জকিগঞ্জে স্ত্রীর লাশ রেখে স্বামী উধাও!

0
287

সিলেটের সংবাদ ডটকম: জকিগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ রেখে স্বামী উধাও হওয়ার ঘটনায় এলাকায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।  হত্যা না আত্মহত্যা এনিয়ে সর্ব মহলে চলছে ব্যাপক আলোচনা। জানা গেছে, গতকাল শুক্রবার বেলা আড়াইটার দিকে মানিকপুর ইউনিয়নের এওলাসার গ্রামের গৃহবধু পান্না বেগম (২১)-এর লাশ জকিগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে রেখে পালিয়ে যান তার স্বামী সুজাদ আহমদ সিজু চৌধুরী।

পরে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জকিগঞ্জ থানাকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জকিগঞ্জ  উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুল্লাহ আল মেহেদী।

নিহত গৃহবধু পান্না বেগম  হলেন কসকনকপুর ইউনিয়নের হাতিডহর গ্রামের ফারুক আহমদ ও হুছনা বেগমের মেয়ে, এক সন্তানের জননী। এ প্রসঙ্গে নিহত পান্না বেগমের মা হুছনা বেগম বলেন, প্রায় দেড় বছর আগে মানিকপুর ইউনিয়নের এওলাসার গ্রামের সুজাদ আহমদ সিজু চৌধুরীর সাথে আমার মেয়ের বিয়ে হয়। তবে মাঝে মধ্যে পারিবারিক বিরোধ ছিল।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে মেয়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে এখানে এসে দেখতে পাই মেয়ের লাশ গাড়িতে রাখা।জকিগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে আসার পর আমার মেয়ের জামাই লাশ রেখে পালিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, পান্না বেগমের লাশ হাসপাতালে নিয়ে আসার পর তার মুখ, ঠোট ও গলায় আঘাতের চিহৃ দেখা যায়।

জকিগঞ্জ সরকারি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. খালেদ আহমদ বলেন, ওই মহিলাকে সকালে তার স্বামী আমার কাছে নিয়ে আসেন। এ সময় মহিলা তীব্র ব্যথায় কথা বলতে পারেননি। জিজ্ঞেস করলে স্বামী জানান আমার স্ত্রীকে একটি পাগল মারধর করেছে। এর বেশি কিছু বলেননি। এমনকি হাসপাতালে ভর্তি দিতে চাইলে তিনি রাজি হননি। বলেন ব্যথার কিছু ওষুধ দেন। বাড়িতে নিয়ে যাই। ঐ মহিলার মুখের বাম পাশ, ঠোট ও গলায় মারধরের চিহৃ স্পষ্ট দেখা যায়।

এদিকে মেয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে বাবা ফারুক আহমদ অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে স্বজনরা তাকে জকিগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। গৃহবধুর লাশ উদ্ধারের বিষয়টি স্বীকার করে জকিগঞ্জ থানার এসআই গৌতম সরকার বলেন,  নিহতের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য আজ শনিবার ভোরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে।

(Visited 12 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here