সিলেটে বাড়ছে চুরি : আতঙ্কে লোকজন

0
973

সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: সিলেট নগরীতে চুরির ঘটনা ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। প্রকাশ্য দিবালোকে বাসাবাড়ির জানালা দিয়ে অথবা তালা ভেঙ্গে মালামাল চুরির ঘটনা অহরহ ঘটছে।

দিন-দুপুরে চুরির ঘটনায় লোকজন  রয়েছেন আতঙ্কের মধ্যে। অপর দিকে এতো চুরির ঘটনা ঘটার পরও পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

বিশেষ করে টিলাগড়, কল্যানপুর, শাপলাবাগ, মিড়াপাড়া, শিবগঞ্জ, লামাপাড়া, উপশহর, বালুচর, মেজরটিলাসহ অন্যান্য এলাকায় বেশ কয়েকটি চুরির ঘটনা প্রমাণ করে চোরেরা কতটা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

এসব চুরির ঘটনায় লোকজন রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। কিন্তু তাতেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা। কোন না কোন এলাকায় চোরেরা হানা দিচ্ছে। জানা যায়, গত কয়েকদিনে শাপলাবাগ, কল্যানপুর, টিলাগড়, পুর্ব শাপলাবাগ শিবগঞ্জ এলাকায় প্রায় ১৫ থেকে ২০টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। চোরেরা দিন ও রাতে চুরি করছে। বিশেষ করে রাতের বেলা মুদি দোকান গুলোতে চোরেরা হানা দিয়ে সব কিছু নিয়ে যাচ্ছে।

একটি সুত্র থেকে জানা যায়, গত ২ আগষ্ঠ পুর্ব শাপলাবাগ থেকে একটি মোটর সাইকেল চুরি করে চোরেরা। রাতে বাসার গ্রীল কেটে মোটর সাইকেলটি নিয়ে যায়। এর তিনদিন পর চুরি হয় কল্যানপুরের আলাউদ্দিন মিয়ার বাসায়। চোরেরা কাঠাল গাছ দিয়ে ছাদে গিয়ে বাসার ভিতরে ঢুকে প্রায় ২ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

এর ২ দিন পর সন্ধ্যা রাতে শাপলাবাগ ২ নং রোডের সরোয়ার আহমদের বাসা থেকে ৩টি মোবাইল ও নগদ দেড় লক্ষ টাকা চুরি করে চোরেরা। বাসার জানালা দিয়ে চুরি করে পালিয়ে যায়। অপরদিকে টিলাগড় চাঁন্দুশাহ মাজার মার্কেটের একটি মুদি দোকান চুরি হয়। ওই দোকান থেকে প্রায় ৪০ হাজার টাকার মালামাল চুরি হয় বলে জানা যায়।

গত কয়েকদিন আগে পুর্ব শাপলাবাগ প্রধান সড়কের একটি দোকান চুরি হয়। এবং সব শেষে টিলাগড় জামে মসজিদের সামনের একটি দোকান চুরি হয়। এদিকে অন্যান্য এলাকায়ও চুরির ঘটনা ঘটছে বলে জানা যায়। এসব বেপোরোয়া চুরির ঘটনার কেউই আটক না হওয়ায় এলাকাবাসির মধ্যে বিরাজ করছে আতঙ্ক।

সচেতন নাগরিকদের মতে, গ্রেফতারের পর কয়েকদিন কারাভোগ করে চোর দলের সদস্যরা জামিনে বেরিয়ে পুনরায় তাদের পেশায় এবং মাদকসেবীরা নেশার টাকা জোগাড় করতেই চুরির মতো অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে।

এ ব্যাপারে সিলেট শাহপরান থানার ওসি তদন্ত গিয়াস উদ্দিন বলেন, এলাকাবাসীর জানমালের নিরাপত্তা দেয়াসহ চুরিরোধে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছে। এমনকি প্রতিদিন রাতে পুলিশ টহল দিয়ে আসছে্ এবং কিছু সোর্স ব্যবহার করা হচ্ছে এসব অপরাধীদের আটক করার জন্য।

(Visited 7 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here