সিলেটে চলছে ছিনতাই হওয়া রডের রমরমা ব্যবসা : নৈপথ্যে ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী (পর্ব-১)

0
2795

সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: ইদানিং সিলেট শহর জুড়ে শুরু হয়েছে ছিনতাই হওয়া রডের রমরমা ব্যবসা। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ অথবা সেনারগাও থেকে এসব রড বোঝাই গাড়ি ছিনতাই হয়ে চলে আসছে সিলেটে। আর সিলেটে এদেরকে শেল্টার দিচ্ছেন গুটি কয়েক ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী।

জানা যায়, পুলিশ পরিচয় দিয়ে ছিনতাই হওয়া এসব রড বোঝাই গাড়ি সিলেট নগরীর বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার এবং কয়েকটি রড-সিমেন্টের ব্যবসায়ীদের নিকট চলে আসে। পরে অল্প মুল্যে ক্রয় করে তা আবার বর্তমান মুল্যে বিক্রি করছেন ঔসব ঠিকাদার এবং ব্যবসায়ীরা।

যার ফলে এরা রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যাচ্ছেন। সিলেট নগরীর কে বা কারা এসব ব্যবসার সাথে জড়িত তার তথ্য বের করতে অনুসন্ধানে নামে সিলেটের সংবাদ ডটকম এর কর্মীরা। দীর্ঘ অনুসন্ধানের পর বেরিয়ে আসে কয়েকটি তথ্য।

একটি সুত্র থেকে জানা যায় টিলাগড় এলাকার একটি রড সিমেন্টের দোকানের ব্যবসায়ী তার সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এসব ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার নাম এবং ব্যবসার ধরন আমরা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করব। পুলিশ প্রশাসনকে ফাকি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এসব ছিনতাই হওয়া রডের ব্যবসা চলছিল সিলেটে। কিন্তু কথায় রয়েছে চোরের দশদিন আর মালিকের একদিন।অবশেষে গত ২৬ নভেম্বর নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানাধীণ কাঁচপুরস্থ সিনহা গার্মেন্স এর সামনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে বিএসআরএম কোম্পানীর রডসহ একটি বড় ট্রাক যার রেজিঃ নং- চট্টমেট্রো-ট-১১-৭২৫২ দুর্বৃত্তরা ছিনতাই করে নিয়ে আসে সিলেটে। পরে জিপিএস টেকিং এর মাধ্যমে জানা যায়, ছিনতাই হওয়া রড বোঝাইকৃত ট্রাকটি শাহপরাণ (রহ:) থানাধীন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করছে।

উক্ত খবরের ভিত্তিতে শাহপরাণ (রঃ) থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার, মোঃ ইসমাইল পিপিএম বার, অফিসার ইনচার্জ, আখতার হোসেন, এসআই, মাসুদ রানা, এসআই, শাখাওয়াত হোসেন সঙ্গীয় ফোর্সসহ অভিযান পরিচালনা করে ২০ টন রডসহ ট্রাকটি উদ্ধার করেন। এরপর থেকে বেরিয়ে আসতে শুরু করে থলের বিড়াল।

ছিনতাই কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে মোঃ তৌহা মিয়া @ শাওন (৩০) পিতা-মৃত নূরুল হক, সাং-রূপসী, থানা-রুপগঞ্জ, জেলা-নারায়নগঞ্জকে গ্রেফতার করা হয়। পরে ছিনতাই হওয়া ট্রাকের চালক সিরাজদৌলা জানান, (২৪ নভেম্বর) শুক্রবার সকালে চট্টগ্রাম থেকে (চট্ট-মেট্রো-ট-১১-৭২৫২) একটি ট্রাকে বিএসআরএম কোম্পানীর ১১ লাখ টাকার ২০টন লোহার রড ট্রাকে ভর্তি করে টাঙ্গাইলে উদ্দেশে রওয়া হয়।

পরে শুক্রবার রাত ১ টার দিকে সোনারগাঁও উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর বিসিক এলাকায় পৌছলে রাস্তায় পুলিশের বেশে পোশাক পরিহিত অবস্থায় ২টি হাইচ মাইক্রোবাস লোহার রড ভর্তি ট্রাকটি গতিরোধ করে।

এ সময় পুলিশ বেশে ১২-১৪ জনের ডাকাত ট্রাকের চালক সিরাজদৌলার কাছে লোহার রডের (চালান) মালিকানা কাগজ দেখতে চাইলে, কাগজ দেখায়। এ সময় সিভিলে দুইজন ডাকাত ট্রাক চালক সিরাজদৌলা ও হেলপার সুমনকে গাড়ি থেকে নামিয়ে একটি হাইচ মাইক্রোবাসে তুলে মুখ বেধে নিয়ে ঔষধ খাইয়ে অজ্ঞান করে রাস্তায় মোগরাপাড়া এলাকায় ফেলে চলে যায়। চলবে………………………………..

(Visited 44 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here