সিলেটে চলছে ছিনতাই হওয়া রডের রমরমা ব্যবসা : নৈপথ্যে মুন্না ও মুহিব (পর্ব-২)

0
3487

সিলেটের সংবাদ ডটকম এক্সক্লুসিভ: ইদানিং সিলেট শহর জুড়ে শুরু হয়েছে ছিনতাই হওয়া রডের রমরমা ব্যবসা। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ অথবা সেনারগাও থেকে এসব রড বোঝাই গাড়ি ছিনতাই হয়ে চলে আসছে সিলেটে।

আর সিলেটে এদেরকে শেল্টার দিচ্ছেন মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সিনিয়র সদস্য এবং ঠিকাদার সুবেদুর রহমান মুন্না ওসদ্য দু-নাম্বারি ব্যবসায় নাম লেখানো টিলাগড়ের হক ট্রেডার্সের মালিক মুহিবুর রহমানসহ আরো কয়েকজন।

জানা যায়, ছিনতাই হওয়া এসব রড বোঝাই গাড়ি সিলেট নগরীর বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার এবং কয়েকটি রড-সিমেন্টের ব্যবসায়ীদের নিকট চলে যায়। পরে অল্প মুল্যে ক্রয় করে তা আবার বর্তমান মুল্যে বিক্রি করছেন ঔসব ঠিকাদার এবং ব্যবসায়ীরা। যার ফলে এরা রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যাচ্ছেন।

সিলেট নগরীর কে বা কারা এসব ব্যবসার সাথে জড়িত তার তথ্য বের করতে অনুসন্ধানে নামে সিলেটের সংবাদ ডটকম এর কর্মীরা। দীর্ঘ অনুসন্ধানের পর বেরিয়ে আসে কয়েকটি তথ্য। আমরা গত পর্বে বলেছিলাম আমাদের অনুসন্ধানী ২য় পর্ব আপনাদের কাছে তুলে ধরব। আজ ২য় পর্ব তুলে ধরা হলো।

একটি সুত্র থেকে জানা যায় টিলাগড় এলাকার মেসার্স হক টেডার্স এর সত্বাধিকারী মো: মুহিবুর রহমান এবং মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সিনিয়র সদস্য এবং ঠিকাদার সুবেদুর রহমান মুন্নার মাধ্যমে এসব ব্যবসা চলছে। আর এদেরকে শেল্টার দিচ্ছেন টিলাগড় ভিত্তিক আওয়ামীলীগের এক নেতা।

সুত্র থেকে জানা যায়, মুন্না ও মুহিবের রড সিমেন্টের ব্যবসার সুবাদে নারায়নগঞ্জ এর অনেক রড সিমেন্টের দোকানের ম্যানেজারদের সাথে রয়েছে তার সম্পর্ক। আর সে কারনে তিনি খুব সহজেই অবৈধভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর আগে মুহিবুর রহমান মুহিব তার দোকানের ভিতরে সিমেন্টের প্রতি প্যাকেট খুলে তা থেকে সিমেন্ট নিয়ে সিমেন্টের বস্তা বানিয়ে ব্যবসা শুরু করেন।

তাতেই তিনি রাতারাতি দু-নাম্বারির লাইন পেয়ে যান। এরপর শুরু হয় ছিনতাই করে রড অথবা ট্রাকের গাড়ি সিলেট নিয়ে আসা। অপরদিকে সুবেদুর রহমান মুন্নার সাথে মুহিবের সখ্যতা গড়ে উঠে। এবং চোরাইকৃত রড সিমেন্ট মুন্নার কাছে বিক্রি করতে থাকেন মুহিব।এক পর্যায়ে এ ব্যবসায় লাভের অংশ বেশি দেখে মুন্নাও জড়িয়ে পড়েন ছিনতাই হওয়া রডের ব্যবসায়। নারায়নগঞ্জের একটি সুত্র থেকে জানা যায়, মুন্না তার পরিচিত ছিনতাইকারিদের দিয়ে রডের ট্রাক ছিনতাই করিয়ে সিলেট নিয়ে আসেন এবং পরে সেগুলো বিভিন্ন ঠিকাদারে কাছে বিক্রি করেন।

আর এরখমই একটি রডের গাড়ি গত ২৬ নভেম্বর নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানাধীণ কাঁচপুরস্থ সিনহা গার্মেন্স এর সামনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে বিএসআরএম কোম্পানীর রডসহ একটি বড় ট্রাক যার রেজিঃ নং- চট্টমেট্রো-ট-১১-৭২৫২ দুর্বৃত্তরা ছিনতাই করে নিয়ে আসে সিলেটে।

পরে সেগুলো আনলোড করা হয় সিলেট  সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতর। কিন্তু রডের মালিকের অভিযোগের ভিত্তিতে ২০ টন রডসহ ট্রাকটি উদ্ধার করেন সিলেট শাপরান থানা। রড আনলোডে মুহিব ব্যবহার করেন তার দোকানে নিয়েজিত শ্রমিক হাসু মিয়া ও কালিঘাটের আরেক জন শ্রমিক মহব্বত আলীসহ ৪/৫ জনকে।

এদেরকে মুহিব ও মুন্না ৫০০ টাকা মুজুরিতে কাজে লাগান। এর মধ্যে শ্রমিক হাসু মিয়ার কাছ থেকে জানা যায়, তাকে বলা হয় সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে রডগুলি আনলোড করে মুহিবের হক ট্রেডার্সে নিয়ে আসার জন্য।

এদিকে ছিনতাই কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে মোঃ তৌহা মিয়া @ শাওন (৩০) পিতা-মৃত নূরুল হক, সাং-রূপসী, থানা-রুপগঞ্জ, জেলা-নারায়নগঞ্জকে গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু মুহিব ও মুন্না বিশাল অংকের টাকা দিয়ে প্রশাসন ম্যানেজ করেন। যাতে করে তাদের নাম উল্লেখ না হয়। চলবে…………………………………….

 

(Visited 63 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here