জামালগঞ্জের পল্লীতে ঘরসহ মালামাল লুটপাট

0
215

অনিমেষ দাস, জামালগঞ্জ(সুনামগঞ্জ): জামালগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে দুবৃত্তরা ঘরসহ মালামাল লুটপাট করেছে। সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার ফেঁনারবাঁক ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের জলিল পুর গ্রাম সংলগ্ন আমন রকম ভ’মির পাশের ঘরসহ কৃষি সরঞ্জামাদি পাওয়ার টিলার, ঘরে থাকার আসবাবপত্র সহ সব নিয়ে যায়।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, বিবাদী ইদ্রিস আলী গংদের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে ৬/৭বছর যাবৎ আদালতে মামলা বিচারাধীন ছিল। মামলা নং ২/২০১০ইং, রামপুর গ্রামের মামলার বাদী মকবুল হোসেনের পক্ষে গত ২১শে জুলাই ২০১৬ইং রায় হলে বিবাদীরা সংক্ষুব্ধ হইয়া এলাকায় শান্তি শৃংঙ্খলা ব্যাহত ঘটাবার পায়তারায় লিপ্ত থাকিয়া, গতকাল বিকাল ৩টায়, পাশ্ববর্তী জলিল পুর গ্রামের মৃত কিতাব আলীর ছেলে ইদ্রিস আলীর নেতৃত্বে হায়দর আলী, আইযুব আলী জামির আলী, জজ মিয়া, নুর নবী, রাজ্জাক মিয়া, চাঁনপর আলী, সহ মোট ২২জন আদালতের রায় কৃত ভূমিতে অবৈধ ভাবে প্রবেশ করে শান্তিপুর্ণ ভোগ দখলীয় ভুমি, দেশীয় অস্ত্রস্বস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ভুমিতে নির্মিত গৃহে প্রবেশ করিলে আমাদের আর্ত চিৎকারে আশপাশ ও গ্রামের লোকজন আসিয়া প্রাণে রক্ষা করে,আমাদেরকে  আশপাশ সরিয়ে নিয়ে আসে।

অবশেষে দুবৃর্ত্তদের মধ্যে ইদ্রিস আলী ও হায়দর আলীর নির্দেশে ঘড়ে থাকা পাওয়ার পাম্প, পাওয়ার টিলার ইত্যাদি সরঞ্জাম লুট করে নিয়ে আসে। এব্যপারে এ প্রতিনিধি সরেজমিনে গেলে সংবাদ পেয়ে জলিল পুর,জামলাবাজ গ্রামের প্রায় ৫০ জন মুরব্বী/যুবক  জড় হয়ে এদের মধ্যে আলী আকবর(৭০), আব্দুল মালেক(৫৫), কুদরত আলী(৬৫), মারফত আলী(৫৩), নয়ন মিয়া(৪৮), আমির আলী(৪০) সরফত আলী সহ আরো অনেকেই বলেন, সাংবাদিক ভাই খলিলুর রহমানের যা এতক্ষণ কইছে সব সত্য কথা।

আমাদের গ্রামের মধ্যে ইদ্রিস আলী গংরা খুব ভয়ংকর লোক। এই লোক জন তার ঘড় ভেঙ্গে ঘরের সরঞ্জামাদী একটি পাওয়ার পাম্প, একটি পাওয়ার টিলার, অনুমান ২লক্ষ টাকার মালা মাল নিয়ে গেছে। পরবর্তিতে গ্রামের কিছু যুবক মিলে পাওয়ার টিলারটি উদ্ধার করে খলিলুর রহমানকে দেয়।

রামপুর গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে মামলার বাদী খলিলুর রহমান বলেন আমাকে অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসেম মোবাইল ফোনে হুমকী দেওয়ায় আমি ভয়ে থানায় যাই নাই, আমার বন্ধু চানপুর গ্রামের মৃত মুতালিবের ছেলে শাহাবুদ্দীনকে দিয়ে ২২জনকে অভিযুক্ত করে জামালগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছি। এ ব্যপারে জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসেম বলেন,  আমি অভিযোগ পাইনি।

(Visited 19 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here