সিলেটে মৃত্যুর ১৬ বছর পর জীবিত দেখিয়ে দলিল-মামলা : চাঞ্চল্য

0
352

সিলেটের সংবাদ ডটকম: সিলেট নগরীর কলবাখানী চাষনিপীর রোডে জালিয়াতির মাধ্যমে ‘ভূমিদস্যুতা’র গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় ফৌজদারী ও দেওয়ানী উভয় আইনে মামলা হয়েছে। মামলায় পলাতক থেকে ‘ভূমিদস্যু’রা বাদীকে নানাভাবে হয়রানী করছে।

মৃত্যুর ১৬ বছর পর ভূমির মালিককে জীবিত দেখিয়ে দলিল সৃষ্টি করায় সর্বত্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সিলেট সিটি কর্পোরেশন-সহ স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নগরীর কাজীটুলা অন্তরঙ্গ ২১/২-এর বাসিন্দা মরহুম মো. এনায়েত উল্লাহর পুত্র মো. রিয়াজ উল্লাহ ওরফে রিয়াজ মিয়া চাষনিপীর রোড এলাকাস্থ আম্বরখানা মৌজার ৯৫৮ দাগের আড়াই শতক ভূমির রেকর্ডীয় মালিক ছিলেন। মালিক দখলকার থাকাবস্থায় তিনি ১৯৮৬ সালের ২৪ নভেম্বর মৃত্যুবরন করেন।

মৃত্যুর পর তার উত্তারধিকারীরা ওই ভূমি ভোগদখল করে আসছিলেন। প্রতিপক্ষ মো. আব্দুল মোমিন ও তার স্বজনরা রিয়াজ মিয়ার মৃত্যুর ১৬ বছর পর ২০০২ সালের ১৬ জুন তারিখ দিয়ে তাদের পিতা আব্দুর রহমান বাদশাহর অনুকুলে রিয়াজ মিয়ার নামে একটি দলিল (নং-৮৪২৫/২০০২) সৃষ্টি করেন।

অতি সম্প্রতি ওই দলিল দেখিয়ে তারা মরহুম রিয়াজ উল্লাহর উত্তরসূরীদের সাড়ে ১০ লাখ টাকা মূল্যের স্বত্ত্ব-দখলীয় আড়াই শতক  ভূমি জবরদখলে মেতে উঠেন।

এ ঘটনায় মরহুম রিয়াজ উল্লাহ ওরফে রিয়াজ মিয়ার উত্তরসূরী দিলরুবা আক্তার এ্যনি বাদী হয়ে গত ৭ মার্চ সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানায় ৯ জনের বিরুদ্ধে দলিল জালিয়াতি ও ভূমিদস্যুতার একটি মামলা {নং-১৪(৩)১৮}করেন।

মামলার আসামীরা হচ্ছেন, নগরীর উচাসড়ক কাজী জালাল উদ্দিন এলাকার ১১৮নং বাসার মৃত আব্দুর রহমান বাদশাহর পুত্র মো. আব্দুল মোমিন, মো.আব্দুল মুহিব, মো, আতিকুর রহমান, মিফতাউর রহমান, মো. আবেদুর রহমান, মরহুম আব্দুর  রহমান বাদশার মেয়ে মোছা: মমতা বেগম, সিলেট সদর সাবরেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লেখক মাহমদ আলী,এসএমপির এয়ারপোর্ট থানার চৌকিদেখীর মৃত এল বাহাদুরের পুত্র এম, বাহাদুর ও একই এয়ারপোর্ট থানাধীন বালুচর এলাকার মৃত রাম বাহাদুরের পুত্র সুমন বাহাদুর। মামলা দায়েরের দীর্ঘপ্রায় এক মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও আসামীদের গ্রেফতার না করায় বাদী দিলরুবা আক্তার এ্যানি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন। আসামীরা পলাতক থেকে বাদী দিললুবা ও তার স্বজনদের হত্যা, অপরহণ গুম করার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগে প্রকাশ।

পাশাপাশি মরহুম রিয়াজ মিয়াকে বিক্রেতা বানিয়ে সৃষ্ট  জাল দলিল বাতিল করার দাবি জানিয়ে মরহুম রিয়াজ মিয়ার উত্তরসূরী একেএম নজমুদ্দিন রাজিব বাদী হয়ে সিলেটের যুগ্ম জেলা জজ আদালতে একটি স্বত্ব মোকদ্দমা (নং-৭২/১৮) দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই শেখ মো. ইয়াছিন ভুইয়া জানান, মামলা দায়েরের পর থেকে আসামীরা আত্মগোপনে চলে গেছে। তাদের গ্রেফতারে পুলিশের তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

(Visited 14 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here