বড়লেখায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪

0
12

নজরুল ইসলাম, বড়লেখা (মৌলভীবাজার): মৌলভীবাজারের বড়লেখায় সিনিয়রিটি-জুনিয়রিটি বিরোধে ছাত্রলীগ কর্মীদের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ৫ যুবক আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার পৌর শহরের উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন এলাকায়।

বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জোর চেষ্টার পর অবশেষে একটি পক্ষ থানায় মামলা দায়ের করেছে। প্রত্যক্ষদর্শী, থানায় দেয়া লিখিত এজাহার, থানা পুলিশসহ একাধিক সূত্র জানায়, বড়লেখায় অবস্থানরত ও সিলেটে অবস্থানরত বড়লেখার কিছু যুবকের আরআরজেড নামের মোটর সাইকেল রাইডার গ্রুপ আছে।

রাইডার গ্রুপের সদস্যদের সিংহভাগই ছাত্রলীগের কর্মী। গত সোমবার রাতে ওই গ্রুপের আয়োজনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভা শেষে মোটর সাইকেলযোগে বাড়ি ফেরার পথে পাখিয়ালা গ্রামের বাসিন্দা অ্যাডভোকেট আশফাক আহমদের ছোটো ভাই ডিগ্রি কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র মাশফিক আহমদের ওপর পূর্ব বিরোধের জের ধরে হামলা চালায় রেদওয়ান নাজ নিলয়, রাবিন, তুহিন, জুনেদ আহমদ, জিল্লুর রহমান, রেদওয়ান, তারিকুল ইসলাম, সালমান আহমদ, ইমরান আহমদ, উত্তমসহ অজ্ঞাত নামধারী কয়েক যুবক। প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে মাশফিককে দা ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালালে তার পালসার মোটর সাইকেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় তার সাথে থাকা বন্ধু ইমরান হোসেনের ওপরও হামলা চালানো হয়।

হামলা থেকে বাঁচতে দৌঁড় দিয়ে পালিয়ে রক্ষা পায় তারা। এরপর সন্ত্রাসীরা মাশফিকের মোটর সাইকেল ভেঙ্গে চুরমার করে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করা হয়। এ ঘটনায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা বিষয়টি আপোষ-মীমাংসা ও ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালান। এদিকে এ ঘটনার পরদিন কলেজ থেকে প্রিটেস্ট পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে বিবাদীরা আবারও মাশফিকের ওপর হামলা চালায়।

রেদওয়ান নাজ নিলয় চাপাতি দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মাশফিককে মারাত্মক জখম করা হয়। মাটিতে ফেলে দেশীয় অস্ত্র দিয়েও তাকে পিটানো হয়। এ সময় মাশফিকের সহপাঠী ইমরান হোসেন, আলী হোসেন ও আরফাত আহমদ এগিয়ে গেলে তাদেরকেও পিটিয়ে আহত করা হয়।

এমনকি তাদের সাথে থাকা মোবাইল ফোনসেট, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয় সন্ত্রাসীরা। আহত ৪জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তন্মধ্যে গুরুতর আহত মাশফিককে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ঘটনায় থানায় ১০ জনের নামে ও অজ্ঞাত আরও ৫/৬ জনের নামে থানায় মামলা করেছে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ত্রিমুখী রাজনীতি চলছে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে।

মামলার বাদী অ্যাডভোকেট আশফাক আহমদ অভিযোগ করেন, বিবাদীরা পূর্ব বিরোধের জের ধরে তার ছোটো ভাইয়ের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর আহত করেছে। এ ব্যাপারে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তানিমুল ইসলাম জানান, এটি একটি বিস্তৃর্ণ ঘটনা। এ ঘটনার সাথে ছাত্রলীগের কোন সম্পৃক্ততা নেই। বড়লেখা থানা অফিসার ইনচার্জ সহিদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here