সুনামগঞ্জে কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে গেল হত্যা মামলার আসামীরা

0
201

হাবিব সরোয়ার আজাদ,(সুনামগঞ্জ): কলেজ শাখার ছাত্রলীগ সভাপতি প্রার্থী হওয়ায় হত্যা মামলার আসামীরা সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বৃহস্পতিবার রাতে ফের এক কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাখাত করে পালিয়ে গেল।

গুরুতর আহত অবস্থায় তারেক আল মামুন নামের ওই কলেজ ছাত্রকে রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলেও তার অবস্থা সংকটাপন্ন বলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন।

তারেক উপজেলার বাদাঘাট সরকারি কলেজের স্নাতক শিক্ষার্থী ও বড়দল উওর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক এবং সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিনের ছোট ভাই আওার হোসেনের ছেলে।

জানা গেছে, উপজেলার বাদাঘাট সরকারি কলেজে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী হিসাবে বেশ কিছুদিন ধরেই প্রচারণায় নামে তারেক আল মামুন। এরই জের ধরে একই কলেজের অপর শিক্ষার্থী পৈলনপুর গ্রামের মৃত নুর ইসলামের ছেলে বাদাঘাট বাজারের বহুল আলোচিত মানিক হত্যাকান্ডের আসামী আযহারুল ইসলাম সোহাগের নেতৃত্বে রাহাতুল ইসলাম রাতুল সহ ৭/৮ অনুসারী সংঘটিত হয়ে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সুনামগঞ্জ-বাদাঘাট সড়কের বাদাম পট্রিতে তারেককে আটক করে ধারালো চাপাতি ও ছুরি দিয়ে রওার্থ জখম করে।

এক পর্যায়ে দুবৃওরা তারেককে মৃত ভেবে সড়কের ওপর ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। ’দুবৃওরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পর স্থানীয় এলাকাবাসী ও পরিবারের লোকজন সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তারেককে উদ্যার করে রাত সোয়া ১০ টার দিকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আহতদের চাচা উপজেলার বড়দল উওর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ার‌্যান জামাল উদ্দিন বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, আমার ভাতিজা তারেক বাদাঘাট সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি প্রার্থী হিসাবে বেশ কিছুদিন ধরেই সাংগঠনিক তৎপরতা চালিয়ে আসছিলো কিন্তু মানিক হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী পৈলনপুর গ্রামের মাসুক ও অপর আসামী তার শ্যালক সাবেক শিবির কর্মী সোহাগ এটা মেনে নিতে পারেনি বলেই তারা ৭ থেকে ৭ জন সংগঠিত হয়ে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে রাতের আঁধারে আমার ভাতিজার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে ছুরিকাখাত করে মেরে ফেলতে চেয়েছিলো।

এ ব্যাপারে মাসুক ও তার শ্যালক সোগাগের বওব্য জানতে বৃহস্পতিবার রাতে কয়েক দফা তাদের উভয়ের মুঠোফোনে কল করা হলেও তারা কল রিসিভ না না করায় তাদের কারো বওব্য নেয়া যায়নি।

তাহিরপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. আসাদুজ্জমান হাওলাদার বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দৃবুওদের গ্রেফতারের তাৎক্ষণিক পুলিশকে নির্ধেশনা দেয়া হয়েছে, এছাড়াও এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here