‘পোলিং এজেন্টদের তালিকা চায় পুলিশ’ কামরান বললেন ‘অপপ্রচার’

0
39

সিলেটের সংবাদ ডটকম ডেস্ক: পোলিং এজেন্টদের নাম ও তালিকা দেয়ার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে ফোন এসেছে বলে দাবি করেছেন সিলেট বিএনপির মেয়রপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী।

তিনি বলেছেন- সোমবার তাকে ফোন করে এই তালিকা চাওয়া হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়রপ্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরানসহ অন্য মেয়রপ্রার্থীরা এ ধরনের কোনো ফোন পাননি।

মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকেও ফোন দেয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমের কাছে অস্বীকার করা হয়েছে। পুলিশ বলছে- এই তালিকা কেউ চাইলেও নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে চাইতে পারে। এখনই সেটি চাওয়ার সময় আসেনি । এদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর বক্তব্য নিয়ে সিলেটের নির্বাচনী মাঠে তোলপাড় চলছে।

এর আগেও আরিফ অভিযোগ করেছিলেন প্রিজাইডিং অফিসারের বাড়ি বাড়ি গিয়েও পুলিশ হুমকি দিচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার নিজ এলাকা ঝরনারপাড়, সোনাতলা, ঝেরঝেরিপাড়া এলাকায় গণসংযোগে নামেন আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি এলাকার বাসিন্দাদের কাছে ধানের শীষ মার্কায় ভোট চান।

এ সময় গণমাধ্যমের কাছে তিনি অভিযোগ করে বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে তার কাছে পোলিং এজেন্টদের তালিকা চাওয়া হচ্ছে। আমি তাদের বলেছি- পোলিং এজেন্টের নাম ও তালিকা তো পুলিশের কাছে দেয়ার নিয়ম নেই। সেটি নির্বাচন কমিশনকে দেয়া হবে। পুলিশকে তিনি বলে দিয়েছেন এ ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করতে।

আরিফ বলেন, সিলেট খুলনা কিংবা গাজীপুর নয়। এখানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে হয় নির্বাচন করবো নতুবা অন্যায়ের প্রতিবাদ জানাবো। সকল অন্যায় জান দিয়ে, রক্ত দিয়ে হলেও রক্ষা করা হবে। এদিকে একই সময় নগরীর আম্বরখানা মনিপুরীপাড়া এলাকায় গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরান।

তাকেও গণমাধ্যম কর্মীরা একই প্রশ্ন করলে কামরান জানান- তার কাছে এ ধরনের কোনো ফোন আসেনি। তবে পোলিং এজেন্টের নাম ও তালিকা প্রার্থীরা করবেন নির্বাচনের দু’তিন দিন আগে। এখন তো সেটি করার সময় না। আর সেটি আমরা অন্যদের দেবো না। তিনি দাবি করেন নির্বাচনে অমূলক কথাবার্তা থেকে প্রার্থীদের বিরত থাকতে হবে।

এমন কিছু বলার প্রয়োজন নেই যেটা থেকে মানুষ বিভ্রান্ত হতে পারে। তিনি বলেন, আমাকে নিয়েও নির্বাচনে নানা অপপ্রচার হচ্ছে। কিন্তু সিলেটের মানুষ কখনোই অপপ্রচারে কান দেন না। কোনো প্রার্থী যখন নিজেকে দুর্বল মনে করে তখন এ ধরনের কথাবার্তার মাধ্যমে অপপ্রচারে লিপ্ত থাকে বলে মন্তব্য করেন কামরান।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমীর অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের। তার নির্বাচন পরিচালনা কমিটি সদস্য সচিব ও মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমীর মো. ফখরুল ইসলাম জানিয়েছেন, তাদের কাছে পুলিশের তরফ থেকে এ সংক্রান্ত কোনো ফোন আসেনি।

তবে কয়েক দিন আগে তাদের কাছে ফোন করে কর্মীদের নাম ও তালিকা চাওয়া হয়েছিল। সিলেট বিএনপির মেয়রপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার পরিতোষ ঘোষ জানান, পুলিশ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা দেখে। এগুলো দেখার কথা না পুলিশের।

এরপরও আরিফুল হক চৌধুরী যদি বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতনদের জানান সেটি আমরা দেখবো। কেউ তাকে পুলিশের পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নাম ও তালিকা চাইতে পারে। সে ব্যাপারে অভিযোগ পেলে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে জানান তিনি।

এদিকে আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, সিলেটের নির্বাচনে অদৃশ্য একটি ছায়া কাজ করছে। প্রতিনিয়ত তাকে এবং তার কর্মীকে নানাভাবে বাধা দেয়া হচ্ছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ তল্লাশি চালাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে সিলেটে স্বাভাবিক ভোটের পরিবেশ সৃষ্টি হবে না বলে দাবি করেন তিনি। এ জন্য নির্বাচন কমিশনকে আরো বেশি সক্রিয় হওয়ার দাবি জানান আরিফ। মানবজমিন

(Visited 55 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here