মাদক নিয়ে যাওয়া যাবে রাশিয়া বিশ্বকাপে!

0
161

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: প্রতিটা বিশ্বকাপেই কোনো না কোনো বিষয় নিয়ে বিতর্ক থাকে। ব্রাজিল বিশ্বকাপে যেমন বিতর্কের কেন্দ্রে ছিল মশা এবং দেশটির নিরাপত্তা।

রাশিয়া বিশ্বকাপে তেমনই বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছে মাদকদ্রব্য। বিষয়টি এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে, রাশিয়া বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটি শর্তসাপেক্ষে দেশটিতে সমর্থকদের মাদক নিয়ে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে।

হেরোইন, কোকেন, ভাং, মারিজুয়ানা, এম্পিটামিন্সসহ অনেকগুলো মাদকদ্রব্য সেই অনুমতির তালিকায় পড়েছে, যেগুলো শর্তসাপেক্ষে দর্শক-সমর্থকরা বহন করে নিয়ে যেতে পারবে রাশিয়ায়। এমনকি খেলার ভেন্যুগুলোতেও। তবে, যে শর্তারোপ করা হচ্ছে নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য বহনে, সেটা বেশ আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আবদ্ধ।

যিনি এসব মাদকদ্রব্য বহন করবেন, তার ক্ষেত্রে তাকে অবশ্যই প্রয়োজনীয় মেডিকেল এবং ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র দেখাতে হবে। মাদকদ্রব্য বহনের আইনগত বৈধতা প্রমাণ করে, এমন কাগজপত্র প্রদর্শন করতে হবে। তবেই সেই ব্যক্তি নির্দিষ্ট মাদক নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন রাশিয়ায়।

বেলারুশ, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, আর্মেনিয়া এবং রাশিয়াসহ মস্কোভিত্তিক ইউরেশিয়ান ইকোনোমিক ইউনিয়ন (ইএইইউ) মিলে বৈঠক করে আইনগত ভিত্তিতে নিষিদ্ধ মাদকদব্য নিয়ে বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ রাশিয়া প্রবেশ করার ব্যাপারে ঐক্যমত্যে পৌঁছেছে। আইনগত ভিত্তি প্রদানের জন্য অবশ্যই মাদকবহনকারীকে প্রয়োজনীয় মেডিকেল কাগজপত্র প্রদর্শন করতে হবে। বিশ্বকাপের খেলা দেখতে আসা প্রতিটি বিদেশি নাগরিকের জন্যই এ নিয়ম প্রজোয্য হবে।

রাশিয়ার নেতৃত্বে ইএইইউ’র বৈঠকের এ সিদ্ধান্তে সারা বিশ্বের লাখ লাখ দর্শককে বিশ্বকাপের স্বাগতিক দেশটিতে অবাধে হেরোইন, কোকেন, ভাং কিংবা মারিজুয়ানা বহনের ওপর বৈধতা দিয়ে দিলো। যদিও, এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের নিশ্চয়তা দিয়েছে রাশিয়া। রাশিয়া ফেডারেশন এ আইন নির্দিষ্ট করতে যাচ্ছে শুধুমাত্র যে ১১টি আয়োজক শহর রয়েছে, সেগুলোতে।

যদিও মস্কো, সেন্ট পিটার্সবার্গ এবং সোচিতে ধুমপান আগে থেকেই নিষিদ্ধ রয়েছে। বিশ্বকাপেও এ নিয়ম বলবৎ থাকবে বলে জানিয়ে দিয়েছে রাশিয়ান কর্তৃপক্ষ। গত মঙ্গলবারই এ বিষয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটি একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে।

সেখানেই বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটি জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার আইনপ্রয়োগকারী বিভিন্ন সংস্থা ১১টি আয়োজন শহরসহ পুরো দেশেই বিভিন্ন প্রবেশপথ এবং চেক পয়েন্টে তল্লাশী অভিযান পরিচালনা করবে।

যেসব ফুটবল সমর্থক নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য বহন করবে, তাদের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র রয়েছে কি-না সেটা নিশ্চিত করতেই চালানো হবে এ তল্লাশী অভিযান। বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে যে বিবৃতি দেয়া হয়েছে সেখানে বলা হয়েছে, ‘নিরাপত্তা কর্মকর্তারা পুরো বিষয়টা মনিটর করবে এবং আইন প্রয়োগ করবে।

বিশেষ করে মাদকদ্রব্য বহনের ক্ষেত্রে বৈধ মেডিকেল কাগজপত্র রয়েছে কি না সেগুলো দেখবে তারা। বিভিন্ন চেক পয়েন্ট এবং স্টেডিয়াম গ্রাউন্ডেই থাকবে এ তল্লাশী ব্যবস্থা।

(Visited 6 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here