েছিল যে, ‘বাহুবলী ২’ রিলিজের আগে কোনোভাবেই এর কাহিনি যেন এর সম্ভাব্য দর্শকদের মধ্যে ফাঁস না হয়ে যায়। এই কারণে ফিল্মের কলাকুশলী এবং অভিনেতারা তাদের পরিবারের লোকেদের পর্যন্ত জানাতে চাননি, কেন বাহুবলিকে মারল কাটাপ্পা।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here