বিতর্কিত ইউপি চেয়ারম্যান সাহেল বরখাস্ত

0
57

সিলেটের সংবাদ ডটকম: পানি উন্নয়ন বোর্ডের হাওররক্ষা বাঁধ প্রকল্পে কম কাজ করিয়ে বেশি বিলের দাবিতে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবরুদ্ধ করে ফেইসবুকে লাইভ দিয়ে লাঞ্চিত করায় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় বিতর্কিত সেই ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করেছে।

গত ১৫ জুলাই মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব ইফতেখার আহমদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত বরখাস্তের কপি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ বিভিন্ন অফিসে এসে পৌঁছেছে। ওই বিষয়ে গত রবিবার মন্ত্রণালয় চেয়ারম্যানের সাময়িক বরখাস্ত সংক্রান্ত এক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে ছাতক উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়ন পরিষদের বরখাস্তকৃত ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা, পুলিশ এসল্ট মামলাসহ একাধিক মামলার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন থেকে জানা যায়, গত ১৭ মে ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসিরুল্লাহ খান ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের এক উপসহকারি প্রকৌশলী সাদত হোসেনকে নিজ অফিসে অবরুদ্ধ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে লাইভে গিয়ে খিস্তি খেউড় করেন ছাতক উপজেলার সিংচাপইর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবরুদ্ধ ও লাঞ্চনার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। এতে প্রশাসনের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বিব্রতবোধ করে। প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, বরখাস্তকৃত ওই চেয়ারম্যান নিজ ইউনিয়নের চাউলির হাওরের ফসলরক্ষা বাধে কম কাজ করিয়ে বেশি বিল উত্তোলনের দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

অতিরিক্ত বিল না পেয়ে তিনি গত ১৭ মে ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসিরুল্লা খানের অফিসে গিয়ে তাকে অবরুদ্ধ করে একটানা ৫০ মিনিট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে লাইভ করেন। সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে খিস্তিখেউর করেন এবং লাইভে তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারি কর্মকর্তা সাদত হোসেনকে কুত্তা বলে সম্বোধনও করেন।

এ ঘটনায় ১৯ মে জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম স্থানীয় সরকার উপপরিচালক মো. এমরান হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন। কমিটি একাধিকবার ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিন তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দেয়।

ওই প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতেই এবং স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইন (২০০৯) এর ধারা (১) মোতাবেক গত ১৫ জুলাই তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এ ঘটনায় গত ১৫ জুলাই এক প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, ওই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা, পুলিশ এসল্ট মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। চেয়ারম্যানের এসব কার্যক্রম ইউপি পরিষদ ও জনস্বার্থ পরিপন্থি হিসেবে তার দ্বারা ক্ষমতা প্রয়োগ প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণ থেকে সমীচীন নয় মর্মে সরকার মনে করে।

তাছাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষে ডুকে তাকে অবরুদ্ধ ও লাঞ্চনার বিষয়টি তদন্তে প্রমাণিক হওয়ায় তাকে বিধি বলে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে বরখাস্তকৃত ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের মোবাইল ফোনে মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্য্যন্ত একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন ধরেননি। সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলকে মন্ত্রণালয় কর্তৃক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

(Visited 79 times, 1 visits today)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here