‘আমি বেয়াইকে ছাড়া বাঁচবো না,

0
767

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: পাবনার চাটমোহরে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রী (১৩) বিয়ের দাবিতে বেয়াই স্বপন সরকারের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার নিমাইচড়া ইউনিয়নের চিনাভাতকুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। পরে রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বপনের পরিবারের লোকজন ওই স্কুল ছাত্রীকে মারধর করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

স্বপন ওই গ্রামের বৈদ্যনাথ সরকারের ছেলে। এ ঘটনার পর ওই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, ৪ বছর পূর্বে স্বপনের বড় ভাই প্রভাত সরকারের সাথে পার্শ্ববর্তী উপজেলা ফরিদপুর উপজেলার হাদল গ্রামের জনৈক এক নারীর বিয়ে হয়। এরই সূত্র ধরে প্রভাতের শ্যালিকা হাদল ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রীর সাথে তার ছোট ভাই স্বপনের (২২) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

এরপর থেকে স্বপন ও মেয়েটি বেয়াই-বেয়ানের সম্পর্কের সূত্র ধরে একাধিক স্থানে বেড়াতে যায় এবং গভীর সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। ইতিমধ্যে মেয়েটি ছেলেটিকে বিয়ের চাপ দিলে সে কৌশলে বরাবরই এড়িয়ে যায়। পরিশেষে মেয়েটি কোন উপায় অন্তর না পেয়ে মঙ্গলবার বিকেলে বিয়ের দাবি নিয়ে সে স্বপনের বাড়িতে অবস্থান নেয়।

এসময় স্বপনের পরিবারের লোকজন তাকে মারধর করে নিমাইচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খোকনের জিম্মায় দেন। পরে ইউপি চেয়ারম্যান রাত সাড়ে ৯টার দিকে চাটমোহর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। এদিকে এ ঘটনার পর স্বপন বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে বলেও জানা যায়।

স্কুল ছাত্রী জানায়, স্বপনকে (বেয়াই) বিয়ে করা ছাড়া আমার কোন উপায় নাই। আমাকে বিয়ে করবে বলে সে আমার সবকিছু কেড়ে নিয়েছে। আমি তাকে (বেয়াই) ছাড়া বাঁচবো না। বিয়ে না হলে আমি আত্মহত্যা করবো। নিমাইচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খোকন জানান, মেয়েটির বয়স কম।

তারা সম্পর্কে আপন বেয়াই-বেয়ান। বিয়ে না দিলে আত্মহত্যা করবে এমন কথা বলার পর মেয়েটিকে আমি থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছি। এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ওসি (তদন্ত) মো. শরিফুল ইসলাম জানান, মেয়েটি নাবালিকা। আত্মহত্যার হুমকি দেয়ায় নিরাপত্তার স্বার্থে তাকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে এবং পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়া হয়েছে।

(Visited 10 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here