শ্রীমঙ্গলে মায়ানমারে পৈশাচিক হত্যা, ধর্ষণ বন্ধে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ

0
226

মুঃ রিমন ইসলাম, (শ্রীমঙ্গল): মায়ানমারে অব্যাহতভাবে চলা পৈশাচিক হত্যা,ধর্ষণ বন্ধে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে খেলাফত মজলিসের ব্যানারে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার বাদ জুমা শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে স্টেশন জামে মসজিদের সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে শ্রীমঙ্গল চৌমোহনায় এসে প্রতিবাদ সমাবেশে মিলিত হয়।

খেলাফত মজলিস শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি মুফতি মারুফ আব্দুল্লহ’র সভাপতিত্বে ও উপজেলা সেক্রেটারি মাওলানা সোহাইল আহমদের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার শহর খেলাফত মজলিসের সহ-সভাপতি মাওলানা সৈয়দ সাইফুর রহমান, শহর খেলাফত মজলিস সেক্রেটারি মুহাম্মদ আবিদুর রহমান, দারুস সালাম জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আবুল কালাম মুহাম্মদ ইউসুফ, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্র মজলিসের সাবেক সভাপতি, শ্রীমঙ্গল উপজেলা খেলাফত মজলিসের প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ এহসানুল হক প্রমুখ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বায়তুলমাল সম্পাদক ইমাম রুবেল,সহ-বায়তুলমাল সম্পাদক মাসউদ রানা,পৌর খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাফেজ সাদ ঈমানী,সহ-সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আব্দুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্র মজলিসের সাবেক সভাপতি, শ্রীমঙ্গল উপজেলা খেলাফত মজলিসের শ্রীমঙ্গল উপজেলা সহপ্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ এহসানুল হক,সহপ্রশিক্ষণ সম্পাদক হাফেজ শুয়াইবুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ।

মিছিলে একাত্মতা পোষণ করে বক্তৃতা করেন শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর মীর এম এ সালাম, দৈনিক খোলাচিঠির নির্বাহী সম্পাদক ইয়াসিন আরাফাত রবিন প্রমুখ। মেঘ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে অনুষ্ঠিত মিছিলে শ্রীমঙ্গল শহরের বায়তুল আমান জামে মসজিদ, শ্যামলী জামে মসজিদ,পূর্বাশা জামে মসজিদ,এলাহী জামে মসজিদ,শহরতলীর খাসগাঁও জামে মসজিদ,আল মদীনা জামে মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদের হাজার হাজার মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। মিছিলোত্তর সমাবেশে বক্তারা বলেন-ইতিহাসের জগণ্যতম গণহত্যা চালাচ্ছে মিয়ানমার সরকার।

অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন সরকার এবং বিশ্ব মোড়লরাও রহস্যজনকভাবে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। অথচ অমুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর সামান্যতম নির্যাতন হলে তারা ব্যাপকভাবে সরব হয়ে ওঠে।বক্তারা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আরও বলেন, রোহিঙ্গা মুসলিম নিধন বন্ধে জাতিসংঘ, ওআইসিকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।

মুসলমানদের ঘরবাড়িসহ মসজিদ ও মাদরাসাগুলো জ্বালিয়ে দিচ্ছে। নারীদেরকে যৌন নির্যাতন করে হত্যা করা হচ্ছে। নারী-শিশুসহ সব বয়সী মানুষগুলোকে দা দিয়ে কুপিয়ে মারছে।জাতিসংঘ, ওআইসি ও ইউরোপীয় ইউনিয়নকে মায়ানমারের এই সাম্প্রদায়িক ও জাতিগত নিপীড়ন বন্ধের জন্য জোরালো ভূমিকা রাখার আহবান জানানোর পাশাপাশি বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা, খাদ্য, বাসস্থান, ওষুধসহ তাদের যাবতীয় প্রয়োজন মেটাতে এগিয়ে আসার দাবি জানান।

(Visited 4 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here