লাউয়াছড়ায় গাছ চোর চক্রের সাথে খাসিয়া সম্প্রদায়ের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

0
134

সিলেটের সংবাদ ডটকম: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের মূল্যবান গাছ পাচারে সক্রিয় হয়ে উঠেছে চোর চক্র।

উদ্যানের লাউয়াছড়া পুঞ্জি সংলগ্ন মাঠে আগর গাছ কেটে খণ্ড খণ্ড করে গাছ চোরের একটি দল। এ সময় খাসিয়া পুঞ্জির লোকজন বাঁধা দিলে ৩০/৪০ জনের সশস্ত্র চোর দলের সাথে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর কেটে ফেলা গাছের খণ্ডাংশ উদ্ধার করা হয়।

লাউয়াছড়া বিট কর্মকর্তা বিষয়টি জেনেও কর্ণপাত করেননি বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার রাত আড়াইটার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে। সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, উদ্যানের লাউয়াছড়া পুঞ্জি সংলগ্ন মাঠের পাশে আগর বাগান থেকে প্রায় তিন ফুট বের হওয়া একটি আগর গাছ কেটে খণ্ড খণ্ড করে গাছ চোর দল।

টের পেয়ে খাসিয়া চকিদার তাদের সম্প্রদায়ের লোকদের বিষয়টি অবগত করলে খাসিয়ারা গাছ চোরদের বাঁধা দেন। এ সময়ে গাছ চোর দল খাসিয়াদের ধাওয়া করলে খাসিয়ারাও পাল্টা ধাওয়া করেন। এক পর্যায়ে গাছ চোরেরা পিছু হটলে খাসিয়ারা কেটে ফেলা আগের গাছের ৯টি খণ্ডাংশ উদ্ধার করেন।

প্রায় ৮০ ফুট উচ্চতা আগর গাছের এই গুড়া এখন কালের সাক্ষী হয়ে আছে। লাউয়াছড়া খাসিয়া পুঞ্জির হেডম্যান ফিলা পত্মী ও খাসিয়া ছাত্র পরিষদের নেতা সাজু মারচিং জানান, রাতে চোরদের ধাওয়া খেয়ে পাল্টা ধাওয়া করে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করে আগর গাছের খণ্ডাংশগুলো উদ্ধার করা হয়।

এ সময়ে লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেনের মোবাইল বন্ধ পেয়ে তার অফিসে রুবেল, রেসলি, ফর্মান, নাসির সহ আমাদের চার সদস্যকে পাঠিয়ে বিষয়টি অবগত করলে তিনি ঘুম থেকে উঠে বলেন পরে দেখা যাবে। অথচ এ সময়ে ভিলেজার সহ অন্য কাউকে পাওয়া যায়নি।

লাউয়াছড়া খাসিয়া পুঞ্জির হেডম্যান ফিলা পত্মী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সম্প্রতি এ উদ্যানে গাছ চোর চক্র সক্রিয় থাকলেও বনবিট কর্মকর্তার ভূমিকা রহস্যজনক। আর এক একটি আগর গাছ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের বলে গাছ চোরদের দৃষ্টি এখন এ আগর বাগানের দিকে।

লাউয়াছড়া খাসিয়া পুঞ্জির খাসিয়া ছাত্র নেতা সাজু মার্চিয়াং অভিযোগ করে বলেন, গাছ কাটার কথা শুনে রাতে ঝুঁকি নিয়ে খাসিয়া পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে আসে। তখন লাউয়াছড়া বনবিট (বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ) কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেনকে ফোন করা হলে তিনি সকালে আসবেন, রাতে আসতে পারবেন না বলে জানান।

পরে বিষয়টি বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক আনিসুর রহমানকে অবহিত করা হলে ভোর সাড়ে ৫টায় বনবিট কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বনকর্মীদের নিয়ে এসে রক্ষা করা আগর গাছের খণ্ডাংশগুলি উদ্ধার করে নেন।

এ সম্পর্কে খাসিয়া সদস্য সাজু মার্চিয়াং আরো বলেন, সময়মত সশস্ত্র বনকর্মীদের নিয়ে বনবিট কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসলে হয়তো ২/১ জন গাছ চোরকে আটক করা যেত। এ সম্পর্কে জানতে চেয়ে লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁকে পাওয়া যায়নি।

তবে বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক আনিসুর রহমান মুঠোফোনে কেটে নেওয়া আগর গাছ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বনকর্মীরা গাছের খণ্ডাংশ উদ্ধার করেছে। লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তার উপর খাসিয়া সদস্যদের অভিযোগ সম্পর্কে সহকারী বন সংরক্ষক বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

(Visited 25 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here