শ্রীমঙ্গলে ব্যবসায়ী তাজুল ইসলামকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

0
183

সিলেটের সংবাদ ডটকম: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল শহরের ব্যবসায়ী তাজুল ইসলামকে হত্যা করার জন্যই জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান রিপনের নেতৃতে তার উপর হামলা চালানোর  অভিযোগ উঠেছে।

রবিবার শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সন্মেলনে  তাজুল ইসলামের ছোট ভাই নজরুল ইসলাম এ অভিযোগ করেন। তিনি লিখিত বক্তব্য বলেন, আমার ভাই শহরের একজন প্রতিষ্টিত ব্যবসায়ী। সে মৌলভীবাজার চেম্বার্স আফ কমার্স এর পরিচালক।

গত ২২ মে রাতে তিনি তার ব্যবসা প্রতিষ্টানে বসে ব্যবসায়ীক কাজ করার সময় জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান রিপনের নেতৃতে তার উপর সন্ত্রাসী হামলা চলিয়ে তাকে গুরুতর আহত করেছে। এসময় সন্ত্রাসীরা ব্যবসা প্রতিষ্টান ভাংচুর করে ক্যাশ থেকে বিশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও দুইটি ল্যাপটপ লুট করে নিয়ে যাওয়া হয়।

হামলায় তাজুল ইসলামের ছেলে পারভেজ ও ব্যবসা প্রতিষ্টানের ম্যানেজার রুবেল আহত করে আমার ভাইয়ের পিকআপ গাড়ী ভাংচুর করে পাচঁ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে। তিনি বলেন, মশিউর রহমান রিপন বেশ কিছু দিন যাবত তার ভাইয়ের কাছে পচিঁশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে আসছেন। ঘটনার দিনও হামলাকারী ব্যবসা প্রতিষ্টান গিয়ে তাদের দাবিকৃত চাাঁদার টাকা দেয়ার জন্য আমার ভাইকে চাপ দেয়।

এসময় আমার ভাই চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় মাথায় হেলমেট পরে দা, রামদা, জিআই পাইপ ও রড় হাতে নিয়ে সন্ত্রাসীরা তার উপর হামলা চালায়। এদিকে গত ২৭ মে মশিউর রহমান রিপনের স্ত্রী সোনিয়া রহমান রিমি সংবাদ সন্মেলনে অভিযোগি তুলেন, ঘটনার রাতে মশিউর রহমান রিপন তার ভানুগাছ সড়কের ব্যবসা প্রতিষ্টানে ছিলেন।

যার প্রমান ব্যবসা প্রতিষ্টানের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখা যাবে। এ অভিযোগের বিষয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, বর্তমান আধুনিক যুগে সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে ভিডিও ফুটেজের তারিখ ও সময় নিজের ইচ্ছে মত পরিবর্তন করা যায়। আসামী মশিউর রহমান রিপন মামলা থেকে বাঁচাতে কৌশল করে এই মিথ্যার আশ্রয়  নিয়েছেন।

এছাড়া মশিউর রহমান রিপনকে মামলায় আসামী করায় তার বড় বোন লাকী আক্তার শিউলী বাদী হয়ে আমার ভাই তাজুলের উপর কোর্টে একটি চাদাঁবাজীর মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি বলেন, মশিউর রহমান রিপন একজন সন্ত্রাসী এবং তার সঙ্গীয় সন্ত্রাসীগন ইতি পূর্বেও একাধিক সন্ত্রাসী কাজে লিপ্ত ছিলেন। যা শহরের সর্ব সাধারণ ও পুলিশ প্রশাসনের নিকট বহু রেকর্ড বিদ্যমান আছে। কিন্তু আমরা হলফ করে এ কথা বলতে পারি আমাদের পরিবারের কারো বিরোদ্ধে কোনও দিন থানায় একটি মামলা হয়েছে বা আছে এমন প্রমাণ কেউ দেথাতে পারবে না।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here