ঘুমন্ত স্কুল শিক্ষিকার ছবি ভাইরাল

0
350

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষা চলাকালে শিক্ষিকার টেবিলে মাথা রেখে ঘুমের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক ভাবে ঝড় তুলেছে।

শিক্ষিকার এমন দায়িত্বহীন কাজে ফেসবুকে দেশের শিক্ষা ব্যাবস্থা নিয়ে আলোচনা সমালোচনাসহ তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার খলাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

বুধবার ওই স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীর মডেল টেস্ট পরীক্ষা চলছিল। পরীক্ষা চলাকালীন সময় টেবিলের উপর মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়েন শিক্ষিকা দিপ্তি রানী বিশ্বাস। ওই স্কুলে জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন পরিদর্শনে গেলে তিনি এ দৃশ্য দেখতে পান। প্রায় ৮-১০ মিনিট পর্যন্ত উপজেলা চেয়ারম্যান পরীক্ষার হলে অবস্থান করার পর শিক্ষিকার ঘুম ভাংগে।

যদিও দিপ্তি রানী বিশ্বাসের স্বামী সুবিনয় মল্লিক জানান, তার স্ত্রী অসুস্থতা নিয়ে স্কুলে গেছেন। তাই এমনটা হয়েছে। এদিকে পরীক্ষা চলাকালে শিক্ষিকার টেবিলে মাথা রেখে ঘুমের ছবি ফেসবুকে মুহুর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় এমন দায়িত্বহীন কাজের সমালোচনা।

ছবি নিয়ে শিক্ষিকার বক্তব্য :-তিন দিন ধরে আমার শরীর খুবই খারাপ। আমার স্বামী বাড়িতে এসে ঔষধ দিয়ে গেছেন। আজ সকালে স্কুলে যাওয়ার আগে হেড স্যারের কাছ থেকে ছুটি নিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ছুটি না নিয়ে নিজের দায়িত্বের প্রতি সম্মান আর সহকর্মীদের সহযোগীতা ভেবে স্কুলে গেলাম।

যাওয়ার পর পরীক্ষার ডিউটিতে ছিলাম। শরীর মোটামুটি ভালই আছে। কিছুক্ষণ পর বুঝতে পেলাম মাথায় ঘুরাচ্ছে তাই চেয়ারে গিয়ে বসলাম। এরপর হঠাৎ করে মাথা টেবিলে লেগে গেলে নিজে বুঝতেই পারি নাই। ৫-৭ মিনিট সময় পরে শরীর কাপছে। এমতাবস্থায় দেখি জকিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান উনার সহকারি দিয়ে ছবি তুলাচ্ছেন।

পরে স্কুলের অফিসে গিয়ে উনি আমাকে নাম-ঠিকানা জিজ্ঞেস করেন এবং আমার সামনেই কে এম মামুন নামের একজনকে ফোন দিয়ে ছবিগুলো পাঠান। বিষয়টি ক্ষর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে কেন তিনি এমনটি করলেন। উনারওতো একটি পরিবার আছে। এরপরই এই অপ্রস্তুত ছবিগুলো ফেসবুকে ভাইরাল হয়। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমার এই অসুস্থ শরীরের ঘুমের জন্য আমি ক্ষমা প্রার্থী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here