সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সরকারের কঠোর অভিযানের সমালোচনা ও নিন্দা জানিয়েছেন ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস।

রোমান ক্যাথলিক চার্চের প্রধান এই ধর্মগুরু বলেছেন, মুসলিম বিশ্বাস এবং সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতে চাওয়ায় তাদের নির্যাতন এবং হত্যা করা হচ্ছে। আগামী ২৭ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার সফরে আসবেন পোপ ফ্রান্সিস।

রাখাইন সহিংসতার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, তারা (রোহিঙ্গা) অনেক বছর ধরে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। কেবল তাদের মুসলিম বিশ্বাস ও সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে চাওয়াই এর কারণ। গত আগস্টে মিয়ানমার সরকারের গণহত্যার নিন্দা জানিয়ে ক্যাথলিক এই ধর্মগুরু ইতালির রাজধানী রোমের সেন্ট পিটারসে এক প্রার্থনার আয়োজন করেন।

এসময় তিনি রাখাইনে নিপীড়নের শিকার সংখ্যালঘু মুসলিমদের সৃষ্টিকর্তা রক্ষা করবেন বলে মন্তব্য করেন। রাখাইন সহিংসতায় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের সমালোচনা করে পোপ ফ্রান্সি বলেছেন, ‘সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা ভাই-বোনদের নিপীড়নের খারাপ খবর এসেছে। আমি তাদের সঙ্গে আমার দুঃখবোধ প্রকাশ করছি।

আসুন তাদের রক্ষায় আমরা সবাই সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করি। একই সঙ্গে রোহিঙ্গাদের সহায়তা করার জন্য সৃষ্টিকর্তা ভালো মানুষ পাঠাবেন; যাতে তারা পূর্ণ অধিকার পান। পোপ বলেন, আসুন আমাদের রোহিঙ্গা ভাই-বোনদের জন্য প্রার্থনা করি। গত ২৫ আগস্ট উত্তরাঞ্চলের রাখাইনে মিয়ানমার পুলিশের ৩০টি তল্লাশি চৌকি ও একটি সেনা ক্যাম্পে হামলার চেষ্টা করে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা।

এতে অন্তত ১২ নিরাপত্তা কর্মকর্তা নিহত হয়। মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা বলছেন, ওই হামলার পর থেকে নিষ্ঠুর অভিযান শুরু করেছে সেনাবাহিনী। গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে, রাখাইন ছাড়া করতে বেসামরিক মানুষকে লক্ষ্য করে অভিযান চলছে।

অভিযানে তিন হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছে। বৌদ্ধ অধ্যুষিত রাখাইনে সংখ্যালঘু রাষ্ট্রহীন রোহিঙ্গা মুসলিমরা মিয়ানমারে দীর্ঘদিন ধরে নিপীড়নের শিকার হয়ে আসছেন। কয়েক শতাব্দি ধরে রাখাইনে বসবাস করে এলেও এই রোহিঙ্গাদেরকে অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী হিসেবে মনে করে মিয়ানমার।

NO COMMENTS

Leave a Reply